তামাক আইন রহিত করার পাঁয়তারা ও তামাক কোম্পানীর পক্ষে সংবাদ সম্মেলন

newsgarden24.com    ০৩:২১ পিএম, ২০২২-০৭-৩১    135


তামাক আইন রহিত করার পাঁয়তারা ও তামাক কোম্পানীর পক্ষে সংবাদ সম্মেলন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: দেশের জনগণের স্বাস্থ্য উন্নয়নের সাথে সে দেশের প্রচলিত আইন ও নীতিগুলোর সম্পর্ক নিবিড়। কিছু গোষ্ঠী ও সিগারেট কোম্পানীগুলো এ সকল নীতি ব্যবসায়িক স্বার্থে প্রভাবিত করার চেষ্টা চালিয়ে থাকে।
এদের মধ্যে তামাক কোম্পানিগুলো সবচেয়ে বেশি সক্রিয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও নীতি প্রণয়নে তামাক কোম্পানীর হস্তক্ষেপ একটি বিরাট চ্যালেঞ্জ। চ্যালেঞ্জটি বর্তমানে অধিক পরিমানে দৃশ্যমান। ফলে তামাক নিয়ন্ত্রণে অগ্রণী ভূমিকা রাখার সম্ভাবনা ও সুযোগ থাকলেও অনেক ক্ষেত্রেই সেখান থেকে দেশকে পিছিয়ে পড়তে হচ্ছে। এই পিছিয়ে পড়ার অনেকগুলো কারণের মধ্যে অন্যতম, রাষ্ট্রে বিদ্যমান নীতি ও আইনসমুহের

মধ্যে তামাক সম্প্রসারণে সহায়ক বিধানসমূহের উপস্থিতি।
তামাক কোম্পানীর হস্তক্ষেপ বাংলাদেশে নতুন নয় এবং এর বহু প্রমাণ রয়েছে। ১৯৯০ সালে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আইন প্রণয়নের মাধ্যমে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন বন্ধের উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল। কিন্তু তামাক কোম্পানীর হস্তক্ষেপের কারণে এটি সম্ভব হয়ে ওঠেনি। এ ঘটনার ১৫ বছর পর অর্থাৎ ২০০৫ সালে বাংলাদেশে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন প্রণয়নের মাধ্যমে সকল তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা হয়। তবে এ দীর্ঘ সময়ের মাঝে হাজার হাজার তরুণকে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ধূমপানে আকৃষ্ট করার সুযোগ পায় তামাক কোম্পনিগুলো। কি কারণে, কিভাবে, কার মাধ্যমে সরকারের এ মহৎ অ উদ্যোগ বন্ধ করা হয়েছিল এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য না থাকলেও, এটি তামাক কোম্পানির প্রভাবের একটি সুস্পষ্ট নমুনা। জনস্বাস্থ্য রক্ষায় তামাক কোম্পানিগুলোর নীতিতে প্রভাব বিস্তারের সুযোগ বন্ধ করা জরুরী।
বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ন্যায় এ বছর বাংলাদেশেও কোভিট ১৯ ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছিলো। করোনায় সারাদেশে সাধারণ ছুটি থাকায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের সরবরাহ ক্ষেত্রে সংকট তৈরী হয়। কিন্তু “তামাক ব্যবহারের কোভিড ১৯ এর ঝুকি ১৪ গুণ বেশী” ধূমপানের ফলে ফুসফুসের কার্যক্ষমতা কমে যায় ও ফুসফুসের দীর্ঘমেয়াদী রোগ ও কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। পৃথিবীর শীর্ষ ১০টি তামাক সেবনকারী দেশের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এমন সর্তকবার্তা থাকার পরও সারাদেশে তামাকজাত দ্রব্যের সরবরাহ অব্যাহত ছিল। ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো এবং জাপান টোব্যাকো কোম্পানীকে বহু পুরাতন একটি আইন অনুসারে উৎপাদন, সরবরাহ ও বিক্রিতে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কোভিভকালীন সময়ে তামাকপন্য সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার প্রস্তাব করে। মহামারী বিস্তারে সহায়ক জানার পরও শিল্প মন্ত্রণালয় প্রস্তাবটি নাকচ করে দেয়। ' তামাক কোম্পানীর প্রভাব বিস্তারের বিষয়টি বর্তমানে কোন পর্যায়ে রয়েছে এ বিষয়টি থেকে তা অনুধাবন করা যায়।
যদিও 'তামাক খাদ্য কিংবা জীবন রক্ষাকারী পণ্য নয় তারপরও এমন সংকটকালীন সময়ে বহু পুরাতন আইনের দুর্বলতার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে 'তামাককে না বলে উৎপাদন, বিপণন কার্যক্রম চালানো হয়েছে। উপরন্তু, তামাক সেবনে করোনার ভয় নেই” বলেও বিভ্রান্তিকর প্রচারণাও লক্ষ্য করা গেছে। এ সময়ে (জুন-আগস্ট, ২০২০ সময়কালে) দ্যা ইউনিয়ন ও ডাব্লিউবিবি ট্রাস্ট একটি গবেষণা দেখা যায়, ৫১% উত্তরদাতা জেনেছেন ধূমপায়ীর করোনা ঝুঁকি কম, ৩৬% জেনেছেন তামাক পাতা দ্বারা করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়েছে ।
তামাক মৃত্যু ঘটায়। তামাকের কারণে বাংলাদেশে ১ লক্ষ ৬১ হাজার মানুষ বছরে মারা যায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে এফসিটিসি’র সাথে সামঞ্জস্য রেখে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। এর ধারাবাহিকতায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় তামাকনিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ এফসিটিসি’র প্রথম স্বাক্ষরকারী দেশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অন টোব্যাকো কন্ট্রোল (এফসিটিসি) আর্টিকেল ৫.৩ গাইডলাইনস অনুসারে, জনস্বাস্থ্য বিষয়ক আইন বা বিধি প্রণয়নে তামাক কোম্পানি বা ব্যবসায়িক স্বার্থ জড়িত এমন কোন গোষ্ঠীর সঙ্গে আলোচনা বা পরামর্শ গ্রহণ করার কোন সুযোগ নাই।
ধূমপান ও তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন করতে প্রস্তুত করা খসড়ায় স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স ছাড়া তামাক ও তামাকজাত পণ্য বিক্রি নিষিদ্ধের প্রস্তাব করা হয়েছে। নির্দেশ অমান্যে প্রথমবার ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং পরে দ্বিগুণ হারে জরিমানার প্রস্তাব করা হয়েছে। এসব প্রস্তাব ও পদক্ষেপে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতি বাংলাদেশ নাসিব চট্টগ্রাম মহানগর শাখা। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের এস রহমান হলে নাসিব চট্টগ্রাম মহানগর শাখার আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।
সংবাদ সম্মেলন নাসিব চট্টগ্রাম মহানগর শাখার  সভাপতি এ এস এম আব্দুল গফফার মিয়াজী বলেন, অধিকাংশ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর দোকান চালানো কোনো নির্দিষ্ট স্থান নেই। কিছু দিন পরপর জায়গা পরিবর্তন করতে হয়। আবার বহু বিক্রেতা ভাসমান। তাদের পক্ষে হোল্ডিং নম্বর দিয়ে লাইসেন্স নেয়া অবাস্তব।বাংলাদেশে প্রায় ১৫ লাখ নিম্ন আয়ের খুচরা বিক্রেতা আছে, যার অধিকাংশই প্রত্যন্ত অঞ্চলে ভাসমান দোকানি। ফলে এই ধারা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না।

