ষাটের দশকের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা সারাহ বেগম কবরী ষাটের দশকের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা সারাহ বেগম কবরী

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, শনিবার: ষাটের দশকের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা সারাহ বেগম কবরী। তিনি একাধারে প্রযোজক, পরিচালক ও অভিনেত্রী। দীর্ঘদিন আগে ‘এই তুমি সেই তুমি’শিরোনামের একটি চলচ্চিত্র পরিচালনার ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণ এর কাজ শুরু করতে পারছেন না তিনি। কবে নাগাদ এর শুটিং শুরু করতে পারবেন, তাও নিশ্চিত নয়।
সরকারি অনুদানে ছবিটি নির্মাণের জন্যও চেষ্টা করেছেন চলচ্চিত্রের একসময়ের এই ‘মিষ্টি মেয়ে’। কিন্তু দু-দুবার জমা দিয়েও অনুদান পেতে ব্যর্থ হন।
কেন অনুদান পেলেন না- জানতে চাইলে কবরী বলেন, ‘এই তুমি সেই তুমি’ সিনেমার জন্য অনুদান চেয়ে আমি দুবার চিত্রনাট্য জমা দিয়েছিলাম। কিন্তু আমাকে অনুদান দেয়া হয়নি।’
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর সঙ্গে এ ব্যাপারে দেখা করার কথা উল্লেখ করে সাবেক এই সাংসদ বলেন, ‘ইনু সাহেব আমাকে বললেন চিত্রনাট্য আবার জমা দিতে। তার কথায় আমি দুবার জমা দিয়েছিলাম।’ তবু অনুদানের শিকে ছিঁড়েনি কবরীর ভাগ্যে।
কবরী আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমাকে প্রধানমন্ত্রী আজীবন সম্মাননা পুরস্কার দিয়েছেন, সেই আমি সরকারি অনুদানে ছবি নির্মাণের অনুদান পাচ্ছি না। বারবার চিত্রনাট্য জমা দিতে গিয়ে মাঝখানে অনেক টাকা খরচ হয়ে গেছে।’
অনুদান পেতে সব ধরনের নিয়ম-কানুনই পালন করেন তিনি। এমনকি অনুদান কমিটি থেকেও পদত্যাগ করেন। কবরী সারোয়ার ২০০৮ সালে নারায়ণগঞ্জ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সে সময় অনুদান কমিটিতে ছিলেন। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি যখন সংসদ সদস্য ছিলাম তখন একই সঙ্গে চলচ্চিত্রের অনুদানের কমিটিরও চেয়ারম্যান ছিলাম। আমাকে বলা হয়েছিল, অনুদান পেতে কমিটি থেকে পদত্যাগ করতে। আমি পদত্যাগ করি। সবকিছু মেনে সঠিকভাবে অনুদানের জন্য আবেদন করি। তারপরও কিছু হলো না।’
বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের বর্তমান হাল কষ্ট দেয় দেশের কিংবদন্তি অভিনেত্রী কবরীকে। বলেন, ‘এফডিসির অবস্থা খারাপ হয়ে যাচ্ছে। আমাদের চলচ্চিত্র হুমকির পথে। আমাদের কালচার, খেলাধুলার ক্ষেত্রে উন্নত করতে বলা হলেও এভাবে আবার পিছিয়েও রাখা হচ্ছে।’
সারাহ বেগম কবরীর চলচ্চিত্রের অনুদান প্রসঙ্গে যোগাযোগ করা হয় এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তপন কুমার ঘোষের সঙ্গে। কবরীর ‘এই তুমি সেই তুমি’ ছবির অনুদানের বিষয়ে জানতে চাইলে তপন কুমার ঘোষ জানান, তিনি অনুদান কমিটিতে নেই। কমিটির কারো সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শ দেন তিনি।
এ ব্যাপারে তথ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব গৌতম কুমার ঘোষ কবরীর চলচ্চিত্র প্রসঙ্গে বলেন, ‘প্রথমত আমি কমিটিতে নেই। আর অনুদান দেয়ার একটি প্রক্রিয়া রয়েছে। পত্রিকায় আমরা একটি বিজ্ঞাপন দিয়ে অনুদানের জন্য চলচ্চিত্র আহ্বান করি। যেসব চলচ্চিত্র অনুদান পাওয়ার যোগ্য বাছাই কমিটি সেগুলোকে অনুদান দেয়। এর বাইরে আমি কিছু বলতে পারছি না।’
বর্তমানে কবরী একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন শিক্ষকতা করছেন। তার বর্ণাঢ্য জীবনের বিপুল ঘটনা-অভিজ্ঞতা নিয়ে কবরীর লেখা ‘স্মৃতিটুকু থাক’ নামের একটি বই এবারের একুশের বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে। বিপিএল প্রকাশনী থেকে আসা বইটির ভূমিকা লিখেছেন কবি নির্মলেন্দু গুণ।

Leave a Reply