‘মনিটরিংয়ের অভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের বাজারে অস্থিরতা’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৯ মে ২০১৮ ইংরেজী, শনিবার: পবিত্র রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্য পণ্যের বাজার সহনীয় রাখতে, নকল, পচাবাসি ও ভেজাল খাবার বিক্রি বন্ধ ও দরিদ্র জনগণকে ইফতার সামমগ্রীর পরিবর্তে নগদ অর্থ প্রদানের দাবিতে র‌্যালীর আয়োজন করেছে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) বোয়ালখালী উপজেলা কমিটি। বোয়ালখালী উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে র‌্যালী শুরু হয়ে উপজেলার প্রধান সড়ক হয়ে পুনরায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে এসে সমাপ্ত হয়। র‌্যালী পূর্ব সমাবেশে ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল মান্নান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শাহওেয়াজ আলী মির্জা, ক্যাব নেতা শামসুল হুদা, আকতার কামাল চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইস্কান্দর, আরটিএন কাজী জসিম, আবু তৈয়ব প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
বক্তাগণ পবিত্র মাহে রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্য পণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ, পচা-বাসি খাবার বিক্রি বন্ধে প্রশাসনের কঠোর নজরদারি ও আইনের যথাযথ প্রয়োগের দাবি জানিয়ে বাজার মনিটরিং কার্যক্রম জোরদারের দাবি জানান। প্রশাসনের নজরদারি না থাকায় উপজেলা পর্যায়ে বাজার মূল্য সাধারণ জনগণের নাগালের বাইরে আর এ সুযোগে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী পণ্য মজুত ও কৃত্রিম সংকট তৈরী করে কাঁচা বাজার ও নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের বাজারে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে। প্রশাসন যথাযথ ভাবে বিষয়টি তদারকি করলে ১৬ কোটি ভোক্তারাই উপকৃত হবেন। বক্তাগণ পবিত্র রমজান আসলেই একশ্রেণীর ধনাঢ্য ব্যক্তি জনগণের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করে থাকেন। প্রতিবছর ইফতার ও যাকাতের কাপড় সংগ্রহ করতে বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রাণহানি ঘটে। সদ্য সংগঠিত সাতকানিয়া ট্রাজেডীতে বিপুল প্রাণহানি ঘটলেও এ ধারা অব্যাহত আছে। এছাড়াও অসংখ্য ধনাঢ্য ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠান ইফতার সামগ্রী বিতরণের কারণে ভোগ্য পণ্যের বাজারে চাপ তৈরী হয়। যার কারণে ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ায়। এছাড়াও নগদ অর্থ প্রদান করলে দরিদ্র মানুষ তাঁর প্রয়োজন অনুযায়ী কেনা কাটা করতে পারবে। অন্যদিকে ইফতার সামগ্রী বিতরণের সময় অপচয় ও অব্যবস্থাপনায় বিপুল পরিমাণ সামগ্রী নষ্ট হচ্ছে। তাই ইফতার সামগ্রীর পরিবর্তে নগদ অর্থ প্রদানের জন্য সর্বসাধারণের প্রতি আহবান জানান।

Leave a Reply