ক্ষুধা মেটাতে বাধ্য হয়েই গাছের ডাল-পাতা খেয়ে থাকতেন পাকিস্তানের মেহমুদ বাট

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২২ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার: নিদারুণ দারিদ্র্য থেকে ক্ষুধা মেটাতে বাধ্য হয়েই গাছের ডাল-পাতা খেয়ে থাকতেন পাকিস্তানের মেহমুদ বাট (৫০)। ভিক্ষা করার চেয়ে এটাকেই ভালো উপায়, ভাবতেন তিনি। কিন্তু পরে আর্থিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও অদ্ভূত এই অভ্যাস ছাড়তে পারেননি বাট। কেননা এরই মধ্যে রীতিমতো কাঠ-পাতায় আসক্ত হয়ে যান তিনি। গত ২৫ বছরের এই অদ্ভুত আসক্তির পরও কখনো অসুস্থ হননি তিনি। পাঞ্জাব প্রদেশের গুজরানওয়ালা জেলার বাসিন্দা মেহমুদ বাটকে ডেইলিমেইল জানিয়েছে, পরিবারে এতোটাই অর্থকষ্ট নেমে এসেছিলো যে কোন চাহিদাই পূরণের অবস্থা ছিলো না। খাবারের সংস্থান করা ছিলো খুবই কষ্টকর। আমি ভাবলাম রাস্তায় ভিক্ষা করার চেয়ে গাছের ডাল খাওয়া ভালো।
কয়েক বছর পর অবশ্য কাজ পেয়ে যান মেহমুদ, খাবারের সংস্থানও করতে পারেন। গাঁধার মালগাড়ি দিয়ে পণ্য এক স্থান থেকে অন্য স্থানে স্থানান্তরের কাজ করে দৈনিক প্রায় ৬৭০ পাকিস্তানি রুপি (বাংলাদেশি টাকায় ৫৩০) আয় করেন। কিন্তু অদ্ভুত খাদ্যাভাসটাই আর ছাড়তে পারলেন না। তার নজর সবসময় সতেজ-কচি ডাল ও পাতার দিকে। বলেন, ডাল ও পাতা খাওয়া এখন আমার অভ্যাস হয়ে গেছে। এই গাছখেকো মেহমুদের প্রতিবেশী গুলাম মুহাম্মদ বলেন, যখন-তখন সে মাল গাড়ি রাস্তার পাশে রেখে গাছের সতেজ ডালপালা খাওয়া শুরু করে।
অদ্ভুত খাদ্যাভাসের জন্য নিজের সম্প্রদায়ের মধ্যে জনপ্রিয় বাট। কিন্তু তার কখনোই অসুস্থ না হওয়ার ঘটনা সবাইকে বিস্মিত করে। বিস্ময় প্রকাশ করে গুলাম বলেন, সে কখনোই কোন ডাক্তার দেখায়নি বা হাসপাতালে যায়নি। এতগুলো বছর ধরে ডালপালা খাওয়ার পরও কেউ অসুস্থ না হয়ে কিভাবে থাকে!

Leave a Reply