প্যারেনকাইমাল লিভারের রোগে ওষুধের প্রতিক্রিয়া সব সময় আগে থেকে অনুমান করা যায় না

ডা: মো: ফারুক হোসেন, ১৫ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার: প্যারেনকাইমাল লিভারের রোগে ওষুধের প্রতিক্রিয়া সব সময় আগে থেকে অনুমান করা যায় না। ওষুধের মাঝে টেট্রাসাইক্লিন, ইরাইথ্রোমাইসিন, এস্টোলেট, মনোঅ্যামাইন অক্সিডেজ ইনহিবিটর এবং ফিনাইলবুটাজন-জাতীয় ওষুধ কম-বেশি হেপাটোটক্সিক বা লিভারের জন্য ক্ষতিকারক। তাই লিভারের রোগে দাঁত ও মুখের চিকিৎসায় এ জাতীয় ওষুধ পরিহার করা উচিত। ক্লিন ডামাইসিন, ডেসফ্লুরেন, মেট্রোনিডাজল এমনকি প্যারাসিটামল-জাতীয় ওষুধ স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে কম মাত্রায় প্রদান করতে হবে। এসব ওষুধের বিকল্প ওষুধ ব্যবহার করা গেলে তা অবশ্যই দেয়া উচিত। প্যারেনকাইমাল লিভারের রোগে ব্রেনের মেটাবলিজম বা বিপাকক্রিয়া অস্বাভাবিক হতে পারে এবং ব্রেন অতি মাত্রায় সংবেদনশীল হতে পারে কিছু ওষুধ সেবনের কারণে। প্যারেনকাইমাল লিভারের রোগে সিডেটিভস, হিপনোটিকস, ট্রাঙ্কুলাইজার এবং অপিয়ডস-জাতীয় ওষুধ সেবন করলে এনসেফালোপ্যাথি অথবা কমা পর্যন্ত হতে পারে। ওষুধের এসব প্রতিক্রিয়া বেড়ে যেতে পারে ওষুধের হ্রাসকৃত প্রোটিন বাইন্ডিংয়ের কারণে। দাঁত ও মুখের চিকিৎসায় এসব ওষুধ প্রয়োগের প্রয়োজন হলে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে প্রয়োগ করতে হবে। দাঁতের চিকিৎসায় লোকাল অ্যানেসথেসিয়া নিরাপদ। তবে লিগনোকেইন লোকাল অ্যানেসথেসিয়ার চেয়ে প্রিলোকেইন অধিক নিরাপদ। মুখের তীব্র ব্যথার কারণে যদি বেনজোডায়াজিপিন দ্বারা ইন্ট্রাভেনাস সিডেশন বা ঘুমের ওষুধ প্রয়োগের প্রয়োজন হয়, সে ক্ষেত্রে রিলেটিভ এনালজেসিয়া অধিকতর নিরাপদ।
দাঁত ও মুখের চিকিৎসায় জেনারেল অ্যানেসথেসিয়া যদি একান্তই প্রয়োজন হয়, তবে তা একজন অভিজ্ঞ অ্যানেসথেসিওলজিস্টের তত্ত্বাবধানে করা উচিত। অ্যানেসথেসিয়ার আগে প্রিমেডিকেশনে অপিয়ড-জাতীয় ওষুধ কোনোভাবেই দেয়া যাবে না।
প্যারেনকাইমাল লিভারের রোগে রোগীর রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই প্যারেনকাইমাল লিভারের রোগীর মুখের কোনো সার্জারি প্রয়োজন হলে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। রক্ত পরীক্ষায় যদি দেখা যায় প্রথম দিন টাইম বেশি হয়, তবে সে ক্ষেত্রে ভিটামিন কে ১০ মিলিগ্রাম (ফাইটোমেনাডিওন) প্রতিদিন ইনজেকশন আকারে কয়েক দিনের জন্য প্রদান করতে হবে অপারেশনের আগে। তা ছাড়া রোগীকে খাবার গ্রহণের সময় গুরুপাক খাবার পরিহার করা উচিত। স্বাভাবিক খাবারের পাশাপাশি সম্পূরক খাবার হিসেবে গ্যানোডার্মা লুসিডাম প্রজাতির মাশরুম প্যারেনকাইমাল লিভারের রোগে সেবন করা যেতে পারে। কারণ গ্যানোডার্মা লুসিডাম প্রজাতির মাশরুমে লিভারের জন্য উপকারী শক্তিশালী গ্যানোডারিক এসিড আরএস এবং টি বিদ্যমান। তবে সব চিকিৎসাই একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শক্রমে গ্রহণ করা উচিত। তাই লিভারের রোগীদের মুখ ও দাঁতের চিকিৎসা অত্যন্ত সতর্কতার সাথে সম্পন্ন করতে হবে। পাশাপাশি লিভারের রোগী ও চিকিৎসার ক্ষেত্রে আরো অধিক সচেতন হতে হবে। লেখক : ওরাল অ্যান্ড ডেন্টাল সার্জন, শাহ্ আলী মিরপুর মাজার শরিফ জেনারেল হাসপাতাল। ফোন : ০১৮১৭৫২১৮৯৭, গ্রন্থনা: ফারজানা হোসেন নাজমা

Leave a Reply