চন্দনাইশে চলছে পাহাড় কাটার মহোৎসব

newsgarden24.com    ০৫:১৩ পিএম, ২০২০-০২-০৭    181


চন্দনাইশে চলছে পাহাড় কাটার মহোৎসব

চন্দনাইশ সংবাদদাতা, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০ ইংরেজী, শুক্রবার: চন্দনাইশের বিভিন্ন পাহাড়ের এবং ধানী জমির টপসয়েল কেটে নিয়ে যাচ্ছে মাটি দস্যুরা। প্রশাসনের নজরে আনলেও নিরব থাকার অভিযোগ রয়েছে যথাযথ কতর্ৃৃপক্ষের বিরুদ্ধে। উপজেলার দোহাজারী জামিজুরী, রায়জোয়ারা, লালুটিয়া, হিমছড়ি, মাস্টারঘোনা, কাঞ্চননগর, তারাবুনিয়া, জঙ্গল হাশিমপুর, ৪১নং লট-এলাহাবাদ, কাঞ্চননগর চা বাগান এলাকায় পাহাড় কাটার মহোৎসব চলছে। তাছাড়া জোয়ারা, সাতবাড়িয়া, হারলা, বরমা, বরকল, চন্দনাইশ ও দোহাজারী পৌরসভা এলাকার ধানী জমি থেকে অবাধে চলছে জমির টপসয়েল তথা জমির উপরের অংশের মাটি।
        সমতল করার নামে পাহাড় কাটা হয়েছে কাঞ্চননগর ও হাশিমপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পের

