সাংবাদিক আবুল কালাম সামশুদ্দিন একজন অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব

newsgarden24.com    ০৩:১৫ পিএম, ২০২১-০৭-১২    239


সাংবাদিক আবুল কালাম সামশুদ্দিন একজন অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব

কামরুল হুদা: সাংবাদিক, গবেষক, সমসাময়িক বিশ্লেষক এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব আবুল কালাম সামশুদ্দিন বাংলাদেশে সাংবাদিকতা ও উন্নয়ন যোগাযোগের বিদ্যায়তনিক প্রসারে একজন পাইওনিয়ার। বিশেষ করে মিডিয়া সবাইকে নিয়ে আলোচনা করে, সেই মিডিয়া নিয়েও যে প্রচুর আলোচনা হতে পারে এবং তা সারাদেশে ছড়িয়ে দেওয়া যায়, সেটা উনি প্রমাণ করেছেন। আবুল কালাম সামশুদ্দিন একদিকে পেশাদার সাংবাদিক, অন্যদিকে দক্ষ প্রশাসকও ছিলেন। তিনি ছিলেন সদ্য হাস্যোজ্জ্বল, সৎ, নীতিবান এবং কাজ পাগল মানুষ। তার দেখানো পথ অনুসরণীয়। আবার তিনি এতটাই নিখুঁত, সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতেন যে, আবুল কালাম সামশুদ্দিনকে প্রকৃত অর্থেই অনুসরণ করা সম্ভব কি না সে বিষয়ে সন্দেহ রয়েছে।
আবুল কালাম সামশুদ্দিন ছিলেন সকলের বন্ধু। তার মতো বন্ধু তৈরি করার ক্ষমতা খুব কম মানুষেরই আছে। তিনি একাধারে সাংবাদিক নেতা ও কর্মী ছিলেন। তিনি দুর্দিনে সময়ের বন্ধুদের কথা সবসময়েই মনে রেখেছেন। তিনি এমন একজন মানুষ ছিলেন যে তার দুঃখ-কষ্ট সহজে প্রকাশ পেত না কিন্তু আনন্দের বিষয়গুলো তিনি সবার সঙ্গে ভাগ করতেন। আবুল কালাম সামশুদ্দিন এমন একজন মানুষ ছিলেন যে তিনি কঠিন কথা সহজে বলতে পারতেন। তিনি ছিলেন বটবৃক্ষের মতো, যার ছায়াতলে এলে মন ভালো হয়ে যেত। তিনি সবসময়েই ইতিবাচক চিন্তা করতেন। আবুল কালাম সামশুদ্দিন গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য কল্যাণ কামনা করতো। ভালো মানুষ না হলে এমন কাজ করা যায় না। তিনি সবসময়েই কমিউনিটির স্বার্থের কথা ভাবতেন। আবুল কালাম সামশুদ্দিন গণমাধ্যমের সবগুলো শাখায় স্বচ্ছন্দে বিচরণ ছিল। তিনি অনেক সাংবাদিক তৈরি করেছেন। তিনি সফল সাংবাদিক ও প্রশাসক ছিলেন।
আবুল কালাম সামশুদ্দিন কখনো ক্ষোভ লালন করতেন না। তিনি কখনো কারও সঙ্গে কড়া ভাষায় কথা বলেননি। আমরা দুইজন একসঙ্গে কাজ করেছি, সাংবাদিক ইউনিয়ন করেছি। আমি দেখেছি যে অন্যরা তার বিরুদ্ধে বললেও তিনি কখনোই কারো বিরুদ্ধে কারো পেছনে কথা বলতেন না।
আবুল কালাম সামশুদ্দিন ছিলেন একই সঙ্গে সৎ, নিষ্ঠাবান, পরোপকারী, দক্ষ এবং তার মধ্যে মানুষের সকল গুণাবলিই উপস্থিত ছিল। তাই আমার মনে হয়, তিনি একজন অনুকরণীয় মানুষ। কেননা তাকে অনুসরণ করা চাট্টিখানি কথা না। তিনি ছিলেন সিদ্ধার্থ পুরুষ।’
আবুল কালাম সামশুদ্দিন কখনো আদর্শ থেকে বিচ্যুত হননি। তাকে নিয়ে আমরা যত উচ্চ প্রশংসা করি না কেন তা অতিকথন হবে না। হাসিমুখ ছাড়া তাকে কল্পনায় করা যায় না।
বাংলাদেশের গণমাধ্যম সঙ্গত কারণেই উনার অভাববোধ করবে। প্রয়াত আবুল কালাম সামশুদ্দিন রাজনৈতিক মতাদর্শের ওপরে উঠে বাংলাদেশে সাংবাদিকতার চর্চার ক্ষেত্রে অনুকরণীয় এবং দৃষ্টান্ত। দেশে সাংবাদিকতার শিক্ষা প্রসারে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয়। দেশের গণমাধ্যম শিক্ষা এবং সাংবাদিকতার বিকাশে তাঁর অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তাঁর মৃত্যুতে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতা ক্ষেত্রে যে অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল, তা পূরণ হওয়ার নয়। ২০১৩ সালের ১ জুলাই তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।
সাংবাদিক ও দোহাজারী ইউনিয় পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম আবুল কালাম সামশুদ্দীন সাহেবের ধন সম্পত্তির চাইতে বেশী ঝোঁক ছিল সাংবাদিকতার, রাজনীতি, সমাজনীতি ও সাহিত্যের প্রতি। ছিলেন আধুনিক মনের মানুষ। নিজে একজন বিদ্যানুরাগী ব্যক্তিত্ব ছিলেন বিধায় তাঁর সন্তানদের আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। তাঁর এই আকাঙ্ক্ষা অসম্পূর্ণ থাকেনি। তাঁর উত্তরাধিকারদের মধ্যে তিনি জ্বালিয়ে দিতে পেরেছিলেন শিক্ষার আলো। এক কথায় তিনি ছিলেন একজন সাত্ত্বিক পুরুষ।
অন্যের বিপদে গিয়ে সবার আগে দাঁড়ায় যে লোক, আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন, তিনি একজন সাংবাদিক। আপনি উঠতে-বসতে যতই গালাগাল দেন না কেন, আপনার সবশেষ ভরসার নাম গণমাধ্যম। কিন্তু সেই গণমাধ্যম যখন সংকটে পড়ে, সেই গণমাধ্যমকর্মী যখন বেতন না হওয়ার ফলে বাজার করতে পারেন না, ছোট সন্তানের জন্য দুধ কিনতে পারেন না, অসুস্থ বাবাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা করাতে পারেন না, তখন তাদের সেই মানবাধিকার লঙ্ঘনের গল্পগুলো তার ব্যক্তিগত জীবনের ডায়েরিতে অপ্রকাশিত থেকে যায়। কারণ, তার এই গল্প কেউ ছাপে না।
সাংবাদিকের মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদে কেউ রাস্তায় নামে না। আবার তার নিজের যেহেতু আত্মসম্মানবোধ অনেক বেশি, যেহেতু সে মন্ত্রীকেও ভাই বলে, যেহেতু সে সচিবের কক্ষে বিনা অনুমতিতে ঢুকে যায়, যেহেতু সে পুলিশ কমিশনারকে ফোন করলে সঙ্গে সঙ্গে রেসপন্স পায়, যেহেতু সে হাসপাতালের পরিচালককে ফোন করলেই কেবিনের ব্যবস্থা হয়ে যায়। ফলে সে তার নিজের জীবনের সংকটের গল্পটি ইস্ত্রি করা পোশাকের আড়ালে লুকিয়ে রাখেন।
