কুবিতে প্রথমবারের মতো ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৯ নভেম্ববর, বুধবার: প্রতিষ্ঠার এক দশক পর সম্প্রতি কুমিল্লা বিশ^বিদ্যালয়ে (কুবি) প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করা হয়। তবে এ কমিটি নিয়ে ক্যাম্পাসে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। কেননা, কমিটি ঘোষণার আগেও যেমনিভাবে ছাত্রদলের কোনো কর্মকাণ্ড ক্যাম্পাসে চোখে পড়েনি, তেমনি নতুন কমিটিও শুধু কাগজেই সীমাবদ্ধ রয়েছে।1
অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ১৩ অক্টোবর ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ ২৬ জনের নাম উল্লেখ করে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা কমিটির অনুমোদন দেয়। তিন বছর আগে ছাত্রত্ব শেষ হওয়া মার্কেটিং বিভাগের প্রথম ব্যাচের ছাত্র নুরুল আলম চৌধুরী নোমানকে কমিটির সভাপতি করা হয়, যিনি বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন কোর্সের শিক্ষার্থী বলে দাবি করছেন। আর সাধারণ সম্পাদক করা হয় দুই বছর আগে ছাত্রত্ব শেষ হওয়া লোক প্রশাসন বিভাগের দ্বিতীয় ব্যাচের ছাত্র নাসির উদ্দিনকে।
অছাত্রদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম কমিটির অনুমোদন এবং কমিটিতে ত্যাগী ও যোগ্যদের আশ্রয় না হওয়ায় সংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ ও বিবাদের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে কমিটি ঘোষণার সপ্তাহ পেরোতেই কমিটির এক পক্ষের পদত্যাগের কথা শোনা যাচ্ছিল। পরে নানা কৌশলে পরিস্থিতি সামাল দেয়া হয়। তবে এখন পর্যন্ত ক্যাম্পাসে ছাত্রদলের কোনো কর্মসূচি চোখে পড়েনি।
এ বিষয়ে খোঁজ নিতে গেলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ছাত্রদল নেতাকর্মী বলেন, ‘জুনিয়র অনেক কর্মীই সদ্যঘোষিত সভাপতি-সম্পাদককে চিনেন না। এমনকি তাদেরকে কখনও ক্যাম্পাসেও দেখেননি কখনও। এছাড়াও কমিটির উচ্চপদস্থ প্রায় সবারই ছাত্রত্ব শেষ হয়েছে প্রায় দুই-তিন বছর আগে। এই অবস্থায় অছাত্রদের নিয়ে কমিটি ঘোষণার কোনো যৌক্তিকতা নেই।’
নবনিযুক্ত সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী নোমান বলেন, ‘না জেনেই অনেকে আমার ছাত্রত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। আমি এখন বিশ^বিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন কোর্সে ইএমএ করছি।’
নতুন কমিটির কাজ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের কার্যক্রম ইতিমধ্যেই শুরু করেছি। শিগগির আনুষ্ঠানিকভাবে ক্যাম্পাসে কার্যক্রম শুরু করবো।’
নোমান ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের রাজনীতির তীব্র সমালোচনা করে বলেন, ছাত্রলীগ ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করে রেখেছে। যার কারণে তারা সুষ্ঠুভাবে তাদের কার্যক্রম চালাতে পারছেন না।
এ সম্পর্কে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল সভাপতি রাজিব আহসান বলেন, ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল একটি সুসংগঠিত ছাত্র সংগঠন। যারা ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাদের হাতেই নেতৃত্বের ভার দেয়া হয়েছে। আর বর্তমান কমিটি পূর্ণাঙ্গ নয়, পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হলে এ নিয়ে আর কোনো বিতর্ক থাকবে না বলে আশা করি।’

Leave a Reply