‘চট্টগ্রামের শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক পরিবেশ নষ্ট করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে জেলা প্রশাসন’

newsgarden24.com    ০৯:৫৪ পিএম, ২০২১-০৯-১৬    103


‘চট্টগ্রামের শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক পরিবেশ নষ্ট করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে জেলা প্রশাসন’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি সভাপতি মুহাম্মদ এনামুল হক ও সাধারণ সম্পাদক এ এইচ এম জিয়াউদ্দিন এক যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন, বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় জানিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি ১২৫ বছরের একটি পেশাজীবী সংগঠন। দেশের অনেক প্রতিথজশা আইনজীবী অত্র সমিতির সদস্য ছিলেন। দেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম থেকে শুরু করে গণতান্ত্রিক সকল সংগ্রামে অত্র সমিতির বিজ্ঞ সদস্যদের অবদান দেশব্যাপী স্বীকৃত। দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে রয়েছে এ সমিতির আত্মার বন্ধন।
১৯৮৮ সালে ২৪ জানুয়ারী তৎকালীন স্বৈরশাসকের গুলির মুখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে মানবঢাল বানিয়ে জীবনরক্ষায় এগিয়ে এসেছিল এ

সমিতির বিজ্ঞ সদস্যবৃন্দ। অনেক বর্ষীয়ান রাজনৈতিক নেতার গর্বের সংগঠন এই সমিতি। এ সমিতির অনেক বিজ্ঞ সদস্য দেশের মন্ত্রী, মেয়র, এম.পি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ঐতিহ্যবাহী এ সংগঠনের মান, মর্যদা, সম্মান ক্ষুন্ন করার অপপ্রয়াস জেলা প্রশাসন চালিয়ে যাচ্ছে তা সত্যিই দুঃখজনক এবং পাশাপাশি উদ্দেশ্যমূলকও বটে। সারাদেশ তথা চট্টগ্রামের শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক পরিবেশ নষ্ট করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে জেলা প্রশাসন।
বিবৃতিতে বলা হয়, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির ক্রমবর্ধমান সদস্যবৃন্দের প্রয়োজনের বিষয় বিবেচনা করে এবং আইনজীবী সমিতির নিজস্ব ভবন নির্মাণের জন্য ৩০.১২.১৯৭৭ ইং তারিখের ১৪৮৮৮ নং লীজ দলিল মূলে চট্টগ্রাম কোর্টহিলে সরকারী খাস জমি চৌহদ্দি উল্লেখপূর্বক সরকার কর্তৃক চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির বরাবরে হস্তান্তর করা হয়। যা সরকারের ১নং খাস খতিয়ানের অন্তর্ভূক্ত নয়।
চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির ভবনগুলো সিডিএ কর্তৃক যথাযথ ভাবে অনুমোদিত। যা সিডিএ কর্তৃক জেলা প্রশাসনকে পত্র মারফতে ইতিপূর্বে অবগত করা হয়েছে।
চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির ভবনসমূহ নির্মাণের সময় কোন পাহাড় টিলা কাটা হয়নি। যদি পাহাড় টিলা কাটা হত তবে নিশ্চয় সে সময় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বাধা প্রদান করত।
সমিতির ভবনসমূহ অভিজ্ঞ প্রকৌশলী ও ঠিকাদারের তত্ত্বাবধানে যথাযথ গুনগত মান রক্ষা করে নির্মাণ করা হয়েছে। সমিতির প্রত্যেক ভবনের রয়েছে একাধিক সিড়ি ও বাহির হওয়ার পথ।
সমিতির প্রস্তাবিত “আইনজীবী একুশে ভবন” যে স্থানে নির্মাণ করা হচ্ছে তা ইতিপূর্বে সিডিএ থেকে অনুমোদিত স্থানেই নির্মাণ করা হচ্ছে। অপর ভবন নির্মাণের জন্য সিডিএ-র অনুমোদন প্রক্রিয়াধীন আছে।
সমিতির ভবনসমূহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আইন মন্ত্রণালয়ের অনুদানে এবং সমিতির নিজস্ব অর্থায়ণে নির্মিত হয়। ভবনসমূহ নির্মাণে বিভিন্ন দফায় মাননীয় প্রধান মন্ত্রী ও আইন মন্ত্রণালয় থেকে অনুদান দেওয়া হয়। সমিতির কোন ভবন অবৈধ হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বা অন্য কোন মন্ত্রণালয় অনুদান প্রদান করতেন না। ভবনসমূহের নির্মাণ কাজও সংশ্লিষ্ট সময়ে মাননীয় মন্ত্রীগণ কর্তৃক উদ্বোধন করা হয়।
কোর্ট বিল্ডিং এর চতুর্পার্শ্বে সমিতির কোন অবৈধ স্থাপনা নাই। দোকানপাট, খাবার হোটেল, মুদি দোকান, রাস্তার হকার, বস্তি ইত্যাদি স্থাপনাগুলোর অধিকাংশই জেলা প্রশাসন কর্তৃক লিজ প্রদানকৃত ও কিছু অংশ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা/কর্মচারীগণ কর্তৃক ভাড়ায় লাগিয়তকৃত। যা থেকে জেলা প্রশাসন মাসিক/দৈনিক ভাড়া উত্তোলন করে। ঐ সকল স্থাপনাগুলোতে জেলা প্রশাসনের ছত্রছায়া, নাকের ডগায় বিভিন্ন অনৈতিক কাজ, মাদক ব্যবসা ইত্যাদি হয়ে আসছে। এসব অনৈতিক কার্যকালাপ বন্ধ করতে ইতিপূর্বে জেলা প্রশাসন থেকে কোনরূপ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।
কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় কোন ছাত্রাবাস নাই। যা জেলা প্রশাসনের কল্পনাপ্রসূত।  
জেলা প্রশাসন, গোয়েন্দা সংস্থা, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যর্থতার কারণেই ২০১২ সালে কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় জঙ্গি হামলা হয়েছিল।
বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের সামনে স্থাপিত সিসি টিভি ক্যামরা আইনজীবী নেতৃবৃন্দ কখনোই অপসারণ করেন নি। আইনজীবী ভবন সংলগ্ন রাস্তার বৈদ্যুতিক পোল, ব্রীজ ইত্যাদিতে এখনো প্রশাসনের সিসিটিভি ক্যামরা বিদ্যমান রয়েছে। উল্লেখ্য যে, আদালত এলাকার নিরাপত্তার স্বার্থে সমিতির প্রত্যেকটি ভবনের সম্মুখে সমিতির নিজ ব্যয়ে ২০১৫ সাল থেকেই সিসিটিভি ক্যামরা স্থাপন করা হয়।
আইনজীবী সমিতি নিজস্ব অর্থায়নে ১০০০ কেভিএ বৈদ্যুতিক সাবষ্টেশন স্থাপন করে বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে সংযোগ নিয়ে নিয়মিত বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করে আসছে। যার সত্যতা বিদ্যুৎ বিভাগে যোগাযোগ করলে জানা যাবে। সমিতিতে কোন অবৈধ বিদ্যুৎ বা পানির সংযোগ নাই।
ঐতিহ্যবাহী পুরাতন আদালত ভবনটি তদসময়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়লে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তা ভেঙ্গে তথায় একটি নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। সে অনুযায়ী পুরাতন ভবন ভাঙ্গার জন্য ঠিকাদারও নিয়োগ করা হয়। আইনজীবী সমিতিসহ চট্টগ্রামের নাগরিক সমাজের উদ্যোগে উক্ত পুরাতন আদালত ভবনটি সংস্কার করে পুরাকীর্তি হিসেবে সংরক্ষণ করার জন্য মামলা করা হয়। যার প্রেক্ষিতেই পরবর্তীতে পুরাতন আদালত ভবন না ভেঙ্গে সংস্কার করে পুরার্কীতি হিসেবে মর্যাদা দেওয়া হয়।   
নতুন আদালত ভবন নির্মাণের পূর্বে পুরাতন আদালত ভবনে চট্টগ্রামের সকল আদালতের কার্যক্রম চলত। আদালতের এজলাস, বিজ্ঞ বিচারকদের খাস খামরা, সেরেস্তা অফিস, হাজতখানা, রেকর্ডরুম, আইনজীবীদের মিলনায়তন ইত্যাদি পুরাতন আদালত ভবনেই ছিল। যেখানে বিভাগীয় কমিশনার বা জেলা প্রশাসনের কোন কার্যালয় ছিল না। আইনজীবীগণ পুরাতন আদালত ভবনের কোন কক্ষ দখল করেন নি। প্রকৃত সত্য হচ্ছে যে, পুরাতন আদালত ভবন সংস্কারের পর জেলা প্রশাসনই জোরপূর্বক উক্ত ভবনটি দখল করে নেয়। যে ভবনে বর্তমানে জেলা প্রশাসনের ৩য়/৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের জন্য বড় বড় কক্ষ বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে পুরাতন আদালত ভবনে অনেক কক্ষ খালি থাকার পরও জেলা প্রশাসনের দখলদারিত্বেও কারণে সিজেএম ভবন নির্মাণের পূর্বে টিনশেড ভবনে জুডিসিয়্যাল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতসহ অনেক আদালতের বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে হত।
পুরাতন আদালত ভবনের নীচ তলায় সমিতির ২নং মিলনায়তনের পাশে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে ও পুরাকীর্তি স্থাপনা ধ্বংস করে ২০০৮ সালে তদকালীন জেলা প্রশাসক কর্তৃক দেওয়াল নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হলে সমিতির মামলা করে উক্ত দেওয়াল নির্মাণ কাজ বন্ধ করা হয়।
লীজ প্রাপ্ত খালি জমির একাংশে ১৯৯২ ইং সনে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির শতবর্ষ উৎযাপন উপলক্ষ্যে স্মারক স্তম্ভ নির্মাণের সময় জেলা প্রশাসকের রাজস্ব কর্তৃপক্ষ বাধা সৃষ্টি করলে সমিতির পক্ষে চট্টগ্রাম ১ম সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে স্বত্ব ঘোষণার জন্য জেলা প্রশাসককে ১নং বিবাদী করে অপর মামলা নং-৮৭/৯৪ দায়ের করা হয়, যা পরবর্তীতে চট্টগ্রাম ১ম অতিরিক্ত সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে স্থানান্তরিত হয়ে অপর মামলা নং ৩৮/৯৭ হয়। উক্ত মামলায় সরকারের বিরুদ্ধে দোতর্ফা সূত্রে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি ডিক্রী প্রাপ্ত হয়।
সমিতি কোন সরকারী জমি দখল করে ভবন নির্মাণ করে নি। প্রস্তাবিত ভবনসমূহও সমিতির লিজ দলিলের অন্তর্ভূক্ত জমি হয়। বিগত ২০১৪ সালে সমিতির আইনজীবী শাপলা ভবন নির্মাণের সময় তদকালীন অতি. জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জনাব মোহাম্মদ ইলিয়াছ, জেলা প্রশাসনের কাননুগো, সার্ভেয়ার এবং সমিতির নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে উক্ত জায়গা পরিমাপ করা হয়। পরিমাপে সমিতির জায়গার সীমানা চিহ্নিত করে দেওয়া হয়। যেখানে তদকালীন সময়ে সমিতির সিকিউরিটি গার্ড রুম, জেনারেটর রুম নির্মাণ করা হয়। যা বর্তমানেও স্থিত রয়েছে।

