বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ উপলক্ষে চট্টগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে আলোচনা সভা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৮ আগস্ট ২০১৮, বুধবার: বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ-২০১৮ উপলক্ষে চট্টগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে আলোচনা সভা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. আবুল কাসেমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মঙ্গলবার চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকির স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকারের পরিচালক দীপক চক্রবর্তী বলেন, শাল দুধ শিশুর জীবনের প্রথম টিকা, শাল দুধের মাধ্যমে ৩১ শতাংশ শিশুমৃত্যুর ঝুঁকি কমানো সম্ভব। মায়ের দুধে এন্টিবডি বেশি থাকে যা শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এমনকি জন্ডিসের আশঙ্কাও কমায়। তিনি আরো বলেন, দেশের মানুষকে এ ক্ষেত্রে সচেতন করে তুলার দায়িত্ব আমাদের-আপনাদের। কেননা, বাজারে বিভিন্ন ধরনের গুঁড়ো দুধ বিক্রি করা হয়। চিকিৎসকও ব্যবস্থাপত্রে গুঁড়ো দুধ লিখে দেন, ফার্মেসি এমনকি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে হাসপাতালে বিক্রি ও প্রদর্শন বিপণন নিয়ন্ত্রণ আইনের ২০১৩ এর বিধি অনুযায়ী অপরাধ। এটা নিয়ন্ত্রণে সাংবাদিকদের ভূমিকা অপরিসীম।
‘মায়ের দুধ পান সুস্থ জীবনের বুনিয়াদ’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্রেস্ট ফিডিং ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা গাজী মো. শাহিনুল ইসলাম মাতৃদুগ্ধের উপকারিতা, গুঁড়ো দুধের ক্ষতিকারক দিক মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে তুলে ধরেন। তিনি মাতৃদুগ্ধের উপকারিতা, গুঁড়ো দুধের ক্ষতিকারক দিক বর্ণণা করে বলেন, ফার্মেসি বা দোকানে বিক্রিত কোম্পানির আর্টিফিসিয়াল শিশুখাদ্য মাতৃদুগ্ধের বিকল্প হতে পারে না। বাণিজ্যিকভাবে প্রস্তুতকৃত শিশুর বাড়তি খাদ্যের ব্যবহারে সরঞ্জামাদি বিপণন নিয়ন্ত্রণ আইনের অপরাধ। যদিও মানুষের নজরকাড়ার জন্য বিজ্ঞাপন, লিফলেট ও চিকিৎসকদের ব্যবস্থাপত্রের দ্বারা তা বিক্রি করা হয়।
মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের বিভাগীয় স্বাস্থ্য সহকারী পরিচালক ডা. মো. সফিকুল ইসলামসহ বিভিন্ন প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা।
১৯৯২ সাল থেকে বাংলাদেশে প্রতিবছর ১-৭ আগস্ট বিশ্বমাতৃ দুগ্ধ সপ্তাহ পালিত হয়ে আসছে। ২০১০ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ জাতীয়ভাবে পালন করা হয়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: