ডাক্তার দম্পতিকে অচেতন করে চুরির ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৭ নভেম্ববর, সোমবার: নিজের ফ্ল্যাটে ডাক্তার দম্পতিকে অচেতন করে চুরির ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। ডা. আবু ইউসুফ চৌধুরীর (৭২) গাড়িচালক মো. এমরানই ১০ হাজার টাকা চুক্তিতে মুন্নি আকতারকে গৃহকর্মী সাজিয়ে ‘অচেতন’ করার কাজে লাগিয়েছিলেন। সোমবার (০৭ নভেম্বর) মুন্নী ও এমরানকে গ্রেফতারের পর তারা পুলিশকে এসব তথ্য জানায়। এসব তথ্য জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চকবাজার থানার এসআই বিকাশ চৌধুরী।1
বিকাশ চৌধুরী বলেন, গত ২৮ সেপ্টেম্বর সকাল নয়টার দিকে বাদশা মিঞা চৌধুরী সড়কের আমিরবাগ এলাকায় সানওয়ে ওরিয়ানা নামের অ্যাপার্টমেন্টে ডা. আবু ইউসুফ চৌধুরী ও তার স্ত্রী ফাতেমা রোকেয়াকে (৬০) সকালের নাশতার সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে দিয়েছিল মুন্নী। এরপর মূল্যবান মোবাইল সেট, ঘড়ি ইত্যাদি নিয়ে পালিয়ে যায় সে।
বিষয়টি তদন্তের জন্যে অ্যাপার্টমেন্টটির ম্যানেজার মো. আবদুল কাদেরের সঙ্গে কয়েকবার আলাপ করি। মুন্নীকে খুঁজে বের করার জন্যে তার ওপর চাপ প্রয়োগ করা হয়। তাকে নিয়ে বেশ কিছু এলাকায় আমরা খুঁজতে থাকি। একপর্যায়ে বদনা শাহের (র.) মাজার এলাকায় বেশ কয়েকজন ভাসমান নারীর ভিড়ে মোবাইলে কথা বলার সময় মুন্নীকে শনাক্ত করে আবদুল কাদের। তারপর তাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদে গাড়িচালক এমরান জড়িত থাকার বিষয় উঠে আসলে তাকেও গ্রেফতার করা হয়।
এসআই বিকাশ চৌধুরী বলেন, এমরান ১০ হাজার টাকায় ভাড়া করেছিল মুন্নীকে। এমরানের পরিকল্পনা ছিল ডাক্তার দম্পতিকে অচেতন করে মূল্যবান জিনিসপত্র ও স্বর্ণালংকার চুরি করা। কিন্তু চাবি খুঁজে না পাওয়ায় তারা ড্রয়ার, আলমারি ইত্যাদি ভাঙার চেষ্টা করেও বিফল হয়। শুধু মোবাইল ও ঘড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়।

Leave a Reply