পাশে।  এতে স্থানীয় চেয়ারম্যানের সাথে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাক-বিতন্ডার কথা বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত হওয়ার পরও পাহাড় কাটা বন্ধ হয়নি।  ফলে ওইসব পাহাড়ের চিহ্নও এখন আর অবশিষ্ট নেই। স্থানীয়রা জানান, এসব পাহাড় কাটায় নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন স্থানীয় রাজনৈতিক দলের পরিচয়ধারী কিছু নেতা ও পাহাড় খেকো সিন্ডিকেট। তারা ইতোমধ্যেই পাহাড়ের মাটি বিক্রি করে লক্ষ লক্ষ টাকার মালিক হয়েছে। এ সকল মাটি দস্যুদের সাথে প্রশাসনের কিছু অসাধু ব্যক্তিদের যোগ-সাজোশ রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ সকল মাটি দস্যুরা নির্দিষ্ট অংকের টাকা বন বিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর, কথিত পরিবেশবাদী সংগঠন, কথিত সাংবাদিক, স্থানীয় চাঁদাবাজসহ প্রশাসনের আরো কয়েকটি দপ্তরের দায়িত্বশীলরা। যার কারণে দিনে ও রাতে প্রকাশ্যে পাহাড় ও ধানী জমির উপরের অংশের (টপসয়েল) মাটি নিয়ে অবৈধ পিকআপ করে নিয়ে যাচ্ছে সড়ক দিয়ে ।  তবে প্রশাসনের দাবি পাহাড় নিধনকারীদের দমনে তারা সোচ্ছার। মামলা দিয়েও তাদের ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। উপরন্তু সরকারি কর্মকর্তা-–কর্মচারীরাও নিজেদের জীবন নিয়ে শঙ্কায় থাকেন। মাটি দস্যুদের রাজত্বে দিশেহারা সাধারণ মানুষ। এসব এলাকার পাহাড়গুলোতে দিন-রাত পিকআপ লাগিয়ে মাটি কেটে নিয়ে যাওয়া হলেও প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্তরা নিরবতা পালন করছেন বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।
           উপজেলার ২ পৌরসভা ও ৮টি ইউনিয়নের হাজার হাজার একর আবাদী জমির উপরিভাগের মাটি (টপসয়েল) নিয়ে যাচ্ছে মাটি দস্যুরা। শীতের শুকনো মৌসুমে প্রতিদিন কোন না কোন স্থানের সম্পূর্ণ আবাদযোগ্য তিন ফসলি জমি থেকে মাটি কেটে নেয়ার এ দৃশ্য চোখে পড়ছে। ফসলি জমির উপরিভাগের উর্বরা মাটিগুলো কেটে নেয়ার ফলে জমিগুলো যেমন উর্বর শক্তি হারাচ্ছে, তেমনি সমতল আবাদি ভূমিগুলো বছরের পর বছর ধরে পানির নিচে ডুবে থাকছে। ফলে দিন দিন কমে যাচ্ছে আবাদী ভূমির পরিমাণ। জমির মালিকদের অসচেতনতা এবং অভাবকে পুঁজি করে একশ্রেণির মাটি দস্যুরা। জমির উপরিভাগের মাটি অতি স্বল্প মূল্যে কিনে নিয়ে যাচ্ছে বিনা বাঁধায়। এরপর মাটি দস্যু চক্রটি উচ্চমূল্যে মাটিগুলো উপজেলার বিভিন্ন ইটভাটায় বিক্রি করে দিচ্ছে। এতে করে ৩ ফসলি জমিগুলো দ্রুত হারিয়ে ফেলছে তার উর্বরতা শক্তি। একইসাথে প্রতিবছর জমির উপরিভাগের মাটি কেটে নিয়ে যাওয়ার কারণে জমি নিচু হয়ে যাওয়ায় আবাদযোগ্যতা হারাচ্ছে। মৃত্তিকা বিজ্ঞানীদের মতে, জমির মূল উর্বরতা শক্তি থাকে জমির উপরিভাগে। উপরিভাগের মাটি কেটে নিয়ে যাওয়ার কারণে জমি যে উর্বরতা শক্তি হারাচ্ছে তা পূরণ হতে কমপক্ষে ১৫ বছরের অধিককাল সময় লাগে।
          জানা গেছে, বর্ষা মৌসুম শেষ হওয়ার সাথে সাথে ফসলি জমিগুলোর মাটি সংগ্রহে নেমে পড়েন বিভিন্ন দালাল চক্র। চন্দনাইশে স্থাপিত ৪০টির অধিক ইটভাটার মালিকদের মধ্যে অনেকে ইট তৈরির মৌসুমের শুরু থেকে দালাল চক্রটিকে লাগিয়ে দেয় আবাদী জমিগুলোর মাটি সংগ্রহে। ইটভাটা ছাড়াও সড়ক নির্মাণ, ভিটে ভরাট, পুকুর ভরাটসহ আরো বিভিন্ন কাজে এসব মাটি উচ্চমুল্যে সরবরাহ করে যাচ্ছে। অনেক সময় আশেপাশের জমির মাটি বিক্রি করে দিলে পার্শ¦বর্তী অন্যদের জমির মাটিও বিক্রি করে দিতে বাধ্য হয়। কারণ বিক্রি করা জমির মাটি কেটে নেয়ার ফলে পাশ্ববর্তী অন্য জমিগুলো উচু হয়ে চাষাবাদের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার সাতবাড়িয়া, যতরকুল, বড়পাড়া এলাকায় প্রভাবশালী একটি মাটিদস্যুরা স্কেভেটর দিয়ে সম্পূর্ণ তিন ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি টপসয়েল কেটে পার্শ্ববর্তী ইটভাটায় সরবরাহ করছে। জমির উপরিভাগ তথা টপসয়েল কাটা প্রসঙ্গে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা স্মৃতি রানী সরকার বলেছেন, সব ধরনের জমিতে উর্বরতা শক্তি থাকে মাটির উপরিভাগের এক মিটারের মধ্যে। এ অংশের মাটি কেটে নেয়ায় জমির সব পুষ্টি উপাদানও চলে যায়। যা পুরণ হতে দীর্ঘ সময় প্রয়োজন হয়। এ বিষয়ে সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিবেদিতা চাকমা বলেছেন, আবাদী জমির টপসয়েল ও পাহাড় কাটার সংবাদ পেলে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে একাধিকবার অভিযান পরিচালনা করে জরিমানা করা হয়েছে। মাটি কাটার কাজে ব্যবহৃত স্কেভেটর ও ডাম্পার অকেজো ও জব্দ করা হয়েছে। পুরোপুরিভাবে মাটি কাটা ও পাহাড় কাটা বন্ধ করা যাচ্ছে না।