সমিতির জায়গা, স্থাপনা ইত্যাদি সংক্রান্তে জেলা প্রশাসন থেকে উদ্দেশ্যপূর্ণ ভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী পরিষদ সচিবালয়সহ সরকার ও প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। যা মোটেই কাম্য নয়।

প্রকৃত সত্য হচ্ছে যে,
ক) সম্প্রতি সংস্কারকৃত ও পুরাকীর্তি হিসেবে সংরক্ষিত পুরাতন আদালত ভবনের সম্মুখের খালি জায়গায় জেলা প্রশাসন কর্তৃক প্রশাসনের গাড়ি পার্কিং করার জন্য গেইট নির্মাণপূর্বক ঘেরা দিয়ে বাগান করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। উক্ত কাজের জন্য মাটি কেটে গর্ত করা, ইট, বালিসহ বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রী আনা হয়। রাস্তার মধ্যে বালি রেখে গাড়ি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়। যা চট্টগ্রামের আইনজীবীসহ সর্বসাধারণের নজরে আসলে আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে বাঁধা দেওয়া হয় এবং জেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্টদেরকে উক্ত নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে বলা হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন মুখী চাপের মুখে পড়ে জেলা প্রশাসন উক্ত নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে বাধ্য হয়। এ বিষয়ে বিগত ০৩/০৮/২০২১ তারিখ গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ে পত্র প্রেরণ করা হয়।
খ) সম্প্রতি জেলা প্রশাসনের এল. এ শাখার কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারী রাতের আঁধারে ঘুষ-দূর্নীতিতে লিপ্ত থাকা অবস্থায় সমিতির নেতৃবৃন্দ কর্তৃক ধৃত হয় এবং পরবর্তীতে তাদেরকে জেলা প্রশাসনের নিকট সোপর্দ করা হয়।
গ) বর্তমান জেলা প্রশাসক জনাব মোহাম্মদ মমিনুর রহমান চট্টগ্রামে যোগদানের অব্যবহিত পরপরই এক অনুষ্ঠানে বলেন, “কিছু আইনজীবী আছেন-যারা কিন্তু গ্রাম-গঞ্জের মানুষকে সবসময় ইন্ধন দেন বা উসকানি দেন-যে এটা হয়েছে, একটি মামলা টুকে দেন।” যা বিগত ২৬.০২.২০২১ তারিখের দৈনিক আজাদীর ২য় পৃষ্ঠার ১ম কলামে ছাপানো হয়। এ ধরণের দায়িত্বজ্ঞানহীন মানহানিকর বক্তব্য দেওয়ায় সমিতির পক্ষ থেকে প্রতিবাদ জানানো হয়েছিল।
ঘ) সিডিএ কর্তৃক বিগত ১৭.০৮.২০২১ তারিখের প্রেরিত পত্রে স্পষ্টই উল্লেখ রয়েছে যে, কোর্ট হিল এলাকায় অনুমোদহীন স্থাপনাগুলো থেকে জেলা প্রশাসন কর্তৃক ভাড়া উত্তোলন করা হয়। কোর্ট হিল রোডে অসংখ্য দোকান-পাট, হকার থেকে জেলা প্রশাসন দৈনিক ভিত্তিতে ভাড়া উত্তোলন করে। পরীর পাহাড়ের ঢালুতে জেলা প্রশাসনের অনেক কাচা-পাকা ভাড়া ঘর রয়েছে, যেগুলো থেকে মাসিক ভিত্তিতে ভাড়া উত্তোলন করা হয়। এই সব অবৈধ ও অনুমোদনহীন স্থাপনাসমূহ উচ্ছেদের ব্যবস্থা না নিয়ে জেলা প্রশাসন সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির স্থাপনাসমূহ নিয়ে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে পত্র প্রেরণ করে মিথ্যাচার করে আসছে। যা মানহানির পর্যায়ে পড়ে।
ঙ) পুরাতন আদালত ভবনের জেলা প্রশাসক ও বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সম্মুখে ইতিপূর্বে জেলা প্রশাসন থেকে পার্কিং নির্মাণের জন্য ইটের গাথুনি দিয়ে দেওয়াল নির্মাণ কাজ শুরু করা হলে সমিতির পক্ষ থেকে বাধা দেওয়া হয়।  

