শিল্পী জয়া আহসান নওগাঁয় বিউটি সার্কাসের শুটিংয়ে

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, শনিবার: সার্কাসের মালিক ও প্রধান নারী ম্যাজিসিয়ান বিউটি। যার যাদু প্রদর্শনীর কারিশমা আর রুপের উষ্ণতায় পাগল এলাকার তিন প্রভাবশালী ব্যক্তি। বিউটিকে নিজের করে পাবার পাগল প্রতিযোগীতায় একসময় হুমকির মুখে পড়ে যায় পুরো সার্কাসটি। কিন্তু কৌশলী বিউটি নিজ বুদ্ধির জোরে শেষপর্যন্ত কাটিয়ে উঠেন সেই বিপদ।
এমনই গল্পে ‘বিউটি সার্কাস’ ছবিতে বিউটির ভূমিকায় অভিনয় করছেন দেশের প্রখ্যাত অভিনয় শিল্পী জয়া আহসান। নওগাঁর সীমান্তবর্তী সাপাহার উপজেলার ফাঁকা মাঠে এখন পুরোদমে চলছে ছবিটির কাজ। গত ৬ ফেব্রুয়ারি টানা দশদিনের শুটিংয়ে নওগাঁয় যান জয়া।
মাহমুদ দিদারের পরিচালনায় অনুদান প্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘বিউটি সার্কাস’চলচ্চিত্রটি নির্মাণের জন্য নওগাঁর সাপাহার গ্রামে বিশাল পূর্ব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন নির্মাতা ও তার সহযোগীরা।
এ বিষয়ে জয়া আহসান বলেন, প্রচণ্ড শীত, পানির অপ্রতুলতাসহ বেশ কিছু প্রতিকূলতা থাকার পরও কাজটি করে বেশ তৃপ্ত তিনি। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, দেশের অন্যতম সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হচ্ছে সার্কাস। একটা সময় পরিবার নিয়ে সার্কাস দেখতে যাওয়ার প্রচলন ছিল গ্রামবাংলায়। কিন্তু নানা কারণে গতি হারিয়েছে সেই ঐতিহ্যটি। আর তাই সীমান্ত এলাকার এক নারীর জীবিকার তাগিদে নিজ কর্মক্ষেত্রে ভূমিকা রাখার মধ্যদিয়ে সার্কাস সংস্কৃতির সুদিন ফেরানোর একটা চেষ্টা চালানো হবে এই ছবিটির মাধ্যমে।
জয়া বলেন, শুধু তাই নয়; বড় কথা হচ্ছে একজন রুপ ও বিশেষ গুণেভরা নারীকে অনেকেই নিজের করে চায়। কিন্তু বিপদে পড়লে সমাজের সেইসব পুরুষরা কী ধরনের অসহযোগিতামূলক আচরণ করে তাও থাকবে ছবির গল্পে।

তরুণ পরিচালক মাহমুদ দিদার বলেন, তার জীবনে অনেক বড় কাজ এটি। তাই কোনো দিকে না তাকিয়ে শুধুই চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছেন তিনি। তবে তিনি আশা করেন, গ্রামবাংলার বাস্তব চিত্রগুলো এই ছবিতে ফুটে উঠবে, আর তাই মুক্তি পাবার পর সব শ্রেণির দর্শক এটিকে সাদরে গ্রহণ করবে বলে মনে করেন তিনি।
তিনি জানান, জয়া ছাড়াও উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে ছবিতে দেখাযাবে ফেরদৌস ও তৌকির আহম্মেদকেও। আর প্রথমভাগের শুটিংয়ের জন্য টিমটি নওগাঁয় থাকবে আরও কয়েকদিন। নওগাঁ ছাড়াও সিলেটের একটি অঞ্চলেও চলচ্চিত্রটি চিত্রধারণ করা হবে। নির্মাণ কাজ শেষ হবে এ বছরেই। আগামী ঈদে ছবিটি মুক্তি পাবে বলেও আশা করেন পরিচালক মাহমুদ দিদার।

Leave a Reply