১৫ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে ১১তম ইন্টারন্যাশনাল উইম্যানস এসএমই এক্সপো বাংলাদেশ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৩১ জুলাই ২০১৭, সোমবার: আগামী ১৫ অক্টোবর, ২০১৭ তারিখ থেকে চিটাগাং উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর উদ্যোগে এবং রপ্তানী উন্নয়ন ব্যুারো (EPB), দি ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বার্স অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি (FBCCI), এসএমই ফাউন্ডেশন ও জুট ডাইভার্সিফিকেশন প্রমোশান সেন্টার (JDPC) এর সহযোগিতায় শুরু হচ্ছে মাসব্যাপী 11th International Women’s SME Expo Bangladesh 2017. মেলা আয়োজন উপলক্ষে চিটাগাং উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর উদ্যোগে ৩১ জুলাই, ২০১৭ তারিখ সোমবার দুপুর ১২ টায় চিটাগাং উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর সেমিনার হলে এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সাংবাদিক সম্মেলনে মেলা আয়োজনের সার্বিক প্রস্তুতি ও আনুষাঙ্গিক বিষয়ের উপর লিখিত বক্তব্য পাঠ করবেন ১11th International Women’s SME Expo Bangladesh 2017. এর চেয়ারপার্সন ও ঈডঈঈও এর পরিচালক রেবেকা নাসরিন। CWCCI এর প্রেসিডেন্ট ইন-চার্জ ও সিনিয়র ভাইস-প্রেসিডেন্ট আবিদা সুলতানা এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সাংবাদিক সম্মেলনে CWCCIএর প্রাক্তন সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ভাইস-প্রেসিডেন্ট খালেদা এ আউয়াল সহ CWCCI এর পরিচালক ও11th International Women’s SME Expo Bangladesh 2017. কমিটির কো-চেয়ারম্যান ও সদস্যসহ CWCCI এর সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। লিখিত বক্তব্যে রেবেকা নাসরিন জানান আজ থেকে প্রায় ১৯ বছর আগে চট্টগ্রামের নারী উদ্যোক্তাদের যে পথচলা শুরু হয়েছিল সে অগ্রযাত্রায় আপনাদের সর্বাঙ্গীন সাহায্য-সহযোগিতা আমাদের এই কন্টকময় পথচলাকে মসৃন করেছে। দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসা প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থায় এতদঞ্চলের নারী সমাজ, শিক্ষা-দীক্ষা, সমাজের উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে পিছিয়ে ছিল। কিন্তু আজকে আমরা আমাদের সৃজনশীলতা ও কর্মোদ্দীপনার মাধ্যমে সেই অচলায়তন ভেঙ্গে ক্রমাগতভাবে নারী সমাজকে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করা, নারীর ক্ষমতায়ন, নারীজাতির মেধা ও প্রতিভার বিকাশ এবং উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে হাটিহাটি পা-পা করে আজকের এই অবস্থানে এসে পৌঁচেছি।
নারীদের ক্ষমতায়নে এবং অধিকার রক্ষায় আমরা আজ অনেকে বিভিন্নভাবে জড়িত, কিন্তু আমাদের এই সংগঠনটির সংঘটিত হওয়ার ইতিহাস সম্পূর্ণরূপে ভিন্ন। আমরা একতাবদ্ধ হয়েছিলাম ব্যবসা ক্ষেত্রে নারীদের অংশ গ্রহন বৃদ্ধিতে এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রসারে নারীদের অংশগ্রহণকে আরো বেগবান করতে। সার্বিক অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট বিশ্লেষণ করলে আমরা দেখতে পাই যে, আমাদের দেশের অর্থনীতিতে নারীদের অংশগ্রহণ অত্যন্ত কম। এই অংশগ্রহনের মূল প্রতিবন্ধকতা হচ্ছে- নারী শিক্ষার প্রসার না হওয়া, সামাজিক ব্যবস্থা, ধর্মীয় অনুশাসন, নারী-পুরুষ বৈষম্য, সম-অধিকার নিশ্চিত না হওয়া, নারীর প্রতি পারষ্পরিক সম্মানের অভাব। নারীদের দ্বারা ব্যবসা সম্ভব এবং সুযোগ পেলে নারীরা যে এগিয়ে যেতে পারে তার বাস্তব উদাহরণ আজকের চিটাগাং উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি। স্বল্পঋণ, প্রশিক্ষণ ও বাজারজাতকরণের মত সামান্য সহযোগিতা পেলে নারীরা যে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে পারে তার প্রকৃত উদাহরণ আজকের আমাদের দেশের নারীদের স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক পুরষ্কার প্রাপ্তি।
উল্লেখ্য যে, নারীদেরকে আমাদের পুরুষ শাসিত সমাজ ব্যবস্থায় একটি বিশেষণ লাগিয়ে দেওয়া হয়, যেটি হল আমরা পরচর্চা ও গৃহস্থালী কাজের জন্য উপযুক্ত। আমাদের দ্বারা এর বেশী কিছু করা সম্ভব নয়। কিন্তু আমাদের দেশের সর্ববৃহৎ উৎপাদনশীল ও বৈদেশিক মূদ্রা আয়ের শিল্পখাত “গার্মেন্টস শিল্প” পুরোপুরি নারী নির্ভর। এছাড়া অন্য দুটি বৃহত্তর খাত চা এবং মৎস্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পও নারী শ্রমিক নির্ভরশীল। যুগের পরিবর্তনে আজ নারী শ্রমিক ও পেশাজীবিরা সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে অবদান রাখছেন। এরপর ও দুঃখের বিষয় যে, আমাদের অর্থনীতিতে যে নারীদের এত বড় সহযোগিতা এবং উপস্থিতি, তা স্বত্বেও তাদেরকে বারবার থাকতে হচ্ছে উপেক্ষিত। এখনও আমাদের অর্থনীতিতে গৃহিনীদের দেওয়া শ্রমের কোন মূল্যায়ন হয়না, অথচ পৃথিবীর অন্যদেশে এর ভিন্ন চিত্র।

????????????????????????????????????

