সংলাপে গণভবনে আমন্ত্রণ করায় প্রধানমন্ত্রীকে তৃণমূল এনডিএমের ধন্যবাদ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৮ নভেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার: গণমানুষের অধিকার আদায়ের লক্ষে গঠিত এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের রাজনৈতিক দল তৃণমূল জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন। আমরা লড়ছি গণমানুষের অধিকার আদায়সহ সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়তে। তৃণমূল এনডিএম তার জন্ম লগ্ন থেকে গণমানুষের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে আন্দোলন করছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে এই দেশের মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত ও জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। যেহেতু আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা হচ্ছে সাফল্য ও উন্নয়নের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পূর্বশর্ত, এই শর্ত পূরণের জন্য প্রয়োজন সব শুভ শক্তির মতৈক্য ও ঐক্যবদ্ধভাবে সব অশুভ শক্তির বিরুদ্ধেপ্রতিরোধ গড়ে তোলা।
আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৪ দলের নেতারা এই সংলাপে অংশ নেন। অন্যদিকে তৃণমূল এনডিএম সংলাপে প্রস্তাব তোলে, বর্তমান সরকারের অধীনেই একাদশ সংসদ নির্বাচন হতে হবে এবং আপিনই প্রধানমন্ত্রী থাকবেন। দেশে গণতন্ত্র তথা জনগণের শাসনকে সুসংহত করতে নির্বাচন ব্যবস্থাকে করতে হবে নিশ্ছিদ্র্রভাবে স্বচ্ছ। দেশের সংবিধানে দলীয় সরকারের অধীনেই নির্বাচন কমিশনকে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের দায়িত্ব দিতে হবে। সকল যুদ্ধাপরাধীর মামলা তদন্তে আছে, সকল মামলা দ্রুত ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে তাদের বিচার করার দাবী। বর্তমান পরিবহন সেক্টরে সরকার এবং পরিবহন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাকারীদের রায় দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। প্রাপ্ত বয়স্ক ভোটে প্রত্যক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে সংসদীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা এবং পত্রিকাগুলোর স্বাধীনতা দিতে হবে। শিক্ষা সমস্যার আশু সমাধান এবং ছাত্রদের সকল মাসিক ফি কমিয়ে আনতে হবে। কৃষকদের উপর থেকে কর ও খাজনা হ্রাস করা। শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি, চিকিৎসা, শিক্ষা ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও জলাবদ্ধতা সারা বাংলাদেশ থেকে দূর করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী। দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ তেল, গ্যাস, খনিজসম্পদসহ দেশ ও জাতির প্রয়োজনে যথাযথভাবে রক্ষণবেক্ষণ করতে হবে। বাংলাদেশের যুব সমাজ আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে তাদেরকে রক্ষা করতে সকল মহলকে সচেতন হতে হবে। মাদক ও সন্ত্রাসের হাত থেকে রক্ষা করতে হলে সীমান্ত দিয়ে আসা মাদক বন্ধ করতে হবে।
বাংলাদেশের অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের দ্রুত মায়ানমার ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে। আপনাদের ক্ষমতায় রাখতে সার্বিক সহযোগিতা থাকবে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্বাধীনতার আদর্শ সমুন্নত রাখতে হবে। ৭ নভেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় গণভবনে জননেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সংলাপের দাবী দাওয়া তৃণমূল এনডিএমের চেয়ারম্যান খোকন চৌধুরীর পক্ষে তৃণমূল এনডিএমের মহাসচিব রফিকুল ইসলাম ও স্থায়ী কমিটির সদস্য এডভোকেট কায়সারুল ইসলাম তুলে ধরেন। সংলাপে তৃণমূল এনডিএমকে গণভবনে জননেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমন্ত্রণ করায় তৃণমূল এনডিএমের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ। তৃণমূল এনডিএম সারা বাংলাদেশে সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। তারই অংশ হিসেবে আমরাও প্রধানমন্ত্রীর জোটের সাথে থেকে জননেত্রীর হাতকে শক্তিশালী করে উন্নয়নশীল দেশ গড়তে সহায়ক ভূমিকা রাখতে চাই।

Leave a Reply

%d bloggers like this: