ইউনিয়ন পরিষদ স্থানীয় প্রশাসনের সর্বনি¤œ স্তরঢেলে সাজানোর গুরুত্বে শাপেবর

মো. আবুল হাসান, খন রঞ্জন রায়, ১৯ এপ্রিল ২০১৭, বুধবার: স্থানীয় সরকারের অন্যতম স্তর ইউনিয়ন পরিষদকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পরিষদের কার্যক্রম আরও গতিশীল করতে চার হাজার ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর সহ পরিষদের সচিব পদে নিয়োগ দেওয়া হবে তিন হাজার ব্যক্তিকে সাথে ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ও চেয়ারম্যানদের সম্মানী দ্বিগুণ করার চিন্তাভাবনা রয়েছে। বর্তমানে একজন চেয়ারম্যান মাসিক সম্মানী পান তিন হাজার টাকা। এর মধ্যে এক হাজার ৪৭৫ টাকা পান সরকারি খাত থেকে আর বাকি টাকা পান পরিষদ থেকে। মেম্বাররা মাসিক সম্মানী পান এক হাজার ৪০০ টাকা। এর মধ্যে সরকার থেকে পান ৯০০ টাকা আর বাকিটা পরিষদ থেকে। এছাড়া যেসব ইউনিয়নে কমপ্লেক্স ভবন নেই, সেখানে পর্যায়ক্রমে আধুনিক ভবন নির্মাণ করা হবে। এ-সংক্রান্ত একটি প্রকল্পও রয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগের। স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করতে গ্রাম পুলিশের সযোগ-সুবিধা ও কর্মপরিধিও বাড়ানো হচ্ছে।

আওয়ামীলীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতার আসার পর প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক কার্যক্রম বেগবান করতে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন) পরিষদ আইন, ২০০৯ প্রণয়ন করে। তৃণমূলে ডিজিটাল সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার অনুযায়ী দেশের সব ইউনিয়ন পরিষদে কম্পিউটার প্রেরণ করেন। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাধারণ জনগণ রাষ্ট্রের কাছ থেকে বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা সরাসরি ইউপির জনপ্রতিনিধিদের মাধমে পাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। ‘ইউপি সচিব’ ইউনিয়ন পরিষদের একমাত্র কর্মচারী, যিনি দীর্ঘদিন ধরে ইউনিয়ন পর্যায়ে বিভিন্ন নাগরিক সেবা প্রদানসহ কেন্দ্রীয় সরকার ও ইউনিয়ন পরিষদের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সমন্বয় করে আসছেন।

বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে বয়স্ক ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা বিতরণসহ টিআর, কারিখা, এডিপি, ভিজিডি, ভিজিফের মতো বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। পাশাপাশি জন্ম ও মৃত্যুনিবন্ধন কার্যক্রমসহ বিভিন্ন রকমের সনদ প্রদান, গ্রাম আদালতের কার্যক্রমও ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনা করে আসছে। এসব করতে গিয়ে বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদ শুধু কেন্দ্রীয় সরকারের আর্থিক সহায়তায় বিভিন্ন কর্মসূচি ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কাজের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে, যদিও ইউনিয়ন পরিষদের মূল কাজ হচ্ছে নিজস্ব আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে এলাকার উন্নয়ন করা। ১৩টি স্থায়ী কমিটিসহ ইউনিয়ন পর্যায়ের বিভিন্ন কমিটিকে গতিশীল ও কার্যকর করার মাধ্যমে জনগণের চাহিদা নিরূপণ করা। জনচাহিদা পূরণের লক্ষ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করে কেন্দ্রীয় সরকারকে অবহিত করা এবং কেন্দ্রীয় সরকারের সহযোগিতায় সংশিষ্ট প্রশাসনিক জনবল ব্যবহার করে ওই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা। কিন্তু নিজের জমি থাকা সত্বেও তাতে আবাদ না করে অন্যের দয়ার ওপর নির্ভরশীল থাকলে কারও যেমন সম্মান ও মর্যদা থাকে না, ঠিক তেমনি ইউনিয়ন পরিষদের প্রতিনিধিদের সম্মান ও মর্যাদা বিলীন হওয়ার পথে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে বাংলাদেশের পক্ষে স্বাক্ষর করেছেন। এই প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়ন করতে হলে অচল হয়ে পড়া শত শত ইউপিকে সচল ও তৃণমূল পর্যায়ে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ নিশ্চিত করতে হবে।

আমার কথা ইউনিয়ন পরিষদের জনবল কাঠামো জেলা প্রশাসন থেকে চাওয়া তালিকা অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে জেলা অনুযায়ী ভাগ না করে বিভাগ অনুযায়ী নিয়োগ আসছে। উল্লেখিত পদের ভেতরে সবচেয়ে বেশি নিয়োগ দেওয়া হবে চট্টগ্রাম ৫৮৪টি পদে রাজশাহীতে ৫২১টি, খুলনায় ৪৯০টি ও বরিশাল বিভাগে ৮০৩টি পদে। সবচেয়ে কম পদ আছে সিলেট বিভাগের জন্য। এসব পদে যে কোন বিভাগ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। বেতন হবে জাতীয় স্কেলের নয় হাজার ৩০০ থেকে ২৬ হাজার ৫৯০ টাকা গ্রেডে।

স্থানীয় জনগণকে যথাযথ সেবা প্রদান, ইউনিয়ন পর্যায়ে বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসূচী বাস্তবায়ন, তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকার নিবন্ধনকরণ এবং ডাটাবেইজ তৈরি ও হালনাগাদকরণ, ডাটাবেইজের মাধ্যমে উপকারভোগী ও স্কিম বাছাই, সনদপত্র প্রস্তুতসহ নানাবিধ কাজে ইউনিয়ন পরিষদকে সহযোগিতার জন্য এসব স্থানীয় ইউপি সচিবকে কাজে লাগানো প্রয়োজন। স্থানীয় প্রশাসনিক কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজে লাগাতে এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রশাসনিক ইউনিটকে কার্যকর করতে ইউপি সচিবদেরও পুঁথিগত বিদ্যার মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে তাদের জ্ঞানের পরিধিকে বিচিত্রমূখী করতে হবে। শুধু তথ্য সংগ্রহ নয়, সত্যিকারের লব্ধ জ্ঞান অর্জন করে সমাজ পরিবর্তনের প্রতিভূ হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। আর তা সম্ভব হলেই প্রশাসনের সর্বনিুস্তর থেকেই টেকসই উন্নয়ন পত্রাশুরু হবে। দীর্ঘ মেয়াদি হবে জনগণের কাক্সিক্ষত লক্ষ্য পূরণের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন। জনপ্রতিনিধি সত্যিকার অর্থেই জনকল্যাণ আত্মোনিয়োগ করতে সমর্থ হবে।

Leave a Reply