চাক্তাই খালসহ নগরীর ১৩টি উপখালের নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী: চট্টগ্রাম নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, শুক্রবার: চাক্তাই খালসহ তদসংযুক্ত আরো ১৩টি উপখালের অবস্থা বর্তমানে অত্যন্ত নাজুক উল্লেখ করে অবিলম্বে এসব খালের নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে দ্রুত ও কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন, চট্টগ্রাম নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন সংগ্রাম পরিষদ ও প্রগতিশীল সংবাদপত্র পাঠক লেখক ফোরাম। সংগঠনের কেন্দ্রিয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. এনামুল হক লিটন, সাধারণ সম্পাদক সাহেনা আক্তার হেনা, দপ্তর সম্পাদক মো. মাসুদ রানা এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, বাণিজ্যিক খাল হিসেবে খ্যাত চট্টগ্রামের চাক্তাই খালে অবৈধ দখলদারিত্ব, অপরিকল্পিত উন্নয়ন এবং অবাধে আর্বজনা ফেলার কারণে ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে খালটি। অথচ এক সময় এই খালটি দিয়ে কর্ণফুলী নদী হতে বহদ্দারহাট পর্যন্ত বানিজ্যিক পণ্যবাহী নৌযান চলাচল করত। দখলসহ নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার কারণে খালটি দিয়ে এখন নৌ চলাচল বন্ধ হওয়ার পাশাপাশি জোয়ার-ভাটার পানিও প্রবাহিত হতে পারে না। এতে করে নগরীর নৌ বানিজ্যে মন্দাভাব দেখা দেয়ার পাশাপাশি বর্ষা মৌসুম ছাড়াও শুস্ক মৌসুমেও জোয়ার জনিত জটিলতায় নগরবাসীকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এছাড়া দেশের বানিজ্যিক রাজধানিখ্যাত চট্টগ্রাম মহানগরীর জলাবদ্ধতা নিরসণেও খালটির ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে তাঁরা আরো বলেন, শুধু চাক্তাই খালই নয়, তদসংযুক্ত বীর্জাখালসহ আরো ১৩টি উপখালের অবস্থাও বর্তমানে অত্যন্ত নাজুক। ফলে প্রতিবারের বর্ষাতেই নগরবাসীকে জলাবদ্ধতাজনিত অস্বস্তিকর ভোগান্তিতে পড়তে হয়। নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসণের সবচাইতে বড় মাধ্যম এই চাক্তাই খালটি সংস্কারে ইতোপূর্বে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ড্রেজিং করাসহ বেশকিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও অবৈধ দখলদারদের দৌড়াতœ্য দিনদিন বেড়েই চলেছে। ফলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে নগরবাসীকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হবে। বিবৃতিদাতারা নগরবাসীর স্বার্থে অনতিবিলম্বে খালটিকে পূর্বের ন্যায় গতিশীল করা এবং নগরীর সকল নালা-খাল দখল করে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা সমূহ উচ্ছেদের পাশাপাশি চাক্তাই খালসহ নগরীর ১৩টি উপখালের নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে দ্রুত ও কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য চসিক মেয়রসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোরদাবী জানান।

Leave a Reply