বাংলাদেশের পরিবর্তনশীল সমাজে আজকে নারীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে সর্বক্ষেত্রে। আজ নারীদের সমঅধিকার বাস্তবায়ন চলছে। আজ থেকে বহুদিন আগে প্রতিকূলতার মাঝে আমাদের পথিকৃৎ মহিয়সী নারীরা যদি তাদের উপস্থিতি এবং কর্মের মাধ্যমে আমাদের জন্য পথের সৃষ্টি করতে পারেন, তাহলে আমরা তা এগিয়ে নিতে পারব না কেন?
আমাদের দীর্ঘ দিনের কর্ম প্রচেষ্টা এবং নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে ধারাবাহিক কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে আমরা চিটাগাং উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর উদ্যোগে এবং রপ্তানী উন্নয়ন ব্যুরো, দি ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয় কর্র্তৃক প্রতিষ্ঠিত SME Foundation, জুট ডাইভারর্সিফিকেশন প্রমোশান সেন্টার এর সহযোগিতায় মহিলা উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্যসহ ঝগঊ পণ্যের বাজার সম্প্রসারণ, প্রচার, প্রসার, আয় বৃদ্ধি ভোক্তাউদ্যোক্তাদের মাঝে পারষ্পরিক সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে আগামী ১৫ অক্টোবর ২০১৭ তারিখ থেকে রেলওয়ে স্টেডিয়াম পলোগ্রাউন্ড মাঠে মাসব্যাপী 11th International Women’s SME Expo Bangladesh 2017 আয়োজন এর উদ্যোগ গ্রহন করেছি।
একটি কথা বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, অত্র অঞ্চলের মহিলা উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে আমরা ২০০২ সাল থেকে পর পর ৫ (পাঁচ) বছর স্থানীয় বাওয়া স্কুল মাঠে মাসব্যাপী ডঊ ঈদ বাজার আয়োজন করেছিলাম এবং পরবর্তী ১০ (দশ) বছর যাবৎ স্থানীয় রেলওয়ে স্টেডিয়াম পলোগ্রাউন্ড, চট্টগ্রামে ধারাবাহিকভাবে International Women’s SME Expo Bangladesh আয়োজন করে আসছি। যা বাংলাদেশে মহিলা উদ্যোক্তা কর্তৃক আয়োজিত সর্ববৃহৎ মেলা। এবছর ইরান, ভারত, চায়না, থাইল্যান্ড এর উদ্যোক্তাগণ তাদের অংশ গ্রহন অংশগ্রহন করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় আমরা আয়োজন করছি ১11th International Women’s SME Expo Bangladesh 2017   যা দক্ষিণ এশিয়ায় ঝগঊ শিল্পখাতে মহিলা উদ্যোক্তা কর্তৃক আয়োজিত সর্ববৃহৎ বাণিজ্য সম্মিলনে রূপলাভ করেছে।
একাদশ বারের মত আয়োজিত এই মেলায় ছোট-বড় প্রায় সাড়ে তিনশটি স্টল এবং পনেরটি প্যাভেলিয়ন করার সুযোগ থাকবে। যেখানে, নারী উদ্যোক্তাদেরকে স্বল্প মূল্যে অংশগ্রহনের সুযোগ প্রদান করা হয়েছে। মেলার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য পুলিশ ক্যাম্প, সিসিটিভি ক্যামেরা, বেসরকারী নিরাপত্তা রক্ষী, ফায়ার সার্ভিস-সহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা রাখা হবে। বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য বৈদ্যুতিক সাব-স্টেশন ও সার্বক্ষনিকভাবে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন জেনারেটর স্থাপন করা হবে। এছাড়াও প্রয়োজনীয় সংখ্যক টয়লেট, সার্বক্ষনিক পানি সরবরাহ, সিটি কর্পোরেশন এর সহযোগিতায় পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার ব্যবস্থা রাখা হবে।
শিশুদের বিনোদনের জন্য বিনোদন পার্কসহ নগরীর স্কুল গুলোতে শিশুদের জন্য বিনামূলে টিকেট সরবরাহের ব্যবস্থা রাখা হবে। মেলার সৌন্দর্য্য বিকাশের জন্য আকর্ষনীয় তোরণ, দৃষ্টিনন্দন ফোয়ারা ও সুউচ্চ টাওয়ার নির্মান করা হবে। মেলার সার্বিক কর্মকান্ড সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য সার্বক্ষনিকভাবে অফিস স্থাপন করা হবে।
