ট্রাম্প মেয়ের ব্যবসার পক্ষে সরকারি টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে সমালোচনার মুখে

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, বৃহস্পতিবার: নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজের মেয়ের ব্যবসার পক্ষে সরকারি টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন ।
সম্প্রতি প্রেসিডেন্টের কন্যা ইভাঙ্কা ট্রাম্পের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের পোশাকসহ বেশ কিছু পণ্য বিক্রি বন্ধের ঘোষণা দেয় মার্কিন চেইন শপ নর্ডস্ট্রম কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠানটির এমন সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে ট্রাম্প প্রথমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে নিজের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে মতামত দেন। পরে মেয়ের প্রতি আহ্বাদ দেখাতে গিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের জন্যে নির্ধারিত টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে বসেন ট্রাম্প।
টুইট বার্তায় নর্ডস্ট্রমকে দোষারোপ করে তিনি লেখেন, ‘ইভাঙ্কার সঙ্গে অন্যায় আচরণ করা করেছে নর্ডস্ট্রম কর্তৃপক্ষ। সে একজন মহৎ মানুষ…সবসময় আমাকে সঠিক কাজটি করতে নির্দেশ দেন! ভয়াবহ।’
হোয়াইট হাউজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ব্যক্তিগত ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়ে মন্তব্য করার বিষয়টির তীব্র সমালোচনা করছেন অনেকে। এক ডেমোক্রেট সিনেটর এমন কাজকে খুবই ‘অনুপযুক্ত’ বলে অভিহিত করেন। এর আগে হোয়াইট হাউজের নীতিসংক্রান্ত বিষয় দেখতেন এমন এক ব্যক্তি ট্রাম্পের এহেন কাণ্ডকে ‘ভয়াবহ’ বলে আখ্যা দিয়েছেন।
নর্ম এইজেন নামের সেই ব্যক্তি নর্ডস্ট্রমকে ট্রাম্পের এমন কাজের বিরুদ্ধে স্থানীয় আদালতের শরণাপন্ন হবারও পরামর্শ দেন। পেনসেলভেনিয়ার সিনেটর বব কেসির মুখপাত্র ট্রাম্পের ‘কন্যা প্রীতির’ সমালোচনা করে বলেন, ‘একজন প্রেসিডেন্ট যখন নিজের পরিবারকে সমৃদ্ধ করতে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কথা বলেন তখন এটি খুবই অনৈতিক বলে মনে হয়।’
তবে হোয়াইট হাউজের পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এমন কাজের সাফাই দেয়া হয়েছে। মুখপাত্র সেন স্পাইসার সমালোচনাকারীদের নীতি নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন। স্পাইসার বলেন, ‘এটি সন্তানের হয়ে একজন বাবার পক্ষ অবলম্বন করা- এখানে অন্য কিছু যারা খুঁজছেন তারাই বরং বিপথে রয়েছেন।’
তবে সমালোচনাকারীরা মনে করছেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই ধরনের কার্যকলাপ অনেক বেশি ব্যক্তিগত স্বার্থ সংশ্লিষ্ট।

Leave a Reply