হালিশহর থানা শাখার বিশ্ব সুন্নী আন্দোলনের শানে খাজাবাবা ও শানে জামিয়ে আওলিয়া (রঃ) সম্মেলন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৬ এপ্রিল ২০১৭, রবিবার: দ্বীনের প্রকৃতধারা তথা আওলিয়া কেরামের নির্দেশিত পূর্ণাংগ পথের পূণরূজ্জীবন এবং মিল্লাত ও মানবতার স্বাধীনতার পূণরূদ্ধারে শানে খাজাবাবা ও শানে জামিয়ে আওলিয়া রাহমাতুল্লাহি আলাইহিম সম্মেলনে গুরূত্ত্বপূর্ণ প্রস্তাব ও দুনিয়ার সকল মুমিন ভাইবোন সবার প্রতি আকুল আবেদন- ইমাম হায়াত
শানে খাজাবাবা ও শানে জামিয়ে আওলিয়া রাহমাতুল্লাহি আলাইহিম উপলক্ষে বিশ্ব সুন্নী আন্দোলন, হালিশহর থানা শাখার উদ্দ্যোগে বিশ্ব সুন্নী আন্দোলন, হালিশহর স্থানীয় কার্যালয়ে গতকাল এক বিশাল সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
আরিফ আল ইসলাম এর সভাপতিত্ত্বে ও রায়হান মোস্তাক এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে প্রধান মেহমান হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ব সুন্নী আন্দোলনের সম্মানিত নেতা জনাব আল্লাম শেখ নঈমউদ্দীন, বিশেষ অতিথী হিসাবে বক্তব্য রাখেন জনাব রায়হান রেজা, উক্ত সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন এডভোকেট নুছরাত আফরিন নূহা, লেখক ও গবেষক জনাব সাহাবউদ্দিন, জনাব মঈনউদ্দীন(মনি), জনাব আমির হোসেন, জনাব আশরাফুল আলম(জুয়েল),জনাব সাহফুল ইসলাম, জনাব শামিম উদ্দিন, কামরুন নাজাত, শাহানা আক্তার পারুল, মানজার আলম, শওকত ওয়াসি, রিয়াজ আহমেদ(মুন্না), তাহের হোসেন, শহিদুল ইসলাম ফরহাদ,এম-এন হোসাইন, গোলাম আহমেদ(রিয়ান) এন-এম তারেকুল ইসলাম প্রমুখ।
সম্মেলনে বক্তাগণ ইমাম হায়াতের বক্তব্য উদ্রিতি দিয়ে বলেন, ইসলামের ছদ্মবেশে দয়াময় আল্লাহতাআলার শত্রু, ঈমানী অস্তিত্ত্বের উৎস প্রাণপ্রিয় শানে রেসালাতের খেলাফ, মহামহিম পবিত্র আহলে বায়েত-মহামান্য খোলাফায়ে রাশেদীন-মকবুল সাহাবায়ে কেরাম-সত্যের ইমামবৃন্দ ও আওলিয়া কেরামের বিরূদ্ধাচারী, দ্বীন বিকৃতিকারী, কোরআনুল কারীম ও হাদিস শরীফের অপব্যাখ্যাকারী, মানবতা বিধ্বংসী, জীবনের শত্রু, খুনী, সন্ত্রাসী, উগ্রবাদী, সালাফী-লামজহাবী-ওহাবী-শিয়া-তবলীগি ইত্যাদি বাতেল ফেরকা সামাজিক ও রাজনৈতিক ভাবে দুনিয়াব্যাপী ইসলামের প্রকৃতধারা আহলে সুন্নাতকে ধ্বংস ও উৎখাত করে তাদের বিকৃত মতবাদকে ইসলাম হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার জন্য প্রকৃত ইসলামের বিরূদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছে এবং কেবলাভূমিসহ প্রায় সব কিছু দখল করে নিয়েছে। তিনি উল্লেখ করেন, দুনিয়ার যেখানেই এসব বাতেল ফেরকার জবর দখল ঘটেছে সেখানেই মহান শানে রেসালাতের খেলাফ বদআকিদা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ঈমান হরণ, দ্বীন ও শরিয়তের চরম বিকৃতির মাধ্যমে খুন-সন্ত্রাস-বর্বরতা-বোনদের শিক্ষা ও বিকাশ রূদ্ধকরণ, আওলিয়া কেরামের পবিত্র মাজার শরীফ সমূহ বিধ্বস্ত করে ও সব মানুষের অধিকার স্বাধীনতা হরণ করে কূফর-জুলুম-খুন-সন্ত্রাস-স্বৈরদস্যুতা কায়েম করেছে।