11th International Women’s SME Expo Bangladesh 2017 এর প্রধান আর্কষণ হিসেবে থাকছে প্রযুক্তিনির্ভর থ্রি-ডি ম্যাপিং, লেজার শো-সহ আকর্ষণীয় ও জাঁকজমকপূর্ণ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।
আমাদের এবারের আয়োজনে সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে রয়েছে রপ্তানী উন্নয়ন ব্যুরো, দি ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বার্স অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয় কর্র্তৃক প্রতিষ্ঠিত SME Foundation, জুট ডাইভার্সিফিকেশন প্রমোশন সেন্টার।
দর্শক ও অংশগ্রহনকারীদের কাছে মেলার কার্যক্রমকে অর্থবহ ও আকর্ষনীয় করে তুলতে এবার মেলার বেশ কিছু নতুন বিষয় সংযোজন করার উদ্যোগ গ্রহন করছিঃ
০১) এসএমই খাতে নারী উদ্যোক্তাদের এসএমই ব্যাংক সমূহের সাথে সেতুবন্ধন তৈরী করতে বাংলাদেশ ব্যাংক এর সার্বিক সহযোগিতায় আয়োজন করা হচ্ছে “৪র্থ এসএমই ব্যাংকিং ম্যাচ-মেকিং ফেয়ার”। যেখানে তাৎক্ষনিকভাবে ঋণ গ্রহনে আগ্রহী এসএমই নারী উদ্যোক্তাদের নির্বাচন করে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে ঋণ প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে এবং ঋণ গ্রহনে যোগ্য সংখ্যক উদ্যোক্তাকে ঋণ প্রদান করা হবে।
০২) ভোজন রশিকদের কাছে মেলার আকর্ষণ বাড়াতে আয়োজন করা হবে ০৫ দিনব্যাপী চিটাগাং মেগা ফুড কার্নিভাল। যেখানে বিপুল রেষ্টুরেন্ট অংশ গ্রহনের সুযোগ থাকবে। এর ফলে একাধিক খাদ্য রশিকরা যেমন একই স্থানে ভিন্ন ভিন্ন খাবারের স্বাদ গ্রহনের সুযোগ পাবে তেমনি এই শিল্পের উদ্যোক্তারা তাদের ক্রেতাদের চাহিদা ও রুচি সম্পর্কে সরাসরি ধারনা অর্জন করতে পারবেন।
০৩) ফ্যাশন শিল্পের উন্নয়ন ও প্রসারের লক্ষে আয়োজন করা হবে ১১ দিনব্যাপী “চিটাগাং লাইফ স্টাইল এক্সোপজিশান ২০১৭”। যেখানে ফ্যাশন ডিজাইনাররা সরাসরি পণ্য প্রদর্শন ও ফ্যাশন-শো এর মাধ্যমে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনের সুযোগ পাবে। এছাড়া ওয়ান টু ওয়ান বিজনেজ মিটিং, ক্রেতা-বিক্রেতা সম্মিলন, বিজনেজ সেমিনার, সিম্পোজিয়াম-সহ নানা আয়োজন।
পাশাপাশি দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে মেলা শুরুর পূর্বে চট্টগ্রামের প্রতিটি অঞ্চলে বাড়ী বাড়ী গিয়ে মেলার সামগ্রীক তথ্য সরবরাহ করবে এবং তাদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা যাবে বিশেষছাড়ে মেলায় প্রবেশের অগ্রমি টিকেট।
ইতিমধ্যে মেলার হেলথ্ কেয়ার পার্টনার হয়েছেন সার্জিস্কোপ হাসপাতাল লিমিটেড। ই-কমার্স পার্টনার শপার্স ওয়ার্ল্ড মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তাদের পণ্যের প্রচার-প্রসারের লক্ষে স্টল-প্যাভেলিয়ন এর মাধ্যমে অংশগ্রহনের সুযোগ এবং বিভিন্নভাবে স্পন্সরের মাধ্যমে ব্র্যান্ডিং এর সুযোগ পাবেন। মেলায় ইভেন্ট ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকবে আউটসোর্স।
পরিশেষে আগামী ১৫ অক্টোবর ২০১৭ তারিখ থেকে মাসব্যাপী আয়োজিত দক্ষিণ এশিয়ায় মহিলা উদ্যোক্তাদের সর্ববৃহৎ বাণিজ্য সম্মিলন 11th International Women’s SME Expo Bangladesh 2017 সফলভাবে আয়োজন করার জন্য চট্টগ্রামের সবস্তরের জনগণ, সাংবাদিক, সুশীল সমাজসহ সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*