তুষার গাইনের নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে চট্টগ্রাম হিন্দু যুব মহাজোটের মানববন্ধন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১০ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার: গোপালগঞ্জে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের রথযাত্রায় হামলার প্রতিবাদকারী তুষার গাইনের বিরুদ্ধে হয়রানি ও চক্রান্তমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার পূর্বক নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে আজ ১০ আগষ্ট শুক্রবার সকাল ১১ টায় চট্টগ্রাম এর চেরাগী পাহাড়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব মহাজোট চট্টগ্রাম। হিন্দু যুব মহাজোট চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি প্রিন্স পালের সভাপতিত্বে আয়োজিত মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন হিন্দু মহাজোট চট্টগ্রাম এর সহ-সভাপতি সুজিত সরকার, বনগোপাল চৌধুরী, উপদেষ্টা লায়ন স্বপন বিশ্বাস, বাহারাইন শাখার সাধারণ সম্পাদক ঝুন্টু নাথ শিশির, চট্টগ্রামের সহ-সাধারণ সম্পাদক শ্যামল দাশ রানা, জুয়েল নাথ, প্রসেনজিৎ দাশ, নিউটন দাশ, অমিত বিশ্বাস, সলিল চৌধুরী, রকি নাগ, শ্যামল দাশ প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন তুষার গাইন একজন সৎ, নীতিবান ও আদর্শ চরিত্রের অধিকারী। এলাকার বিভিন্ন সেবামূলক কর্মকা-ে তিনি অগ্রণী ভুমিকা রাখে। নির্যাতিত নিপীড়িত মানুষের পাশে থেকে তিনি সংগ্রাম করে। তার জনপ্রিয়তা ও গুণ কর্মে মুগ্ধ হয়ে স্থানীয় যুব লীগের ইউনিয়ন শাখার দায়িত্ব নিতে অনুরোধ জানানো হলে তিনি রাজনীতির প্রতি অনাগ্রহ প্রকাশ করেন। অপর দিকে ভূমিদস্যু, সন্ত্রাসী কর্মকা-ের প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর হওয়ায় একটি মহলের চক্ষুশুলও তিনি। স্থানীয় ইস্কন কর্তৃক আয়োজিত এবারের রথযাত্রায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টির লক্ষ্যে হামলা চালায় কিছু দুস্কৃতিকারী। এ নিয়ে যেন কোন প্রতিবাদ না হয় এজন্য সংখ্যালঘুদের উপর প্রভাবশালী মহলের পক্ষ থেকে চাপ দেয়া হয়। ভয়ে অনেকে চুপ থাকলেও এ বিষয় নিয়ে স্থানীয় লোকদের মনে সাহস যুগিয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ করে তুষার গাইন। আর এতেই ক্ষদ্ধ হয়ে ঘায়েল করার মানসে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে প্রভাবশালী মহল। আর পুলিশ প্রকৃত হামলাকারীদের গ্রেফতার না করে প্রভাবশালী মহলের প্ররোচনায় গ্রেফতার করে প্রতিবাদকারী তুষার গাইনকে। প্রকৃত আইনের শাসন না থাকায় তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন বক্তারা। সেই সাথে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার পূর্বক তুষারের নিঃশর্ত মুক্তি ও রথযাত্রায় হামলাকারী প্রকৃত অপরাধীদের অবিলম্বে গ্রেফতার পূর্বক শাস্তির দাবী জানায় তারা। বক্তারা আরো বলেন আজ এদেশে হিন্দু নির্যাতন নিয়ে আমেরিকা ও ব্রিটিশ পার্লামেন্টে আলোচনা হলেও আজ পর্যন্ত আমাদের জাতীয় সংসদে এ নিয়ে কোন আলোচনা হয়নি। জাতীয় সংসদে সংখ্যালঘুদের পক্ষে কথা বলার কোন লোক না থাকায় আমরা পৃথক নির্বাচন বাস্থবায়নের মাধ্যমে ৬০টি সংরক্ষিত আসনের দাবী জানাই। জাগো হিন্দু পরিষদ, সনাতন বিদ্যার্থী পরিষদ, শারদাঞ্জলী ফোরাম, বাংলাদেশ সনাতনী সেবক সংঘ, লোকনাথ ব্রহ্মচারী সেবক পরিষদ, জাতীয় গীতা পরিষদ, সনাতন, চট্টগ্রাম মহানগর ত্রিপুরা কল্যাণ ফোরাম, উক্ত প্রতিবাদ কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করে সংহতি প্রকাশ করেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: