গণপরিবহনে ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৫ এপ্রিল, ২০১৭, শনিবার: গণপরিবহনে ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য, যাত্রী হয়রানি ও বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে আজ থেকে রাজধানীতে সিটিং সার্ভিস বন্ধ হচ্ছে। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে সিটিং সার্ভিস বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় ঢাকা পরিবহন মালিক সমিতি।
গত ৪ এপ্রিল রাজধানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে সিটিং সার্ভিস বন্ধ ঘোষণা করে পরিবহন মালিক সমিতি। ঘোষণা অনুযায়ী আজ থেকে রাজধানীতে সিটিং সার্ভিস, গেটলক বা বিরতিহীন সার্ভিস নামে কোনো গণপরিবহন থাকবে না। গণপরিবহণগুলোকে সমিতির পক্ষ থেকে দেয়া বিআরটিএ নির্ধারিত চার্ট অনুসরণ করে ভাড়া আদায়ের কথা বলা হয়। ভাড়ার তালিকা বাসের ভেতর দৃশ্যমান স্থানে টানিয়ে রাখতে হবে। রুট পারমিট অনুযায়ী এসব পরিবহনকে চলতে হবে।
সে অনুযায়ী আজ থেকে চার্টের নির্ধারিত ভাড়া ছাড়া কোনো পরিবহন অন্যভাবে টাকা আদায় করতে পারবে না। এসব সিদ্বান্ত বাস্তবায়নের জন্য মালিক সমিতির পক্ষ ভিজিলেন্স টিম রাস্তায় সক্রিয় থাকবে বলে সেদিনের সংবাদ সম্মেলনে পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েতুল্লাহ খান জানিয়েছিলেন।এছাড়া রঙচটা, রংবিহীন ও জরাজীর্ণ গাড়িগুলো দৃষ্টিনন্দন করে রাস্তায় চালানোর জন্য বলা হয়।
যারা আইন অমান্য করে সিটিং সার্ভিসের নামে টাকা আদায় করবেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিআরটিএ এবং ডিএমপিকে চিঠি দেয়া হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছিল।
তবে আজ সকালে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে সরেজমিনে গিয়ে এখনো সিটিং সার্ভিস চলার দৃশ্য দেখা গেছে। নির্ধারিত চার্ট অনুযায়ী টাকা না নেয়ায় অনেককে বাসের কন্ডাকটারের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েতে দেখা গেছে।
যাত্রাবাড়ী থেকে বাংলামোটর আসার জন্য শিখর পরিবহনে উঠেছেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী জহিরউদ্দিন মিশু। এ সময় বাসের কন্ডাকটরের সঙ্গে তাকে তর্কে জড়িয়ে পড়তে দেখা গেছে। সিটিং সার্ভিসে যাত্রাবাড়ী থেকে মিরপুরের ভাড়া ৩০ টাকা হলেও এই সার্ভিসে বাংলামোটর আসতে মিরপুরের ভাড়াই নেয়া হচ্ছে। কিন্তু ওই যাত্রী ৩০ টাকা না দেয়ায় কন্ডাকটরের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হচ্ছে। রাজধানীর আরও কয়েকটি সড়কে এমন দৃশ্য চোখে পড়লেন মালিক সমিতির ভিজিলেন্স টিমকে রাস্তায় দেখা যায়নি।

Leave a Reply