ঈদুল ফিতর’কে সামনে রেখে পোশাক শিল্পের সার্বিক পরিস্থিতি বিষয়ক বিজিএমইএ’র সংবাদ সম্মেলন 

newsgarden24.com    ০৬:২০ পিএম, ২০২১-০৫-১২    96


ঈদুল ফিতর’কে সামনে রেখে পোশাক শিল্পের সার্বিক পরিস্থিতি বিষয়ক বিজিএমইএ’র সংবাদ সম্মেলন 

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: ঈদুল ফিতর’কে সামনে রেখে পোশাক শিল্পের সার্বিক পরিস্থিতি বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ)। রপ্তানিমুখী পোশাক শিল্পের শ্রম পরিস্থিতিসহ সার্বিক পরিস্থিতি জানান বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান। বুধবার (১২ মে) বিজিএমইএ ভবনে ঈদুল ফিতর’কে সামনে রেখে পোশাক শিল্পের সার্বিক পরিস্থিতি বিষয়ক বিজিএমইএ’র সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।  
তিনি জানেন, সমগ্র পৃথিবী এখন করোনা অতিমারির এক চরম ক্রান্তিলগ্ন অতিক্রম করছে, যার প্রভাব থেকে আমরাও রেহাই পাইনি। গত অর্থবছরে রপ্তানী নজিরবিহীনভাবে ১৮% কমে যাওয়ার পর চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে রপ্তানী আরও ৮.৭২% কমেছে। বিশেষকরে ওভেন খাতে রপ্তানী সংকট চরমে পৌঁছেছে। চলতি অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল সময়ে ওভেন পোশাক রপ্তানী কমেছে ১৬.৬৪%, যা শুধুমাত্র মার্চ মাসেই কমেছে ২৪.৭০%, আর এপ্রিলে কমেছে ৬.৩৭% (২০১৮-১৯ অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায়)। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিজ্ঞ নেতৃত্ব ও দিক নির্দেশনার ফলে আমরা একটি সমূহ বিপর্যয় এড়াতে সক্ষম হয়েছি, আর শত প্রতিকূলতা ও ঝুঁকির মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিল্পের চাকা সচল রাখতে পেরেছি। ফলে অর্থনীতিতেও বড় ধরনের বিপর্যয় এড়ানো সম্ভব হয়েছে। 

