চিটাগাং চেম্বারে “ইকো ট্যুরিজম” শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২০ নভেম্বর, রবিবার: এফবিসিসিআই ও এফএনএফ’র যৌথ উদ্যোগে এবং দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সহযোগিতায় “ইকো ট্যুরিজম” শীর্ষক গোলটেবিল photoroundtableবৈঠক ২০ নভেম্বর সকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন, সভার সভাপতি চিটাগাং চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম, চিটাগাং চেম্বার সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, চেম্বার পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, এফবিসিসিআই’র মহাসচিব মীর শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ, এফএনএফ প্রতিনিধি ড. নাজমুল হোসেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের প্রাক্তন ডীন প্রফেসর হুসাইন কবির, মেরিন ফিসারিজ বিভাগের পরিচালক ড. শাহাদাত হোসেন এবং রাঙ্গামাটি চেম্বার সভাপতি মোঃ বেলায়েত হোসেন ভূঁইয়াসহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্পোর্টস এন্ড ট্যুরিজম স্পেশালিস্ট ড. অনুপম হোসেন। এ সময় পর্যটন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবৃন্দ এবং চেম্বার পরিচালকবৃন্দ এ. কে. এম. আক্তার হোসেন, মোঃ অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন), মোহাম্মদ হাবিবুল হক, অঞ্জন শেখর দাশ ও মোঃ আরিফ ইফতেখার উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথি সিটি মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন বলেন-মালদ্বীপের মত দেশ ইকো ট্যুরিজমে মডেল হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছে। এ উদাহরণ প্রত্যক্ষ করে যথাযথ পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশ সাফল্য লাভ করতে পারে। তবে এক্ষেত্রে সাধারণ মানুষ এবং পর্যটকদের মধ্যে জীব বৈচিত্র ও প্রাকৃতিক পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। তিনি রাঙ্গামাটিসহ পার্বত্য চট্টগ্রামে পর্যটকদের জন্য আধুনিক সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা এবং কক্সবাজারে দেশীয় পর্যটকদের ব্যবহারের জন্য সমুদ্র সৈকতে প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করার উপর গুরুত্বারোপ করেন।
চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার মাধ্যমে ইকো ট্যুরিজমের ক্ষেত্রে সাফল্যলাভ সম্ভব বলে মনে করেন। তিনি বলেন-ঢাকা-চট্টগ্রাম এক্সপ্রেসওয়ে, চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান যোগাযোগের সড়ক দুই লেইন বিশিষ্ট করা হলে পর্যটন খাতে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হবে। সীতাকুন্ড এবং পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত উন্নয়নের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ পর্যটক আকৃষ্ট করা যাবে। ধন্যবাদজ্ঞাপন সূচক বক্তব্যে চেম্বার সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ বিদেশী পর্যটক ও মুদ্রা আহরণের লক্ষ্যে পরিবেশ নিশ্চিতকরণ, নিরাপত্তা বিধান এবং যোগাযোগের উপর গুরুত্বারোপ করেন।
এফবিসিসিআই’র মহাসচিব মীর শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ সূচনা বক্তব্য উপস্থাপন করেন এবং ইকো ট্যুরিজম বিষয়ে পরবর্তী গোলটেবিল রাঙ্গামাটিতে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান। আলোচনায় পর্যটন শিল্প সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ তাদের বিভিন্ন সমস্যা এবং উত্তরণের উপায় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

Leave a Reply