 

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল


রিটেলেড নিউজ

এমপি নদভীকে ধর্মমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেখতে চায়

এমপি নদভীকে ধর্মমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেখতে চায়

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রীসহ সকলের আস্থাভাজন ব্যক্তিত্ব, বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার, উদার ও বি... বিস্তারিত

অনেকে শহর ছাড়ছেন!

অনেকে শহর ছাড়ছেন!

newsgarden24.com

আফসানা বেগম: বেতন বন্ধ, বাড়িভাড়াও বকেয়া পড়ছে কয়েক মাসের। করোনার প্রভাবে রাজধানীতে বসবাস করা অনেকে... বিস্তারিত

চট্টগ্রামে কিশোরী ধর্ষণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

চট্টগ্রামে কিশোরী ধর্ষণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: বায়েজিদে ১৬ বছরের কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের দ্রুত বিচার ও ফাসির দাবীতে... বিস্তারিত

তানজানিয়ায় পাথর বিক্রি করে ২৯ কোটি টাকা!

তানজানিয়ায় পাথর বিক্রি করে ২৯ কোটি টাকা!

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: তানজানিয়াট হাতে ক্ষুদ্র খনি ব্যবসায়ী সানিলিউ লাইজার। এক রাতের ব্যবধানে কোটিপ... বিস্তারিত

এপ্রিল, মে ও জুন মাসের বাড়ি ভাড়া মওকুফ করতে প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

এপ্রিল, মে ও জুন মাসের বাড়ি ভাড়া মওকুফ করতে প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: বাংলাদেশ ভাড়াটিয়া কল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এডভোকেট মেসবাহ উদ... বিস্তারিত

ড. হোসেন জিল্লুর রহমানের মা জোহরা বেগম রেখে গেলেন ৬ রতœ

ড. হোসেন জিল্লুর রহমানের মা জোহরা বেগম রেখে গেলেন ৬ রতœ

newsgarden24.com

মো. দেলোয়ার হোসেন, চন্দনাইশ: ব্র্যাক বাংলাদেশের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক ... বিস্তারিত

সর্বশেষ

অর্থহীন সমালোচনা নয়, যুদ্ধ জয়ের সঠিক রণকৌশল চাই: মেয়র

অর্থহীন সমালোচনা নয়, যুদ্ধ জয়ের সঠিক রণকৌশল চাই: মেয়র

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক:  চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, সম্পূর্ণ অজানা-অ... বিস্তারিত

করোনাভাইরাসে মৃত্যু ৩৮, সুস্থ ৪,৩৬৪

করোনাভাইরাসে মৃত্যু ৩৮, সুস্থ ৪,৩৬৪

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৪,৩৬৪ জন... বিস্তারিত

এমপি নদভীকে ধর্মমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেখতে চায়

এমপি নদভীকে ধর্মমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেখতে চায়

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রীসহ সকলের আস্থাভাজন ব্যক্তিত্ব, বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার, উদার ও বি... বিস্তারিত

ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিল ও গ্রাহক ভোগান্তি নিরসনে টাস্কফোর্সকে পুন:গঠনের দাবি

ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিল ও গ্রাহক ভোগান্তি নিরসনে টাস্কফোর্সকে পুন:গঠনের দাবি

newsgarden24.com

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: করোনা মহামারী কালে গড় বিল, জুনের রাজস্ব আদায়ের টার্গেট পুরণের নামে ভুতুড়ে বিল ন... বিস্তারিত