তবে করোনার আঘাতে শিল্পে যে ক্ষতি ও ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে, তা মোকাবেলা করে কারখানাগুলো বর্তমানে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার সংগ্রামে লিপ্ত রয়েছে। ২০২০ সালের এপ্রিলের শেষ নাগাদ আমাদের ১১৫০টি সদস্য প্রতিষ্ঠান ৩.১৮ বিলিয়ন ডলারের কার্যাদেশ বাতিল ও স্থগিতের শিকার হয়েছিল। পরবর্তীতে ৯০% বাতিল প্রত্যাহার হলেও মূল্যছাড় ও ডেফার্ড পেমেন্ট মেনে নিতে হয়েছে। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এর পূর্ব থেকেই পোশাকের দরপতন শুরু হতে থাকে, যা করোনার পরে তীব্র আকার ধারন করে। গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে আমাদের পোশাকের দরপতন ৪.৫%- ৫% হারে  অব্যাহত আছ্। তৈরি পোশাক শিল্পের আন্তর্জাতিক অনেক ক্রেতা ও ব্রান্ড ক্রয়াদেশ এর বিপরীতে মূল্য পরিশোধ করেনি, অনেকে আবার দেউলিয়া হয়ে গেছে। ফলে অনেক কারখানা আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, অনেকে তাদের জাহাজীকৃত পণ্য অথবা স্টকের মূল্য পায়নি, কিন্তু বাধ্য হয়ে কাঁচামালবাবদ খোলা ব্যাক টু ব্যাক এলসি এর দায় মিটাতে ঋড়ৎপবফ ষড়ধহ এর শিকার হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা পরিচালনা করতে গিয়ে একদিকে যেমন খরচ বেড়েছে, অপরদিকে আমরা কারখানার ক্যাপাসিটি পরিমিত ব্যবহার করতে পারছি না। ক্রেতাদের ংড়ঁৎপরহম ঢ়ধঃঃবৎহ এ পরিবর্তন এসেছে, তারা কম পরিমানে এবং ংযড়ৎঃবৎ ষবধফ ঃরসব এ অর্ডার দিচ্ছেন। সেই সাথে তুলা ও সুতার মূল্য আন্তর্জাতিকভাবে বেড়েছে, কনটেইনার ফ্রেইট কস্ট বেড়েছে। এই পরিস্থিতিতে শুধুমাত্র কারখানা চালু রাখার জন্য ও বাজার ধরে রাখতে আমাদের কারখানাগুলো ইৎবধশ বাবহ এর চেয়ে কম মূল্যে অর্ডার নিচ্ছে এবং চরম আর্থিক ও পধংয ভষড়ি সংকটের মধ্যে ব্যবসা পরিচালনা করছে।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান জানান, কোভিড-১৯  মহামারির ফলে সৃষ্ট সংকট থেকে শিল্প যখন ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করছিল ঠিক তখনই করোনা’র দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানতে শুরু করে। তবে অত্যন্ত কঠোর নজরদারীর মাধ্যমে আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে শৃঙ্খলাবদ্ধভাবে এখন পর্যন্ত সফলভাবে উৎপাদন কাজ পরিচালনা করতে সক্ষম হয়েছি। তবে উদ্বেগ এখনও কাটেনি। করোনা পরিস্থিতি থেকে আমাদের রপ্তানী বাজারগুলো বর্তমানে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে, তাই এই সময়টি আমাদের শিল্প ও রপ্তানী ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। এরকম একটি সময়ে আমাদের যেকোন ভুলের কারনে শিল্প ও অর্থনীতিতে বিপর্যয় ঘটে যেতে পারে। 
আপনারা জানেন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার চলমান লকডাউন আগামী ১৬ মে পর্যন্ত বাড়িয়েছে। পাশাপাশি আসন্ন ঊদুল ফিতর উপলক্ষ্যে সব সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে তিন দিনের ছুটি ও কর্মস্থলে অবস্থান করার  সরকার নির্দেশনা জারি করেছে।  দেশবাসীর সুস্বাস্থ্য ও সর্বাঙ্গীন মঙ্গলের স্বার্থে সরকারের এই নির্দেশনাকে স্বাগত জানিয়েছি। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরাও প্রতিনিয়ত সতর্ক করে যাচ্ছেন যেন আমরা সবাই ঘরে থাকি এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, যাতে করে করোনার বিরুদ্ধে আমাদের এতদিনের সফলতা নষ্ট না হয়, সংক্রমন যেন শহর থেকে গ্রাম বা গ্রাম থেকে শহরে ছড়িয়ে না পড়ে। সেই বিষয়টি বিবেচনায় রেখে আমরা আমাদের সদস্য কারখানাগুলোকে সরকারী নির্দেশনা মেনে চলতে অনুরোধ করেছি।

তবে আমরা দুঃখের সাথে লক্ষ্য করেছি যে, ছুটি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে কিছু কারখানায় বিচ্ছিন্নভাবে শ্রম অসন্তোষ ঘটেছে, যা দুঃখজনক। শ্রমিক ভাইবোনেরা উৎসবমুখর পরিবেশে পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ উদযাপনের জন্য গ্রামের বাড়িতে যেতে চাইবেন, এটাই স্বাভাবিক। এ ব্যাপারে আমাদের উদ্যোক্তাদেরও দ্বিমত নেই, যা অতীতের ঈদগুলোতে আপনারা দেখেছেন। কিন্তু এবারের বাস্তবতা ভিন্ন। এখানে আমি শ্রমিকদের ছুটির বিষয়টি বাংলাদেশ শ্রম আইনের আলোকে সবার বুঝার সুবিধার জন্য সংক্ষেপে তুলে ধরতে চাইঃ-

