খুলনা-কলকাতা রুটে পরীক্ষামূলকভাবে প্রথম যাত্রীবাহী ট্রেন মৈত্রী এক্সপ্রেস-২ যাত্রা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৮ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার: খুলনা-কলকাতা রুটে পরীক্ষামূলকভাবে প্রথম যাত্রীবাহী ট্রেন মৈত্রী এক্সপ্রেস-২ যাত্রা শুরু করেছে। শনিবার সকাল আটটা ১০ মিনিটে পাঁচটি বগি নিয়ে লাল-সবুজ ট্রেনটি খুলনা রেলস্টেশন থেকে কলাকাতার উদ্দেশে রওনা হয়। তবে বেনাপোল রেলস্টেশনে পৌঁছার পর ট্রেনটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হওয়ার কথা রয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিল্লি থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এক্সপ্রেস ট্রেনটির উদ্বোধন করবেন। এ সময় বেনাপোল বন্দরে উপস্থিত থাকবেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক।
ট্রেনটিতে যাত্রী হিসেবে রয়েছেন রেলওয়ে মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মিজানুর রহমান মিজান এমপিসহ সাধারণ মানুষ। ট্রেনটিতে রেলওয়ের পদস্থ কর্মকর্তারা যাত্রী হিসেবে রয়েছেন। ব্রিটিশ আমলে ১৮৮৪ সালে খুলনা থেকে কলকাতার দমদম পর্যন্ত ট্রেন চালু হয়। ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধের সময় বন্ধ হয়ে গেলেও স্বাধীন বাংলাদেশে আবারও ট্রেন চালু হয় এই রুটে। তবে লোকসানের কারণে ১৯৭৪ সালের পর এই পথে আর ট্রেন চলেনি।
২০১৫ সালে খুলনা থেকে কলকাতায় সরাসরি ট্রেন চালুর উদ্যোগ নেয় দুই দেশের রেল মন্ত্রণালয়। সব প্রস্তুতি শেষে আজ এই রুটে ট্রেনের যাত্রা শুরু হবে। মৈত্রী এক্সপ্রেস-২ খুলনা থেকে যাত্রী নিয়ে বেনাপোল পৌঁছার পর ইমিগ্রেশন ও কাস্টমসের কার্যক্রম শেষে ভারতের পেট্রাপোল হয়ে যাবে কলকাতায়। সরাসরি ট্রেন চালু হওয়ায় কলকাতার সঙ্গে যোগাযোগ সহজ হবে বলে মনে করছেন খুলনাবাসী।
উদ্বোধনের পর থেকে দ্বিতীয় মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনটি সপ্তাহে একদিন চলাচল করবে। পরে ট্রিপ বাড়ানো হবে। তিন ঘণ্টার মধ্যে ব্যবসায়ী, পর্যটক, রোগীরা কলকাতায় পৌঁছতে পারবে। আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে সম্প্রসারণ ঘটবে। দুই দেশের মানুষ যাতে আরও অল্প খরচে, স্বল্প সময়ে ও নিরাপদে স্বাচ্ছন্দে ভ্রমণ করতে পারেন, সেলক্ষ্যে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ২০০৮ সালের ১৪ এপ্রিল ঢাকা-কলকাতা রুটে মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন চালু হয়। এবার দুই দেশের রেল নেটওয়ার্কে যুক্ত হচ্ছে খুলনা।

Leave a Reply