পর্যটকের কোলাহল আর উচ্ছ্বাসে সরগরম কক্সবাজার

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, রবিবার: বিপুল সংখ্যক পর্যটকের কোলাহল আর উচ্ছ্বাসে এখন সরগরম কক্সবাজার। আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসের ছুটি থেকে শুরু করে সাপ্তাহিক ছুটি আর মহেশখালীর আদিনাথে শিব চর্তুদশী মেলা ঘিরে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের শহর কক্সবাজারে আগমন ঘটেছে হাজার হাজার দেশি-বিদেশি পর্যটকের। পর্যটকের চাপে কক্সবাজারের হোটেল-মোটেল এলাকাগুলোতে রীতিমতো যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।
বিপুল পর্যটকের আগমনে খুশির ঝিলিক ব্যবসায়ীদের মুখে। পরিবার-পরিজন, বন্ধুবান্ধব কিংবা পছন্দের মানুষকে নিয়ে পর্যটকরা ছুটে আসছেন কক্সবাজারে।
সৈকতের বালিয়াড়ি, দর্শনীয় পর্যটন স্পট, সমুদ্রের নোনাজল, ঝাউবীথি- সর্বত্র এখন পর্যটকদের কোলাহল। সাগরের ঢেউয়ের তালে তালে জলে গা ভাসিয়ে আনন্দ উপভোগ করছেন ভ্রমণপিপাসু পর্যটকরা। শনিবার দুপুরে সরেজমিনে সমুদ্র সৈকতসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পট ঘুরে দেখা গেছে এসব দৃশ্য।
বিকেলের দিকে সৈকতের বালিয়াড়িতে পর্যটকদের ভিড়ের পাশাপাশি সৈকততীরে যোগ দেয় স্থানীয় ভ্রমণপিপাসুরা। পর্যটকের ভিড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে হোটেল-মোটেল জোন এলাকা, কলাতলীসহ সৈকতের আশপাশের বিভিন্ন এলাকায়। যানজট নিয়ন্ত্রণে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের হিমশিম খেতে দেখা গেছে।
সাগরে গোসলরত পর্যটকদের নিরাপত্তায় কাজ করছেন রবি লাইফ গার্ডের সদস্যরা। লাইফ গার্ডের ইনচার্জ সৈয়দ নুর বলেন, ‘একসঙ্গে বিপুল পর্যটক সাগরে গোসল করতে নামছে। তাই তাদের নিরাপত্তায় আমাদের এখন বাড়তি সতর্ক থাকতে হচ্ছে সব সময়।’

কক্সবাজার হোটেল-মোটেল-গেস্ট হাউজ মালিক সমিতির সভাপতি ওমর সুলতান বলেন, গত কয়েক দিন ধরে বেশ কয়েকটি হোটেলের রুম অগ্রিম বুকিং রয়েছে। বিপুল পর্যটকের আগমনে হোটেল ব্যবসায়ীরা দারুন খুশি বলে জানান তিনি।
দিকে বিপুল পর্যটকের আগমনে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। বিশেষ করে সৈকতে পর্যটকদের নিরাপত্তায় কাজ করছেন ট্যুরিস্ট পুলিশ সদস্যরা। সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রায়হান কাজেমী জানান, আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসের ছুটি থেকে এ পর্যন্ত বিপুল পর্যটক এসেছে কক্সবাজারে। তারা যাতে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার সামনে না পড়ে সেজন্য পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকেও পুলিশ সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন।

Leave a Reply