বাংলাদেশ শ্রম আইন অনুযায়ী বছরে সর্বমোট উৎসব ছুটি ১১ দিন, ক্যাজুয়াল লিভ ১০ দিন, অসুস্থতা ছুটি বা ঝরপশ খবধাব ১৪ দিন এবং অর্জিত ছুটি বা বধৎহবফ ষবধাব দেয়া হয় প্রতি ১৮ দিন কাজে উপস্থিত হওয়ার জন্য ১ দিন, অর্থাৎ বছরে সর্বোচ্চ বধৎহবফ ষবধাব হল ১৬-১৮ দিন।

শ্রম আইন ২০০৬ (সংশোধনী-২০১৮) এর ১০৪ ধারায় উল্লেখ আছে যে, “তবে শর্ত থাকে যে, শ্রমিকগণ ইচ্ছা প্রকাশ করিলে যৌথ দরকষাকষি প্রতিনিধি বা অংশগ্রহনকারী কমিটির সহিত আলোচনা সাপেক্ষে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কাজ করিয়া পরে উক্ত সাপ্তাহিক ছুটি উৎসব-ছুটির সঙ্গে যোগ করিয়া ভোগ করিতে পারিবে এবং এইরূপ ক্ষেত্রে সাপ্তাহিক ছুটির দিনের কাজের জন্য কোন অধিকাল ভাতা প্রদেয় হইবে না।” অর্থাৎ উৎসব ছুটির আগে অথবা পরে সমন্বয় করে প্রতি ঈদে ৩ দিন সরকারী ছুটি সহ কারখানা ভেদে মোট ৪ থেকে ৮ দিন পর্যন্ত ছুটি দেয়া হয়। এক্ষেত্রে কারখানার চধৎঃরপরঢ়ধঃরড়হ ঈড়সসরঃঃবব তে অংশগ্রহনকারী শ্রমিক প্রতিনিধিদের সাথে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে স্ব-স্ব কারখানা তাদের শ্রমিকের ছুটির পরিকল্পনাটি নির্ধারণ করে। 

