লারার ফেবারিট ইংল্যান্ড

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৮ মে ২০১৭, রবিবার: তাঁর ব্যাটিং যতটা বিনোদন জোগাত, সেই অনুপাতে সাফল্য তিনি পাননি। তবে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিততে কী লাগে, তা ব্রায়ান লারা ভালোই জানেন। ক্যারিয়ারে একমাত্র আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ের স্মৃতি যে এই চ্যাম্পিয়নস ট্রফিকে ঘিরেই। ২০০৪ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতেছিল তাঁরই অধিনায়কত্বে।
সেই লারাই যখন চ্যাম্পিয়নস ট্রফির জন্য কোনো দলকে ফেবারিট বলেন, তার আলাদা গুরুত্ব থাকে। ১ জুন থেকে শুরু হতে যাওয়া এবারের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবদন্তির চোখে ফেবারিট দল ইংল্যান্ড!
‘আমার মনে হচ্ছে, এবারের টুর্নামেন্টটি অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে বড় ও ভালো হবে। তাই কার হাতে শিরোপা ওঠে, তা দেখাটা সমর্থকদের জন্য, আমাদের সাবেক ক্রিকেটারদের জন্য দুর্দান্ত একটা অভিজ্ঞতা হবে। আমার মনে হয়, এই কন্ডিশনে ইংল্যান্ডই ফেবারিট’—গত পরশু লন্ডনের ওভালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে বলেছেন লারা।
২০০৪ সালে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের দুর্ভাগ্য, শিরোপার খুব কাছে গিয়েও লারার ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছেই হেরে রানার্সআপ হয়েছিল। ৭ বল বাকি থাকতে হার ২ উইকেটে। ২০১৩ সালে সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতেও একই দুর্ভাগ্য। সেবারও স্বাগতিক, সেবার বৃষ্টি-বাধায় ২০ ওভারে নেমে আসা ফাইনালে ভারতের কাছে হার ৫ রানে। এবারও স্বাগতিক ইংল্যান্ড, তৃতীয়বারে এসে ভাগ্যটা বদলাবে?
লারা তেমনই ভাবছেন। সাবেক বাঁহাতি ব্যাটিং কিংবদন্তিকে তেমন ভাবতে বাধ্য করছে ইংল্যান্ডের দলীয় শক্তি, ‘আগে ইংল্যান্ডে হয়তো একজন ইয়ান বোথাম বা একজন (অ্যান্ড্রু) ফ্লিনটফ ছিলেন। কিন্তু এখন পুরো দলের দিকে তাকান। পুরো দলটিই ওয়ানডের জন্য যথার্থ। ওদের অনেকেই আইপিএলে খেলে। এমন কিছু ক্রিকেটার আছে, যারা ব্যাট ও বল হাতে দুর্দান্ত!’
টুর্নামেন্টে এবার তাঁর নিজের দল ওয়েস্ট ইন্ডিজই নেই। কিন্তু পরশু জোনাথন ট্রট, কুমার সাঙ্গাকারা, আজহার মেহমুদদের মতো সাবেক ক্রিকেটার আর ওয়েলসের প্রিন্স চার্লসের পাশে দাঁড়িয়ে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির উদ্বোধনে তাঁর সময়ের স্মৃতিই উঠে এল লারার কাছে, ‘চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আমার কাছে বিশেষ কিছু। আমি অধিনায়ক থাকার সময় বা ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ক্রিকেট খেলার সময়টায়ও খুব বেশি শিরোপা আমরা জিতিনি। তবে ওভালে এক সেপ্টেম্বরের (২০০৪) আলো-আঁধারি বিকেলে কী হয়েছিল, সেটি সব সময়ই মনে থাকবে। টেস্টে খুব বাজে একটা সময় কাটিয়ে টুর্নামেন্টটিতে খেলতে এসেছিলাম, ১৩ বছর পরও সেটি নিয়ে গর্ব করতে পারা কম কী!’
লারা অতীতে ফিরে সুখস্মৃতি কুড়াচ্ছিলেন, কিন্তু পরশু অনুষ্ঠানে থাকা জোনাথন ট্রটের অত সৌভাগ্য হয়নি! ২০১৩ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভারতের কাছে ফাইনালে হেরে যাওয়া দলে ছিলেন। তবে এবারের দলটি সেই হতাশা ঘোচাবে বলেই বিশ্বাস সাবেক ইংল্যান্ড ব্যাটসম্যানের, ‘২০১৩ ফাইনালটা জিততে পারলে কী ভালোই না লাগত! এখনো দুঃস্বপ্ন দেখি সেটি নিয়ে। তবে আশা করি, এই দলটা শেষ পর্যন্ত যেতে পারবে।’ আশার পেছনে যুক্তিও আছে ট্রটের, ‘ইংল্যান্ড ঘরে ও বাইরে বেশ ভালো ক্রিকেট খেলছে। তবে ওদের ওপর তেমন চাপ আছে বলে মনে হয় না। একটা ওয়ানডে টুর্নামেন্ট জিততেই হবে, এমন একটা অনুভূতি সবার মধ্যে আছে। এটা ভালো, এ ছাড়া টি-টোয়েন্টিতেও ওরা বেশ ভালোই করছে।’ আইসিসিক্রিকেটডটকম।

Leave a Reply