মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজের একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১০ এপ্রিল, ২০১৭, সোমবার: গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষামন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব গত ৬ এপ্রিল ২০১৭-এ ৩৭.০০.০০০০.০৭৩.৪১.১২০.১৭-১১৫ স্মারকমূলে নগরীর স্বনামধন্য মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজ-এর একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড, চট্টগ্রামের চেয়ারম্যানকে তা কার্যকর করার নির্দেশ দেয়। কোন নোটিশ ছাড়াই আকস্মিক এই সিদ্ধান্তে হতবাক হয়ে যায় সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রশাসনসহ সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবক-অভিভাবিকা ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। উল্লেখ্য, সরকারি নীতিমালা ও সিদ্ধান্তের প্রতি বরাবরই উক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শ্রদ্ধা পোষণ করে আসছে। ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসক কর্তৃক প্রেরিত চিঠির বিস্তারিত জবাবও যথাসময়ে প্রেরণ করে মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজ। অতঃপর জেলা প্রশাসনের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ম্যাজিস্ট্রেট-এর নেতৃত্বে উক্ত প্রতিষ্ঠানে তদন্ত টিম প্রেরণ করা হয় এবং অভিযোগের প্রতিটি পয়েন্টে প্রতিষ্ঠানটি নির্দোষ প্রমাণিত হয়। তাই একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিলের আকস্মিক সিদ্ধান্তকে উদ্দেশ্য প্রণোদিত মনে করে প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত অসংখ্য শিক্ষার্থীর স্বাভাবিক জীবন ও লেখাপড়া অক্ষুণœ রাখার স্বার্থে প্রাতিষ্ঠানিক লেখাপড়ার মান ও অবস্থান তুলে ধরে আজ ১০ এপ্রিল ২০১৭-এ মাননীয় হাইকোর্টে ৫১৩৭/২০১৭ স্মারকমূলে রিট পিটিশন দাখিল করে মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজ। আনন্দের বিষয় এই যে, মহামান্য হাইকোর্টের নিয়মিত বেঞ্চে মাননীয় বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম এবং আশীষ রঞ্জন দাশ একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিলের সিদ্ধান্তকে স্থগিত ঘোষণাপূর্বক রায় প্রদান করেন এবং এক সপ্তাহের মধ্যে একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিলের সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট প্রত্যেককে হাইকোর্টে উপস্থিত থেকে ব্যাখ্যা প্রদানের নির্দেশ প্রদান করেন। এই স্থগিতাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে এখন থেকে মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজ-এর সব ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম পূর্বের মতোই স্বাভাবিক হয়ে গেল এবং শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় আর কোন বাধা থাকলো না। মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ্ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও পক্ষপাতমূলক আচরণের বিরুদ্ধে অর্জনকৃত এই রায়ে মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে শোকরিয়া জ্ঞাপন করেন এবং অভিভাবকদের নিকট থেকে বরাবরের মতোই সহযোগিতা কামনা করেন।

Leave a Reply