আজকের এ প্রেস ব্রিফিং এর মাধ্যমে শ্রমিক ভাইবোনদের প্রতি আমাদের একান্ত অনুরোধ, ছুটি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে যেকোন প্রকার বিভ্রান্তি ও বিশৃঙ্খলা এড়িয়ে চলুন। এবারের ঈদে আপনারা গ্রামে যাওয়া থেকে বিরত থেকে কর্মস্থলের কাছাকাছি অবস্থান করে  ঈদ উদযাপন করুন। আপনাদের এই ত্যাগ স্বীকারের মাধ্যমে রক্ষা পাবে আমাদের সকলের জীবন ও জীবিকা।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান জানান, শত সীমাদ্ধতা সত্বেও উদ্যোক্তারা চেষ্টা করেছেন ঈদের পূর্বে শ্রমিক ভাইবোনদের বেতন-ভাতাদি পরিশোধ করে ঈদের আনন্দ তাদের সাথে ভাগ করে নিতে। আমি উদ্যোক্তাদের ধন্যবাদ জানাই এজন্য যে এ ব্যাপারে তারা তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। ঈদের আগে শ্রমিকরা যাতে সুষ্ঠভাবে বেতন ভাতাদি পায়, সে লক্ষ্যে সরকারের সাথে মিলে আমরা অগ্রীম প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করেছি। এর আওতায় বৃহত্তর ঢাকাকে মোট ১১টি জোনে ভাগ করে মোট ১১টি আঞ্চলিক/ জোনভিত্তিক কমিটি গঠন করেছি। প্রতি বছরের মতো এবারও ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে ঢাকাস্থ বিজিএমইএ কার্যালয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে ক্রাইসিস কন্ট্রোল রূম খোলা হয়েছে। এর বাইরে সরকার গঠিত আঞ্চলিক ক্রাইসিস কমিটি কাজ করে যাচ্ছে, যেখানে সংসদ সদস্য, শ্রম মন্ত্রনালয়, বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং শ্রমিক নেতৃবৃন্দ রয়েছেন। 
এক নজরে পোশাক শিল্পে বেতন-ভাতা প্রদানের চিত্রঃ
ক্স    বিজিএমইএ এর চলমান কারখানার সংখ্যা : ১৯১৩টি কারখানা (ঢাকায় ১৬৬৭টি ও চট্রগ্রামে ২৪৬টি কারখানা)
ক্স    গতকাল ১১ মে পর্যন্ত এপ্রিল মাসের বেতন প্রদান করা হয়েছে ১৮৬৬ (৯৭.৫৪%) কারখানায়। এর মধ্যে ঢাকার কারখানার সংখ্যা ১৬৫২ এবং চট্রগ্রামের কারখানার সংখ্যা ২১৪।
ক্স    গতকাল ১১ মে পর্যন্ত বোনাস প্রদান করা হয়েছে: ১৮৮২টি কারখানায় (৯৯%)
(ঢাকা ১৬৫৯, চট্রগ্রাম ২২৩)
ক্স    ঢাকায় এপ্রিল মাসের বেতন ১৫টি এবং বোনাস ৮টি কারখানা আজকে পরিশোধ করছে।
চট্রগ্রামে এপ্রিল মাসের বেতন ৩২টি এবং বোনাস ২৩টি কারখানা আজকে পরিশোধ করছে।
ক্স    ঢাকায় প্রায় ৮০০টি কারখানাকে ক্লেজ মনিটরিং এর আওতায় এনে ৪৪টি কারখানায় বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে  শ্রমিকদের বেতন বোনাস পরিশোধ নিশ্চিত করা হয়েছে।

আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই এজন্য যে, গার্মেন্টস শিল্পে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখা ও শ্রমিকদের কল্যান নিশ্চিত করার জন্য গার্মেন্টস মালিকরা যাতে ঠিক সময়ে ব্যাংকের সহযোগিতা পেতে পারেন, সে ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন। আমরা কৃতজ্ঞ যে, সংশ্লিষ্ট সিডিউল ব্যাংকগুলো পর্যাপ্ত সহযোগিতা দিয়েছেন। 

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান জানান, করোনার কারনে গত দেড় বছরে রপ্তানী বাড়েনি, উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ হয়নি, নতুন কর্মসংস্থানও সৃষ্টি হয়নি বললেই চলে। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী প্রনোদনা প্যাকেজ প্রদান না করলে শিল্পকে টিকিয়ে রাখা সহজ হতো না।  তবে আগামী দিনে আমাদের ক্ষতি পুষিয়ে প্রতিযোগী সক্ষমতা ধরে রেখে শিল্পে টিকে থাকা, কর্মসংস্থান ধরে রাখা ও অর্থনীতিতে এই শিল্পের অবদান অব্যাহত রাখতে সরকারের নীতি সহায়তা ও সমর্থন অব্যাহত থাকবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। বিশেষকরে আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে আমাদের কিছু প্রস্তাবনা আপনাদের নিকট তুলে ধরছিঃ 

১। শ্রমিকের বেতন ভাতা পরিশোধের জন্য প্রদত্ত প্রণোদনা  প্যাকেজের  আওতায় ঋণ পরিশোধের  সময়সীমা পুনরায় বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। ২ বছরে ১৮ টি কিস্তির পরিবর্তে ৩ বছরে ৩০টি কিস্তির মাধ্যমে পরিশোধের সুযোগ প্রদানের জন্য অনুরোধ করেছি। 

২। রপ্তানীমূখী তৈরী পোশাক শিল্পের জন্য রপ্তানীর বিপরীতে প্রযোজ্য উৎসে কর ০.৫০% থেকে হ্রাস করে ০.২৫% করা এবং তা আগামী ৫ বছর পর্যন্ত কার্যকর রাখা।
৩। ব্যবসায় টিকে থাকতে এই মুহুর্তে প্রয়োজন চড়ষরপু ঝঃধনরষরঃু, যেন উদ্যোক্তারা দীর্ঘ মেয়াদে পরিকল্পনা নিয়ে বিনিয়োগ করতে পারেন। সেই লক্ষ্যে তৈরী পোশাক শিল্পের জন্য কর্পোরেট ট্যাক্স হার ১২% এবং গ্রীন কারখানার জন্য ১০% আগামী ৫ বছর পর্যন্ত অপরিবর্তিত  রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি।

৪। ক্ষতিগ্রস্ত তৈরি পোশাক কারখানা গুলোর সৃষ্ট ব্যাংক এর দায়দেনাকে সুদ মুক্ত ব্লক অ্যাকাউন্টে ১০ বছরের জন্য স্থিতি অবস্থায় রাখার (উক্ত সৃষ্ট দায়-দেনাকে ঝরহমষব ইড়ৎৎড়বিৎ ঊীঢ়ড়ংঁৎব খরসরঃ এর আওতা বহির্ভূত রাখা) নিমিত্তে প্রয়োজনীয় আর্থিক সংশ্লেষ নিরুপন করতঃ এই বাবদ বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ প্রদান। সেই সাথে এ সকল কারখানাকে উৎপাদন/ রপ্তানী কার্যে ফিরিয়ে আনার জন্য ঋণ পুনঃতফসিলিকরন এবং এর মাধ্যমে বর্ধিত মেয়াদে ৫% হারে পুনরায় ঋণ প্রদান।

৫। নগদ সহায়তার উপর আয়কর কর্তনের হার ১০% হতে হ্রাস করে ০% নির্ধারন করা। 

৬। করোনা ভাইরাসের কারণে বিশেষ করে ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্পগুলো ব্যাপক ক্ষতির সন্মুখীন হয়েছে, তাদেরকে উৎপাদনে ফিরিয়ে আনার জন্য বিশেষ সহায়তা তহবিল গঠন করা প্রয়োজন। সেই সাথে ১০ মিলিয়ন ডলার পর্যন্ত রপ্তানীকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্পের প্রনোদনার আওতায় আনার সুপারিশ করেছি, যা বর্তমানে ৫ মিলিয়ন রয়েছে। এর ফলে একটি ব্যাপক সংখ্যক ঝুঁকিপূর্ণ শিল্প প্রতিষ্ঠান সমুহ বিপর্যয় এড়াতে ও ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হবে বলে মনে করি।

৭। বৈশ্বিক ফাইবার চাহিদার বিচারে আমরা অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ কটনের মধ্যে সীমাবদ্ধ আছি। বিগত দশকে আমাদের দেশে নন-কটন, বিশেষত ম্যান-মেড-ফাইবার খাতে কিছু বিনিয়োগ হলেও এসকল বিনিয়োগ মূলত মূলধন এবং টেকনোলজি নির্ভর। আমাদের প্রতিযোগী দেশগুলোতে এই শিল্পের কাঁচামাল ‘পেট্রোক্যামিকেল চিপস’ থাকায় এবং তাদের স্কেল ইকনোমির কারনে তারা প্রতিযোগী সক্ষমতায় অনেক এগিয়ে আছে। এই পরিস্থিতিতে নন-কটন খাতে বিনিয়োগ ও রপ্তানী উৎসাহিত করতে, বিশেষকরে প্রতিযোগী সক্ষমতা ধরে রাখতে নন-কটন পোশাক রপ্তানীর উপর ১০% হারে বিশেষ প্রনোদনা প্রদানের জন্য অনুরোধ করছি।

