`মুসলিম ইনস্টিটিউট হল’-এর নাম পরিবর্তনের প্রস্তাব উদ্দেশ্যমূলক : মুঈনুদ্দীন রুহী

মোঃ উসমান গনি, হাটহাজারী : চট্টগ্রামে মুসলিম হলের নাম পরিবর্তনের সিদ্ধান্তকে অগ্রহণযোগ্য বলে সমালোচনা ও প্রতিবাদ করেছেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্মমহাসচিব মাওলানা মুঈনুদ্দীন রুহী।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন জানিয়েছেন, চট্টগ্রামের মুসলিম হল ইনস্টিটিউটের নাম বদলে সংগীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর নামে নামকরণ করা হবে। কিন্তু হেফাজতে ইসলামের শীর্ষ পর্যায়ের নেতা মাওলানা মুঈনুদ্দীন রুহী চসিক মেয়রের এই উদ্যোগের প্রতি ভিন্নমত পোষণ করে বলেছে, সদ্যপ্রয়াত শিল্পীকে অন্য উপায়েও স্মরণীয় করে রাখা যায়। কিন্তু চট্টগ্রামের গৌরবময় মুসলিম সংস্কৃতির স্মৃতিবাহী ঐতিহ্যবাহী ‘মুসলিম ইনস্টিটিউট হল’-এর নাম বদলানোর প্রস্তাব উদ্দেশ্যমূলক বলেই আমরা মনে করছি। চট্টগ্রামের জনগণ এটা মেনে নেবে না।

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রাম মুসলিম ইনস্টিটিউট হল’ নামটি বৃটিশ আমল থেকে শুরু হয়ে এখনো পর্যন্ত সেভাবেই চট্টগ্রামবাসীর কাছে পরিচিত হয়ে আসছে। এই নাম চট্টগ্রামের মুসলিম ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির গৌরব স্মরণ করিয়ে দেয়।

তিনি বলেন, সদ্য প্রয়াত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু অবশ্যই বর্তমান সাংস্কৃতিক অঙ্গনে একজন খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব। তাঁর প্রতি যে কোন সম্মান জানানোতে আমাদের আপত্তি নেই। কিন্তু এজন্য চসিক মেয়র মহোদয় কর্তৃক চট্টগ্রামের ঐতিহ্যের স্মারক ‘মুসলিম ইনস্টিটিউট হল’-এর নাম বদলে শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর নামে নামকরণ কোনভাবেই সুবিবেচনাপ্রসূত বলে আমরা মনে করি না। মেয়রকে অনুরোধ করব, তার এই সিদ্ধান্ত ফিরিয়ে নিতে। কারণ, চট্টগ্রামের মানুষ এটা কখনাই মেনে নেবে না। এই উদ্যোগ মেয়রের ভাবমূর্তির জন্যও ক্ষতিকর হবে।
মাওলানা মুঈনুদ্দীন রুহী এর সাথে যোগ করে বলেন, ধর্মনিরপেক্ষতার নামে অত্যন্ত সুকৌশলে পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশ থেকে সমৃদ্ধ মুসলিম সংস্কৃতি মুছে ফেলার একটা চেষ্টা আমরা লক্ষ্য করছি। চট্টগ্রামের মুসলিম ইনস্টিটিউট হলের নাম বদলানোর এই উদ্যোগও তার অংশ হতে পারে, এমন আশংকা উড়িয়ে দেয়া যায় না।

Leave a Reply

%d bloggers like this: