সাতকানিয়ায় বেসরাকারী ব্যাংকে লেনদেন বেড়েছে

এম এম রাজা মিয়া রাজু, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, বুধবার: রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে অনিয়ম দুর্নীতির বাসা বাধাঁর ফলে গ্রাহকরা ওইসব ব্যাংকের লেনদেন থেকে এখন মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। কর্মরত কর্মকর্তারা আমানতকারীদের টাকা নিয়ে ব্যবসা করায় ব্যাংক জগতে এক আতংত সৃষ্টি হয়েছে। সাতকানিয়া সোনালীব্যাংক শাখা কেরানীহাট কৃষি ব্যাংক ও পূর্বালী ব্যাংকে গ্রাহকরা হয়রানীর শিকার হয় বলে জানা যায়। সাতকানিয়ায় আগে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে গ্রাহকদের লেনদেন ছিল ভরপুর। তখন ব্যাংকের প্রতি গ্রাহকের আস্থা ছিল অগাধ। কর্মকর্তা কর্মচারী ছিলেন সৎ ও কর্মঠ। কালের বির্বতনে কর্মরত কর্মকর্তাদের দায়িত্বে অবহেলা ও উদাসীন হয়ে পড়ায় ব্যাংকের আমানতকারীরা দিনদিন ভোগান্তির শিকার হয়। এরফলে গ্রাহকরা এখন বেসরকারী ব্যাংকের প্রতি লেনদেনে ঝুকি পড়েছে। এই সুযোগে সাতকানিয়ায় বেশক’টি বেসরকারী ব্যাংক গড়ে উঠেছে। এসব ব্যংকের কর্মকর্তা কর্মচারীরা দায়িত্বের প্রতি আন্তরিক। এই সুযোগ হাত ছাড়া করেনি এমডি। সূত্রমতে বেসিক ব্যাংক এবি ব্যাংক ফার্মস ব্যাংক সহ আরো ২/৩টি এমডি এবং পূর্বালী বুপালী ওজনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপক ডিজিএম’র ব্যাপক অনিয়ম উম্মোচিত হয়েছে। তারা আমানতকারীদের টাকা নিয়ে ছিনিমিনি খেলায় এখন মেতে উঠেছে। অবৈধ পন্থায় বিভিন্ন খাতে টাকা বিনিয়োগ করে চলেছে। যারফলে দেশের অর্থনৈতিক বাজারে প্রভাব পড়েছে। তাদের ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর নজরে আসায় তারা তদন্তে নেমে। তাদের তদন্তে কোটি কোটি টাকার অনিয়ম বের হয়ে এসেছে। জানা যায় ম্যানেজারা বড় অংকের টাকার ফায়দা লুটে ভুয়া নাম ও বেনামে ঋণ দিয়েছে ।এতে ব্যাংক ব্যাপক ক্ষতির শিকার হলে আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ বনে যায় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও লুটেরা। ব্যাংকের টাকায় এখন অনেকে বিশিষ্ট শিল্পপতি বনে গেছে। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায় যারা এখন শিল্পপতির তালিকায় নাম লিখিয়ে ঢাকঢোল বাজিয়ে দেশের এই প্রান্ত থেকে ওই প্রান্তে ঘরে বেড়াচ্ছে তারা এক সময় শূন্য হাতে জীবন করেছে।তারা মেহনতী মানুষের আমানতের টাকা নিয়ে শিল্পপতি বনে বড় গলায় কথা বলে। এসব সাধুবাদদের আইনের আওতায় আনার জন্য এখন দাবি উঠেছে।

Leave a Reply