৮। কোভিড-১৯ এর ফলে বিশেষকরে নতুন বাজারগুলো অর্থনৈতিকভাবে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এসমস্ত বাজারে রপ্তানী কমে আসছে। তাই নতুন এবং অপ্রচলিত বাজারে রপ্তানী ধরে রাখতে প্রণোদনার হার ৪% থেকে বৃদ্ধি করে ৫% করার জন্য আবেদন করছি, যা বর্তমান সময়ে আমাদের বাজার টিকিয়ে রাখতে সহায়তা করবে।

এছাড়াও আরও বেশকিছু প্রস্তাব আমরা পেশ করেছি, সময় স্বল্পতার কারনে তা সবগুলো এখন উল্লেখ করছি না।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান জানান, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে পোশাকখাতের গুরুত্ব বলার অপেক্ষা রাখে না। রপ্তানী আয়ের ৮৪% বৈদেশিক মুদ্রা আসে তৈরী পোশাক শিল্পের মাধ্যমে, এ শিল্পে ৪৪ লক্ষ  শ্রমিক কর্মরত আছে যার প্রায় ৬০% নারী, পরোক্ষভাবে প্রায় ২ কোটি মানুষের জীবন ও জীবিকা তৈরী পোশাক খাতের উপর নির্ভরশীল এবং ব্যাকওয়ার্ড ও ফরওয়ার্ড শিল্প মিলিয়ে প্রায় ১ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। সর্বোপরি প্রায় ৫ কোটি মানুষ কোন না কোন ভাবে এই শিল্পের উপর তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য নির্ভরশীল। এই শিল্পের সাথে সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির বিভিন্ন ব্যয় ও লেনদেনের মাধ্যমে শিল্প বিকশিত হচ্ছে, যেমন হোটেল, পর্যটন, ব্যাংক, বীমা, প্রসাধনী ইত্যাদি। এসকল খাতের মাধ্যমে সরকারের বিপুল রাজস্ব আসছে। নারীর ক্ষমতায়ন, দারিদ্র বিমোচন, মিলিনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল অর্জন এবং বর্তমানে টেকসই প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে এই শিল্পটি একটি নিরব ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে। জিডিপি’তে এই খাতের অবদান প্রায় ১১%।  তাছাড়াও অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০২৪-২৫ অর্থবছর নাগাদ জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮.৫১% লক্ষ্য নির্ধারন করা হয়েছে যেখানে শিল্পের শেয়ার বর্তমান ৩৫% থেকে ৪২% পর্যন্ত বৃদ্ধি করতে হবে। এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে মূখ্য ভূমিকা পালন করতে পারবে পোশাক শিল্প।

অতএব, এই শিল্পের উত্তরোত্তর বিকাশ, টেকসই উন্নয়ন, আধুনিকায়ন ও দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পৃথিবীতে আমাদের মার্কেট শেয়ার ৬.৮% থেকে আরও বাড়ানোর জন্য এবং এর মাধ্যমে কর্মসংস্থানসহ অর্থনীতির সর্বস্তরে অব্যাহত ভূমিকা পালনের জন্য আপনাদের সকলের সহযোগিতা, উৎসাহ ও সমর্থন আমরা একান্তভাবে কামনা করি।


 

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল


রিটেলেড নিউজ

ঢাকার চক মোগলটুলিতে ইসলামী ব্যাংকের ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন উদ্বোধন

ঢাকার চক মোগলটুলিতে ইসলামী ব্যাংকের ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন উদ্বোধন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড ঢাকার চক মোগলটুলির তাজমহল টাওয়ারে সম্প্রতি ক্... বিস্তারিত

‘চূড়ান্ত বাজেটে তামাকপণ্যের কর ও দাম বৃদ্ধির আহ্বান’