ইসলামের ছদ্মবেশী বাতেল ফেরকা, জীবন বিণাশী বস্তুবাদী মতবাদ, বিভিন্ন ধর্মের ছদ্মনামে অধর্ম উগ্রবাদ ও এ তিন অপশক্তির সৃষ্ট মানবতা বিণাশী গোষ্ঠিবাদী রাষ্ট্রব্যবস্থা ও বিশ্বব্যবস্থার ধ্বংসাত্মক গ্রাসে সত্য-ন্যায়-সুুবিচার-অধিকার-স্বাধীনতা ও জ্ঞানের প্রবাহ রূদ্ধ এবং দ্বীন-মিল্লাত- মানবতা অস্তিত্ত্বের মহা সংকটে নিপতিত উল্লেখ করে বলেন এ ধ্বংসাত্মক দূরবস্থায় দ্বীনের প্রকৃতধারা আহলে ছুন্নাতের দায় দায়িত্ত্ব উপলব্ধির আহ্বান জানান। এ ভয়ংকর বিণাশী অবস্থার জন্য, (ক) আমরা দ্বীনের প্রকৃতধারা আহলে সুন্নাত তথা ছুন্নী ভাইবোনদের দুনিয়াব্যাপী যুগ যুগ ধরে দ্বীনের পূর্ণাংগ রূপরেখা তথা আধ্যাত্মিক ও রাজনৈতিক সব দিকে পূর্ণ অটল হয়ে এগিয়ে না চলে কোন এক দিকে গন্ডীবদ্ধ হয়ে থাকা, (খ) বস্তুবাদের কলুষতার প্রভাবে এবং হীন স্বার্থান্বেষীদের শিকার হয়ে বিভিন্নভাবে বিভক্ত ও বিচ্ছিন্ন হয়ে পারস্পরিক বিদ্বেষে লিপ্ত হয়ে মিল্লাতের ঐক্য-ভ্রাতৃত্ত্ব-শক্তি বিনষ্ট করা, (গ) কখনও হক-বাতেল একাকার করে বা কোন বাতেল জালেম অপশক্তির সহযোগী হয়ে আবার কখনও আইন আমলের বাড়াবাড়ি করে বিণাশী পথে চলা এবং (ঘ) আওলিয়া কেরামের পথ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে নিকট ইতিহাসে যুগের পর যুগ একের পর এক কলেমার চেতনা পরিপন্থী-দ্বীন বিণাশী- মিল্লাত বিধ্বংসী-মানবতা ধ্বংসাত্মক আত্মঘাতী রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত সমূহকে সম্মেলনে দায়ী করা হয়।
সম্মেলনে দয়াময় আল্লাহতাআলা ও তাঁর হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রেমে উৎসর্গীকৃত তথা আওলিয়া কেরামের আপন সকল ঈমানদার ভাইবোনদেরকে এ চরম ভয়াবহ ধ্বংসাত্মক অবস্থায় দ্বীন-মিল্লাত-মানবতার অস্তিত্ত্ব রক্ষায় সর্ব বাতেলের কবল মুক্ত হয়ে নিজেদের নির্ভেজাল ও পূর্ণাংগ পথে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আকুল আবেদন জানিয়ে বলেন, অবিলম্বে সময়ের সঠিক পথে সঠিক লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী ব্যাতীরেকে জীবন-দ্বীন-মিল্লাত-মানবতা সর্বপ্রকার বাতেল জালেম অপশক্তির গ্রাসে বিলীন হয়ে যাবে, যার জন্য পবিত্র কলেমা ও শাহাদাতের কারবালার ঈমানী অঙ্গীকারে ব্যর্থতা ও আমানতের খেয়ানত হিসেবে আমাদের সবাইকে দায়ী থাকতে হবে। দুনিয়াব্যাপী ঈমানী একাত্মতা ও মানবিক ভ্রাতৃত্ত্ব গড়ে তোলার মাধ্যমে সকল প্রকার বাতেল জালেম অপশক্তির কবল থেকে দ্বীন-মিল্লাত-মানবতার পূণরূদ্ধারে পবিত্র কলেমার আলোকধারায় সত্যের মুক্ত প্রবাহ ও মুক্ত জীবনের সর্বজনীন মানবিক বিশ্বব্যবস্থা গড়ে তোলার বিপ্লবী লক্ষ্যে সম্মেলনে উপস্থিত সবাই আন্তরিক অঙ্গীকার ঘোষনা করেন। প্রেমময় রহমতময় পবিত্র সালাতু সালামের মাধ্যমে এ সম্মেলন সুসম্পন্ন হয়।

Leave a Reply