সকাল-সকাল ঘুম থেকে ওঠা খুবই জরুরি

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১২ এপ্রিল, ২০১৭, বুধবার: কাজের প্রয়োজনে বা সুস্বাস্থ্যর জন্য, কারণ যাই হোক, সকাল-সকাল ঘুম থেকে ওঠা খুবই জরুরি। এই জন্যই ইংরেজিতে খুবই প্রচলিত একটি প্রবাদ রয়েছে, “আরলি টু বেড অ্যান্ড আরলি টু রাইজ, মেকস এ ম্যান হেলদি, ওয়েলদি অ্যান্ড ওয়াইজ”। মানে জীবনে স্বাস্থ্যবান, বিত্তবান ও জ্ঞানী হতে হলে সকাল-সকাল ঘুম থেকে ওঠার কোনো বিকল্প নেই। কিন্ত সকালে ওঠাইতো শেষকথা না। সারাদিনের ধকল সামলানোর জন্য দিনের শুরুটা হতে হবে সঠিকভাবে। সেজন্যই আপনার সকালকে দিতে হবে আলাদা গুরুত্ব। আর তাই ঢাকাটাইমস লাইফ স্টাইল নিয়ে এসেছে আপনার সকালকে সঠিকভাবে শুরু করার কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস।
১) অ্যালার্ম স্নুজকে না বলুন
সকালে অ্যালার্ম বেজে উঠলে আমরা প্রায় সবাই সেটা স্নুজ মুডে দিয়ে ঝিমাতে থাকি। আবার অ্যালার্ম বাজলে আবারো স্নুজ করি। কিন্তু আপনি জানেন কি, আপনি যত বেশি স্নুজ করেন আপনার ঠিক ততটাই খারাপ লাগে? তাই উচিৎ প্রথম অ্যালার্মেই উঠে যাওয়া। ঘুমের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করেই যদি আপনার দিনের শুরু হয়, এর থেকে ভাল শুরু আর কি হতে পারে? আর এতে আপনি নিজেও অনেক ভাল অনুভব করবেন।
২) ঘুম থেকে উঠেই পুরো এক গ্লাস পানি পান
আপনি ঘুমানোর সময় কতটুকু পানি পান করেন? জি, একটুও না। তাই যুক্তি এবং বিজ্ঞান বলে ঘুম থেকে উঠেই বড় এক গ্লাস পানি পান করতে। এতে করে আপনার পানির অভাব পূরণ হয়ে শরীর জেগে উঠে ও সারাদিন আপনাকে প্রাণবন্ত রাখতে সাহায্য করে
৩) ঠিকঠাক নাস্তা করুন
যুক্তি বলে সকালের নাস্তা হচ্ছে ৮-১০ ঘণ্টা ঘুমের পর আপনার প্রথম খাবার। এটিই আপনাকে সারাদিনের জন্য শক্তি যোগাবে। অনেকেই বলেন যে সকালে ঘুম থেকে উঠে খাওয়ার রুচি থাকে না, অথবা তারা প্রায়ই সকালের নাস্তা করেন না এবং এতে তাদের তেমন কোনো সমস্যা হয়না। কিন্তু আপনি যদি যথাযথভাবে সকালের নাস্তা সেরে নেন তাহলে সমস্যা তো দূর, আপনি আরও সারাদিনের ধকল সামলানোর জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত হয়ে যাবেন।
৪) যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সূর্যালোকে যান
ঘুম ভাঙ্গার সঙ্গে সঙ্গেই ঘরের পর্দা সরিয়ে দিন। আরও ভাল হয় যদি বাইরে বেরিয়ে সূর্যস্নান করতে পারেন। এমনকি যদি আপনার ঘুম থেকে উঠতে নাও ইচ্ছা করে তবে পর্দাগুলো সরিয়ে আবার বিছানায় শুয়ে রোদ পোহান।
সূর্যরশ্মির অন্তঃপ্রবাহ আপনার দেহকে জানিয়ে দেয় যে জাগার সময় হয়েছে। দিনের আলো আমাদের নিদ্রালু হরমোন ‘মেলাটোনিন’ কমিয়ে দেয় যা আমাদের জেগে উঠতে সাহায্য করে।
৫) ব্যায়াম করে চাঙ্গা হন
ঘুম ঘুম ভাব দূর করার সবচেয়ে উপযোগী উপায় হচ্ছে ব্যায়াম করা কিন্তু এটি করতে নিজেকে অনুপ্রাণিত করা অনেক কঠিন। তাই ব্যাপারটিকে সহজ করার জন্য নিজের বায়ামের কাপড় রাতেই বিছানার পাশে নিয়ে ঘুমান। পুরো শরীরের ব্যায়াম করার জন্য যদি আপনার হাতে সময় না থাকে তবে ২০ টি ‘স্টার জাম্প’ করুন তাতেই আপনি অনেক সজীব অনুভব করবেন
৬) ধ্যান করুন
যদি সাত সকালে লাফালাফি করার চেয়ে ধ্যান করে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন তবে প্রতিদিন সকালে দশ মিনিট সেটাই করুন। ধ্যান আপনাকে অনেক ভাল ফলাফল উপহার দিবে। আপনার দেহ, মন দুটোই চাঙ্গা থাকবে ও আপনি প্রশান্তি লাভ করবেন।
৭) আগে আগে ঘুমাতে যান
এটা হচ্ছে এই লেখার সবচেয় জরুরি পরামর্শ। এ নিয়ে কোনো সংশয়েরই অবকাশ নেই। সকালের চনমনে ভাব পেতে আপনাকে রাতে ৭-৯ ঘণ্টা ঘুমাতেই হবে। রাত জাগবেন না যে কারণই থাকুক না কেন। ‘একটু পর, একটু পর’ না করে ঘুমিয়ে পড়বেন।
৮) একটা বাড়িত অ্যালার্ম ঘড়ি অন্য ঘরে রাখুন
আপনার যদি সকালে ঘুম থেকে উঠতে সত্যি সত্যিই অনেক কষ্ট হয় তাহলে আপনি বাড়তি একটা অ্যালার্ম ঘড়ি অন্য একটা ঘরে রাখতে পারেন। আপনার ঘরে বিছানার কাছে রাখা অ্যালার্ম ঘড়ি যদিও হাত দিয়ে বন্ধ করতে পারেনও, বাড়তি ঘড়িটি কিন্তু আপনাকে বিছানা থেকে উঠে গিয়েই বন্ধ করতে হবে।

Leave a Reply