‘চূড়ান্ত বাজেটে তামাকপণ্যের কর ও দাম বৃদ্ধির আহ্বান’

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চূড়ান্ত বাজেটে তামাকপণ্যে সুনির্দিষ্ট করারোপসহ দাম বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছে অ্... বিস্তারিত

পোশাক শিল্পে কাষ্টমস, ভ্যাট ও আয়কর সংক্রান্ত নীতি সহায়তা প্রদানের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে বিজিএমইএ’র অনুরোধ

পোশাক শিল্পে কাষ্টমস, ভ্যাট ও আয়কর সংক্রান্ত নীতি সহায়তা প্রদানের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে বিজিএমইএ’র অনুরোধ

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: পোশাক শিল্পে কাষ্টমস, ভ্যাট ও আয়কর সংক্রান্ত নীতি সহায়তা প্রদানের জন্য জাতীয় র... বিস্তারিত

ডিএসসিসি’কে বিতরণের জন্য ১ লাখ পিস মাস্ক দিয়েছে বিজিএমইএ

ডিএসসিসি’কে বিতরণের জন্য ১ লাখ পিস মাস্ক দিয়েছে বিজিএমইএ

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে সম্মুখ সারির কোভিড-১৯ যোদ্ধাদের মধ্যে বিতরণের জন্... বিস্তারিত

ব্যাংক গভর্ণরের প্রতি চিটাগাং চেম্বার সভাপতির আহবান

ব্যাংক গভর্ণরের প্রতি চিটাগাং চেম্বার সভাপতির আহবান

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের ক্ষেত্রে আমদানি পরবর্তী অর্থায়ন (পোস্ট ইমপোর্ট ফ... বিস্তারিত

যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশ হাই কমিশনার ও বিজিএমইএ সভাপতির মধ্যে আলোচনা

যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশ হাই কমিশনার ও বিজিএমইএ সভাপতির মধ্যে আলোচনা

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: এলডিসি উত্তরণ পরবর্তী পর্যায়ে যুক্তরাজ্যের বাজারে রপ্তানির সুযোগ ও বাজার প্র... বিস্তারিত

সর্বশেষ

পিআইবি’র চেয়ারম্যান নিযুক্ত হলেন চট্টগ্রামের সন্তান সাংবাদিক এনামুল হক চৌধুরী

পিআইবি’র চেয়ারম্যান নিযুক্ত হলেন চট্টগ্রামের সন্তান সাংবাদিক এনামুল হক চৌধুরী

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: দেশের শীর্ষস্থানীয় ইংরেজি পত্রিকা ডেইলি সান’র সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরীকে প্... বিস্তারিত

সাতকানিয়ায় পুত্রবধুর ছুরিকাঘাতে শাশুড়ীর মৃত্যু

সাতকানিয়ায় পুত্রবধুর ছুরিকাঘাতে শাশুড়ীর মৃত্যু

newsgarden24.com

দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: সাতকানিয়া উপজেলার খাগরিয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড মৈশায় পুত্রবধু  নাছ... বিস্তারিত

সাতকানিয়া পৌরসভার নালা নর্দমা পরিস্কার ও পুন:খননের তৎপরতা

সাতকানিয়া পৌরসভার নালা নর্দমা পরিস্কার ও পুন:খননের তৎপরতা

newsgarden24.com

দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: বর্ষাকে সামনে রেখে  পৌর এলাকার নালা নর্দমা পরিস্কার পুনঃখননের  উদ... বিস্তারিত

সাতকানিয়ায় এক ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ৩ পলাতকসহ ৪ আসামী গ্রেপ্তার

সাতকানিয়ায় এক ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ৩ পলাতকসহ ৪ আসামী গ্রেপ্তার

newsgarden24.com

দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: সাতকানিয়া থানার পুলিশের নিয়মিত অভিযানে গত বুধবার রাতে পৃথক পৃথক স্থা... বিস্তারিত