পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ও মরিয়ম নওয়াজের মাঝে শুরু হয়েছে স্নায়ু যুদ্ধ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১২ সেপ্টম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার: পাকিস্তানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের কন্যা মরিয়ম নওয়াজের মাঝে শুরু হয়েছে স্নায়ু যুদ্ধ। তাদের অন্তর্দ্বন্দ্বের কারণে মন্ত্রীসভায় নওয়াজ কন্যার সমর্থিত অনেকের মন্ত্রীত্ব থাকা না থাকা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ফলে সবার আগে দেশটির অর্থমন্ত্রী ইসহাক দার পদত্যাগে বাধ্য হতে পারেন বলেও গুঞ্জন উঠেছে।
পাকিস্তানের একজন সিনিয়র সাংবাদিকের বরাত দিয়ে এ সংবাদ প্রকাশ করে দৈনিক পাকিস্তান উর্দু ও দৈনিক খবরীন। তবে পত্রিকা দুটি ওই সংবাদিকের নাম উল্লেখ করেনি। ওই সিনিয়র সাংবাদিক একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সাক্ষাৎকারে এ দাবি করেছেন।
দলীয় নেত্রী নওয়াজ কন্যার অনেক কাজেই বিরক্ত ও বিতৃষ্ণা হয়ে পড়েছেন নওয়াজের মনোনয়নে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী শাহেদ খাকান আব্বাসী। ফলে পাক প্রধানমন্ত্রী সতর্ক করে দিয়েছেন যারা মরিয়ম নওয়াজের কথায় কাজ করবে তাদের মন্ত্রীসভায় জায়গা দেওয়া হবে না। তাদেরকে অন্যকোনো পথ বেছে নিতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী ও নওয়াজ কন্যার মাঝে চলমান এ স্নায়ুযুদ্ধ মূলত দল ও সরকারে মরিয়ম নওয়াজের আধিপত্যকে কেন্দ্র করে। দৈনিক খবরীন এ বলা হয়, মরিয়মন নওয়াজ সমর্থিত সাতজন মন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শাহেদ খাকান আব্বাসীকে জানিয়েছেন তারা শুধু মরিয়ম নওয়াজের কথা-ই শুনবেন। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যারা মরিয়ম নওয়াজের গ্রুৃপের সঙ্গে চলবে তাদের অন্যকোনো ফ্লাটফর্ম বেছে নিতে হবে। পাক প্রধানমন্ত্রীর এ কথা সত্য হলে খাজা আসিফ, আহসান ইকবাল ও খরম দস্তগীরের কপালেও দুর্ভাগ্য আসতে পারে। কারণ তারা মরিয়ম নওয়াজের অনুগত বলে আলোচনায় রয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী তার অধিনস্ত প্রতিষ্ঠান ও এজেন্সিগুলাকে নির্দেশ দিয়েছেন আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত লাহোরের উপনির্বাচনে যেন কোনো ধরণের হস্তক্ষেপ না করে। নির্বাচন স্বচ্ছ হতে হবে।
উল্লেখ্য, সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে আদালত কর্তৃক অযোগ্য ঘোষণার পর নওয়াজের নির্বাচিত এলাকার আসনটি শুন্য হয়ে পড়েছে। এ শুন্য আসনে নির্বাচন হতে যাচ্ছে আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর। এ নির্বাচেন দলের কোনো আধিপত্য বিস্তার সহ্য করা হবে না বলে শাহেদ খাকান আব্বাসী সতর্ক করে দিয়েছেন।

Leave a Reply