তিনি বলেন, অযৌক্তিক কোনো নির্দেশনা ছাপিয়ে দিয়ে ক্ষুদ্র প্রান্তিক ব্যবসায়ীদের বিতাড়িত করা যাবে না। যৌক্তিক নির্দেশনা দিতে হবে।  যিনি কোরোসিন বিক্রি করেন খুচরা পর্যায়ে তাকে কী বিস্ফোরক অধিদফতরের লাইসেন্স নিতে হয়? যিনি দোকানে স্যালাইন বিক্রি করেন তাকে কী ওষুধ প্রশাসনের লাইসেন্স নিতে হয়? তাহলে খুচরা সিগারেট বিক্রির বেলায় কেন আলাদা লাইসেন্সে প্রসঙ্গ আসবে? লাইসেন্স বাধ্যতামূলক করা হলে নিম্ন আয়ের খুচরা বিক্রেতাদের ব্যবসায় খড়গ পড়বে, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করবে এবং দৈনিক জীবিকার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। পাশাপাশি আইনের অপপ্রয়োগ ও মাঠপর্যায়ে হয়রানির সম্ভাবনার সৃষ্টি করবে।

তিনি বলেন, খসড়া আইনে ৫০ হাজার টাকা জরিমানার কথা বলা হয়েছে। এই পরিমাণ আয় তো ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর কয়েক মাস মিলেও হয় না। এমন বিধান করা হলে ব্যবসা বন্ধ করে পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে। এমনিতেই করোনায় ক্ষুদ্র শিল্প সবচেয়ে বড় ধাক্কা খেয়েছে। অনেক ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা আর ব্যবসায় ফিরতে পারেননি। এই হার প্রায় ১০ শতাংশ। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের পক্ষে লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করা সুযোগ খুব কম।

ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উপর এমনিতেই নানা বোঝা আছে জানিয়ে আবদুল গফ্ফার মিয়াজী বলেন, ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের ওপর করের বোঝা ব্যাপকভাবে চাপানো হয়েছে। এমনভাবে কর ও ভ্যাটের জাল বাড়ানো হয়েছে যাতে দেশের বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা শহরের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাও করের আওতায় চলে আসছেন। একই সঙ্গে ব্যবসার জন্য বিভিন্ন কাগজপত্র সংগ্রহের কার্যক্রমেও নানা ধরনের করের পরিমাণ ও আওতা বাড়ানো হয়েছে। ব্যবসা করতে গেলে সবার আগে নিতে হয় একটি ট্রেড লাইসেন্স। প্রতিবছর এটি নবায়ন করতে হয়। আগে ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এলাকার জন্য ট্রেড লাইসেন্স নবায়নের সময় নির্ধারিত ফির বিপরীতে ৫০০ টাকা উৎসে কর দিতে হতো। প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে এটি ৩ হাজার টাকা করা হয়েছে। এভাবে নানা করের বোঝাই দিশেহারা হয়ে পড়েছেন প্রান্তিক পর্যায়ের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি নুরুল আজম খান, সহ সভাপতি ইন্জিনিয়ার সেলিম, পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম, এম এ হোসেন।

 

 

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল


রিটেলেড নিউজ

লোডশেডিং থাকবে না, জ্বালানি তেলের দামও সমন্বয় করা হবে: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

লোডশেডিং থাকবে না, জ্বালানি তেলের দামও সমন্বয় করা হবে: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: আগামী মাস থেকে দেশে লোডশেডিং থাকবে না, জ্বালানি তেলের দামও সমন্বয় করা হবে বলে জ... বিস্তারিত

চট্টগ্রামের নিত্যপণ্যের বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব

চট্টগ্রামের নিত্যপণ্যের বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পড়েছে চট্টগ্রামের নিত্যপণ্যের বাজারে। এক... বিস্তারিত

বিচার চেয়ে মো. হাবিব ও রীনা বেগমের বিরুদ্ধে বুদ্ধি প্রতিবন্ধি মুরাদের স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

বিচার চেয়ে মো. হাবিব ও রীনা বেগমের বিরুদ্ধে বুদ্ধি প্রতিবন্ধি মুরাদের স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম পশ্চিম বাকলিয়া ডিসি রোডের মৃত সিরাজুল ইসলামের পুত্র মো. হাবিব ও মো. হ... বিস্তারিত

 সাতকানিয়ায় নতুন ভোটারদের অভিভাবকরা চরম ভোগান্তিতে

সাতকানিয়ায় নতুন ভোটারদের অভিভাবকরা চরম ভোগান্তিতে

newsgarden24.com

বিশেষ প্রতিনিধি: এবার হাল নাগাদ ভোটার তালিকায় নতুন ভোটার হতে প্রায় ২০টি সনদের  প্রয়োজন হচ্ছে বলে&... বিস্তারিত

হাটহাজারীতে ওয়াগনের নীচে কাটা পড়ে মাদ্রাসা ছাত্রের মর্মান্তিক মৃত্যু

হাটহাজারীতে ওয়াগনের নীচে কাটা পড়ে মাদ্রাসা ছাত্রের মর্মান্তিক মৃত্যু

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: হাটহাজারীতে তেলবাহী ওয়াগনের নীচে কাটা পড়ে মো. শাহাদাৎ (৮) নামে এক মাদ্রাসা ছাত্... বিস্তারিত

আদালতের সেই বিয়ে পিছিয়েছে

আদালতের সেই বিয়ে পিছিয়েছে

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: ধর্ষণ মামলায় গ্রেফতার মো. সাগর ও রাজিয়া (ছদ্মনাম) আদালতে বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন... বিস্তারিত

সর্বশেষ

সেনাবাহিনীর জীপ খাদে পড়ে ১জন নিহত, আহত ৩

সেনাবাহিনীর জীপ খাদে পড়ে ১জন নিহত, আহত ৩

newsgarden24.com

বান্দরবান প্রতিনিধি: বান্দরবানের থানচির ২৮ কিলোমিটারে পাহাড়ী ঢালু সড়ক পথ বেঁয়ে নামার সময় খাদে পড়... বিস্তারিত

নবনিযুক্ত কাস্টমস কমিশনার’র সাথে বিজিএমইএ নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ

নবনিযুক্ত কাস্টমস কমিশনার’র সাথে বিজিএমইএ নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: কাস্টস হাউজ, চট্টগ্রামের নব-নিযুক্ত কমিশনার জনাব মোহাম্মদ ফাইজুর রহমান-এর সাথ... বিস্তারিত

বেগম খালেদা জিয়ার ৭৮তম জন্মদিনে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের খাবার বিতরণ

বেগম খালেদা জিয়ার ৭৮তম জন্মদিনে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের খাবার বিতরণ

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বিএনপি চেয়ারপার্সন, আপোসহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ... বিস্তারিত

খাওয়ার জন্য সন্তানকে বিক্রি করে দিচ্ছে: ডা. শাহাদাত হোসেন

খাওয়ার জন্য সন্তানকে বিক্রি করে দিচ্ছে: ডা. শাহাদাত হোসেন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি'র আহবায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, দেশে সরকারের হঠকার... বিস্তারিত