চ্যানেল আইয়ের সংগীত প্রতিভা খোঁজার রিয়েলিটি শো ক্ষুদে গানরাজ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৬ নভেম্বর, বুধবার: চ্যানেল আইয়ের সংগীত প্রতিভা খোঁজার রিয়েলিটি শো ক্ষুদে গানরাজ।এই প্লার্টফর্ম থেকেই উঠে এসেছে অসংখ্য ক্ষুদে কণ্ঠশিল্পী। এদের মধ্যে একজন হলেন নোশিন তাবাসসুম সরণ। গানের ভূবনে তাকে সবাই সরণ নামেই চেনেন। ২০০৮ 1সালের ক্ষুদে গানরাজে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। চ্যাম্পিয়ন না হতে পারলেও সেরা পাঁচে ছিলেন। সেই থেকে সরণের পরিচিতির গন্ডি বাড়তে থাকে। বাড়তে থাকে জনপ্রিয়তাও। সরণের ভরাট কণ্ঠ আর নিজস্ব গায়কীতে শ্রোতারা মুগ্ধ। আর তাইতো ইউটিউব ঘাঁটলে মেলে সরণের অসংখ্য গান। যেগুলো প্রশংসাসূচক নানান মন্তব্য চোখে পড়ে।
২০০৮ থেকে ২০১৬ সাল। পেরিয়ে গেছে আট বছর। সেদিনের সেই ক্ষুদে গান রাজ এখন পরিপূর্ণ শিল্পী। যদিও গত আট বছরে সরণের মাত্র একটি অ্যালবাম প্রকাশ হয়েছে। কিন্তু সেই অ্যালবামটির প্রত্যেকটি গানই জনপ্রিয়তায় তুঙ্গে রয়েছে। অ্যালবামটির নাম সরণের জানালা। ওই অ্যালবামের টাইটেল গান ‘কাছে আসতে মানা’। এই গানটি তরুণদের মুখে মুখে। জনপ্রিয় এই গানটি সরণকে নিয়ে গেছে নতুন উচ্চতায়।
নিজের সর্ম্পকে সরণ ঢাকাটাইমসকে বলেন, ছোটবেলায় আমার গানের হাতেখড়ি বাবার কাছ থেকে। আমার পরিবারের অনেকেই গানের সঙ্গে যুক্ত। দাদা, বাবা, ফুফু সবাই বাংলাদেশ বেতারের তালিকাভূক্ত শিল্পী।তাই আমার ছেলেবেলা থেকেই আমার গানের প্রতি বেজায় দরদ।
সরণ বলেন, ‘গানের প্রতি ভালোবাসা থেকেই ২০০৮ সালে আমি অংশ নেই চ্যানেল আইয়ের ক্ষুদে গানরাজের রিয়েলিটি শোতে অংশ নেই।তখন আমি বগুড়ার বাসিন্দা। ক্ষুদে গান রাজে অংশ নেয়ার জন্য ঢাকায় পাড়ি জমাই। সংগীত চর্চ্চা চলতে থাকে।’
সরণ জানান, ক্ষুদে গানরাজ শেষ হলে তিনি আর বগুড়ায় ফিরে যাননি। ঢাকায় থিঁতু হন। ভর্তি হন ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজে। সেখান থেকে কলেজের গন্ডি পেরিয়ে এখন ইষ্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটিতে ইংরেজি সাহিত্যের শিক্ষার্থী।
যদিও সরণ ছিলেন বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী। শিল্প সংস্কৃতির ঝোঁক থেকেই তার ইংরেজি সাহিত্যেকে আপন করে নিলেন। সেই সঙ্গে তিনি এখন ছায়ানটের অনুপ বড়ুয়ার কাছে গান শিখছেন।
কাছে আসতে মানা গানটি নিয়ে সরণ বলেন আমার গাওয়া আলোচিত এ গানটির কথা, সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল স্যার। গানটি ২০১৪ সালে প্রকাশ পায়। এর পরের বছরই পেয়েছি সিটিসেল-চ্যানেল আই অ্যাওয়ার্ড ও নবাগত আর্টিস্ট পুরস্কার। এ গানটি সত্যিই মুগ্ধ করার মতো একটি গান। এটি শ্রুতি স্টুডিওতে ধারণ করা হয়েছিল। গানটি শ্রোতাদের অনেক মুগ্ধ করেছে যার রেসপন্স আজও পাচ্ছি।’
সরণ জানান, একক অ্যালবাম ছাড়াও তিনি বেশ কয়েকটি মিশ্র অ্যালবামে গান গেয়েছেন। এসব অ্যালবামের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-‘রুপসী বাংলার গান’ও ‘আমার মা রাজকন্যা’। এছাড়াও নাটক ও টেলিফিল্মের জন্য প্লে-ব্যাক করছেন। পাশাপাশি টিভিতে লাইভ শোতো নিয়মিত অংশ নিচ্ছেন।
আগামীর ব্যস্ততা নিয়ে সরণ বলেন, ‘ওয়ালটন নবীণ শিল্পীদের নিয়ে বড় একটি প্রজেক্ট হাতে নিয়েছে। সেখানে আমি গান গাইবো। আমি রুচি সম্মত, সুস্থ ধারার সংস্কৃতির গান নিয়ে থাকতে চাই। ভালো ভালো গান দর্শক-শ্রোতাদের উপহার দিতে চাই । পড়াশোনার পাশাপাশি গানটাকেও প্রাধান্য দিয়েছি।’

Leave a Reply