কারণ, দেশের শীর্ষ রাজনীতিবিদরা তাকে দেখলে আগ বাড়িয়ে কথা বলেন। কাঁধে হাত দিয়ে পরিবারের খবর নেন। কিন্তু মাস ধরে যে তার বেতন হচ্ছে না এবং তিনি যে সন্তানের দুধ কিনতে পারেননি, সেই খবর নেওয়ার কেউ নেই। ফলে অপেক্ষার প্রহর গুনতে গুনতে দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার পর তাকে সিঁড়িতে বসে যেতে হয় দাবি আদায়ের জন্য।
দেশের গণমাধ্যমের এই সংকট নতুন কিছু নয়। এ মুহূর্তে কিছু কিছু সংবাদমাধ্যমের একই অবস্থা। মাসের পর মাস বেতন হয় না। এরমধ্যে অনেক নামিদামি টেলিভিশনের নামও শোনা যায়।  এসব প্রতিষ্ঠানের কর্মীদেরও ওই একই আক্ষেপ যে, ভালোবেসে সাংবাদিকতায় আসাটাই ছিল জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল সিদ্ধান্ত। আবার যেসব প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত বেতন-বোনাস-ইনক্রিমেন্ট হয়, তারও অনেক জায়গায় জব সিকিউরিটি বা চাকরির নিশ্চয়তা বলে কিছু নেই। যেকোনও সময় যে কারও চাকরি চলে যেতে পারে। জুনিয়র থাকা অবস্থায় চাকরি পাওয়ার মোটামুটি নিশ্চয়তা থাকলেও সিনিয়রদের বিপদ বেশি। বড় পদ আর বেশি বেতনে লোক নিতে চাওয়ার আগ্রহ অনেক গণমাধ্যমেই কম থাকে। অধিকাংশই এখন ফ্রেশার খোঁজেন। আমরা অনেক সময় রসিকতা করে বলি, ফ্রেশার নিউজ এডিটর, ফ্রেশার সিএনই, ফ্রেশার ইডি নেওয়া যেতে পারে। কারণ, ফ্রেশারদের দিয়েই যেহেতু সব কাজ হয়ে যাচ্ছে, খামোখা অভিজ্ঞদের বেশি বেতন আর বড় পদ দিয়ে লাভ কী?
বাংলাদেশের সাংবাদিকতায় নীতিহীনতা প্রবলভাবে জেঁকে বসেছে৷ এটা যতটা না অদক্ষতার কারণে, তার চেয়ে বেশি স্বার্থ, সুযোগ-সুবিধা ও আর্থিক লাভের কারণে হয়েছে৷ আমি বলবো না সবাই, তবে বড় এক গ্রুপ সিনিয়র সাংবাদিক নিজেদের স্বার্থে সংবাদমাধ্যমকে ব্যবহার করছেন৷ একদিকে তারা এটা করে রাজনৈতিক সুবিধা নিচ্ছেন, অন্যদিকে মালিকের ব্যক্তিগত স্বার্থে কাজ করে পদ টিকিয়ে রাখছেন৷ আমি বলবো, এই দালাল সাংবাদিকরা সাংবাদিকতার নৈতিক বিচ্যুতির জন্য দায়ী৷
কিন্তু আবুল কালাম সামশুদ্দিন এসব কিছুর ব্যতিক্রম ছিল বলেই তিনি দেশ, জাতি, মানুষ ও এলাকাকে এত বেশি ভালবাসতেন। নিজের জন্য কিছু না করে দেশ ও জাতির জন্য সব উজাড় করে দিয়ে নিজের জীবন বিপন্ন করেছেন। তাই এই সৎ সাংবাদিককে আজ আমরা স্মরণ করছি শ্রদ্ধাভরে। কিন্তু আজ আবুল কালাম সামশুদ্দিন আমাদের মাঝে নেই। আজ তার মত সাংবাদিকদের বড় অভাব। প্রায় জনই আজ সাংবাদিকতার আড়ালে মানুষকে জিম্মি করে অনৈতিক কাজ করে যাচ্ছে। এগুলো আজ সমাজ ও জীবনে এক অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। এ জন্য ন্যায় ও ইনসাফ ভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থা কায়েম করার জন্য আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে নতুবা সমাজ জীবনে নেমে আসবে অশান্তির কালোমেঘ। সাংবাদিক আবুল কালাম সামশুদ্দিন সাংবাদিকতা করে যে শিক্ষা দিয়ে গেছেন তা আমাদের জন্য পাথেয়। তা অনুসরণের বিকল্প নেই।

 

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল


রিটেলেড নিউজ

“দুর্নীতি-দুঃশাসন অবলম্বন করতে মিডিয়াকে প্রতিপক্ষ মনে করেছে সরকার”

“দুর্নীতি-দুঃশাসন অবলম্বন করতে মিডিয়াকে প্রতিপক্ষ মনে করেছে সরকার”

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রামের সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের পেশাজীবী সমাবেশ থেকে বিএফইউজে সাবেক সভাপত... বিস্তারিত

সাংবাদিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন গাজীর মুক্তির দাবিতে স্মারকলিপি

সাংবাদিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন গাজীর মুক্তির দাবিতে স্মারকলিপি

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: বিএফইউজের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন গাজীর মুক্তির দাবিতে কুষ্... বিস্তারিত

চট্টগ্রামের প্রবীণ সাংবাদিক কাজী রশীদ উদ্দিন’র ইন্তেকাল

চট্টগ্রামের প্রবীণ সাংবাদিক কাজী রশীদ উদ্দিন’র ইন্তেকাল

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রামের প্রবীণ সাংবাদিক কাজী রশীদ উদ্দিন ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্না লিল্লাহ... বিস্তারিত

চিত্রসাংবাদিক দিদারুল আলমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ ফটোজার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের শোক প্রকাশ

চিত্রসাংবাদিক দিদারুল আলমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ ফটোজার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের শোক প্রকাশ

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রতিদিনের ফটোসাংবাদিক, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সদস্য দিদারুল আলমে... বিস্তারিত

কর্ণফুলী প্রেসক্লাবের পুর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত

কর্ণফুলী প্রেসক্লাবের পুর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: কর্ণফুলী উপজেলায় কর্মরত প্রিন্ট মিডিয়া, ইলেকট্রিক মিডিয়া ও অনলাইন পোর্টালের স... বিস্তারিত

চট্টলা ২৪ এর মালিকানা সংক্রান্ত বিষয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানোর প্রতিবাদ

চট্টলা ২৪ এর মালিকানা সংক্রান্ত বিষয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানোর প্রতিবাদ

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: সাম্প্রতিক সময়ে দেশের দুটি জাতীয় পত্রিকায় চট্টলা২৪ এর মালিকানা সংক্রান্ত্র ব... বিস্তারিত

সর্বশেষ

চট্টগ্রামে করেনায় মৃত্যু ১, শনাক্ত ৪৮

চট্টগ্রামে করেনায় মৃত্যু ১, শনাক্ত ৪৮

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় করেনায় মৃত্যু বরণ করেছে ১ জন। করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছ... বিস্তারিত

কাজী ইনামুল হক দানুর মৃত্যুবার্ষিকীতে নগর যুবলীগের শ্রদ্ধা

কাজী ইনামুল হক দানুর মৃত্যুবার্ষিকীতে নগর যুবলীগের শ্রদ্ধা

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী ইনা... বিস্তারিত

কর্ণফুলীতে মাদরাসার দুই শিক্ষার্থী নিখোঁজ!

কর্ণফুলীতে মাদরাসার দুই শিক্ষার্থী নিখোঁজ!

newsgarden24.com

মোহাম্মদ এয়াকুব, কর্ণফুলী: চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলা শাহমীরপুর ফকিরনীর হাট রাস্তার মাথা দারুল ... বিস্তারিত

সাতকানিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা ভাতা উত্তোলন করেন ২৮৬

সাতকানিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা ভাতা উত্তোলন করেন ২৮৬

newsgarden24.com

এম এম রাজা মিয়া রাজু: সাতকানিয়ায় বর্তমানে ২শত ৮৬জন ভাতা ভোগী মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন। তারা সরকারী বিধ... বিস্তারিত