 

 

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল


রিটেলেড নিউজ

জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে গঠিত জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিক... বিস্তারিত

চকবাজারে উপনির্বাচন, ভোটার নেই

চকবাজারে উপনির্বাচন, ভোটার নেই

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চসিক ১৬ নম্বর চকবাজার ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিব... বিস্তারিত

"শেখ হাসিনা দিন বদলের নেত্রী" বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের উপাচার্য বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী ড.অনুপম স... বিস্তারিত

আহত শাহাদাতের চিকিৎসার জন্য পরিবারের আবেদন

আহত শাহাদাতের চিকিৎসার জন্য পরিবারের আবেদন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালী থানাধীন বাংলাদেশ ব্যাংকের সীমানা প্রাচীর ভেঙে গুরু... বিস্তারিত

ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলা কমিটি অনুমোদন

ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলা কমিটি অনুমোদন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) পেশাজীবী সহযোগী সংগঠন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার... বিস্তারিত

ডেঙ্গু দুর্যোগ প্রতিরোধে সরকারের সাথে সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন: রোগী কল্যাণ সোসাইটি

ডেঙ্গু দুর্যোগ প্রতিরোধে সরকারের সাথে সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন: রোগী কল্যাণ সোসাইটি

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: করোনা ভাইরাস মহামারী আকার ধারন করার পর বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাত নিয়ে সাধারণ জ... বিস্তারিত

সর্বশেষ

শিশুদের ইচ্ছে পূরণে লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং পারিজাত এলিট

শিশুদের ইচ্ছে পূরণে লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং পারিজাত এলিট

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: আজ ২৪ অক্টোবর জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং পারিজাত এলিটের উদ্... বিস্তারিত

পাপনের মাটির ব্যাংকে জমানো টাকা দিয়ে টেউ টিন বিতরণ

পাপনের মাটির ব্যাংকে জমানো টাকা দিয়ে টেউ টিন বিতরণ

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: পাপনের জমানো টাকায় অসহায়ের ঘরে মিলল টেউটিন পড়ালেখা শেষ করে অসহায় মানুষের সেবা ... বিস্তারিত

এডভোকেট মুহাম্মদ ইউনুছের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী সোমবার

এডভোকেট মুহাম্মদ ইউনুছের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী সোমবার

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সদস্য এডভোকেট মুহাম্মদ ইউনুছের প্রথম মৃত... বিস্তারিত

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ মাদরাসা কর্তৃপক্ষের

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ মাদরাসা কর্তৃপক্ষের

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: বুধবার (২০ অক্টোবর) গণকন্ঠ নামক একটি দৈনিকের শেষ পৃষ্ঠায় ‘কবরস্থানের উপর ঘর ও ... বিস্তারিত