করলা নামটা শুনইে নশ্চিয়ই একবার ভ্রু কুঁচকে উঠবে

নউিজর্গাডনে ডস্কে, ২ নভম্বেবর, বুধবার: করলা নামটা শুনইে নশ্চিয়ই একবার ভ্রু কুঁচকে উঠব।ে আর করলা বললে যে জনিসিটা সবার আগে আগে মনে হয়, তা হল কি ভীষন ততেো। কন্তিু খতেে1 যতই ততিকুটে হোক না কনে, করলা মানইে ভাতরে সঙ্গে বা ডালরে সঙ্গে ভাজা বা উপাদয়ে তরকার,ি যার পুষ্টগিুন অসামান্য তো বটইে। সব বাঙালী ঘরইে তাই এই সবজটিরি কমবশেি কদর রয়ছে।ে পুষ্টবিদিদরে মত,ে প্রতি ১০০ গ্রাম করলায় বশেরিভাগটাই জল র্অথাৎ ৯২.২ গ্রাম, ৪.৩ গ্রাম র্শকরা, ২.৫ গ্রাম আমষি, ১৪ মলিগ্রিাম ক্যালসয়িাম, ২৮ কলিোক্যালোর,ি ১.৮ মলিগ্রিাম লোহা এবং প্রচুর পরমিাণে ভটিামনি সি রয়ছে,ে আর এমন কছিু পুষ্টি উপাদানে ভরপুর যে শরীররে রোগ প্রতরিোধক ক্ষমতাকওে অনকোংশে মজবুত কর।ে ফলে প্রাত্যহকি ডায়টেে যদি করলা রাখনে, তাহলে নানাভাবে আপনি উপকৃত হবনে।
করলার গুনাগুন
নয়িমতি করলা খলেে একদকিে যমেন হাইপারটশেন বা উচ্চ রক্তচাপ নয়িন্ত্রণে থাক,ে তমেনি এটা শরীররে অত্যধকি মদে কমাতওে র্কাযকরী। একদকিে করলা দৃষ্টশিক্তি ভালো রাখ।ে তমেনি শরীরকে ভাইরাস আক্রমনরে হাত থকেে বাঁচায়। অ্যানমিয়িার রোগীদরে তো নয়িমতি করলা খাওয়া উচতি। কনেনা এটি শরীরে হমিোগ্লোবনি তরৈি কর।ে করলা নয়িমতি খলেে ত্বকরেও উপকার হয়, ত্বক থাকে টানটান, ফলে বুকে বা গলায় চট করে বলরিখো পড়ে না। তাই র্দীঘদনি ধরে যদি নজিরে যৌবন ধরে রাখতে চান, তাহলে আজই ডায়টেে সামলি করুন করলা।
মাথাব্যথার সমস্যা কমায়
করলায় থাকা ভটিামনি সি যমেন চুল ও ত্বকরে স্বাস্থ্য বজায় রাখ,ে পাশাপাশি মাথাব্যথা, ম্যালরেয়িার জ্বরও কমায়। স্ক্যাভজি প্রতরিোধ করতে ভটিামনি সি এক অর্ব্যথ দাওয়াই। আবার মাথাব্যথার সমস্যাও কমায় করলা।
টক্সনি বরে করে
করলা শরীর থকেে ক্ষতকির টক্সনি বরে করে দয়ে। এই ধরনরে বষিাক্ত পর্দাথ বরেয়িে গলেে রক্তও থাকে পরশিুদ্ধ।
শ্বাসপ্রশ্বাসরে সমস্যা কমায়
করলা এমন একটা সবজ,ি যাতে রয়ছেে প্রচুর পরমিাণে অ্যান্টঅিক্সডিন্টে। এটি শরীররে যাবতীয় দূষতি পর্দাথ দূর কর,ে পরপিাকক্রয়িাকে করে উন্নত। একগ্লাস জলে করলার রসে মধু মশিয়িে খলেে অ্যাজমা, ব্রংকাইটসিে আরাম মলে,ে ঠান্ডা লগেে গলাব্যাথা হলওে এই পথ্যটি খাওয়া যায়।
শক্তি বাড়ায়
করলার মধ্যে এমন কছিু উপাদান রয়ছেে যা আমাদরে স্ট্যামনিা বাড়ায়। ফলে যকেোন কাজ আগরে তুলনায় উৎসাহ ও মনোযোগ দয়িে আমরা করতে পার।ি পাশাপাশি নয়িমতি করলা খলেে ভালো ঘুম হয বলওে বশিষেজ্ঞরা মনে করনে।
ডায়াবটেসি নয়িন্ত্রণে রাখে
ডায়াবটেসিরে রোগীদরে করলা একটি র্দুদান্ত পথ্য। কনেনা করলার মধ্যে এমন কছিু উপাদান রয়ছেে যা রক্তে র্শকরার পরমিান নয়িন্ত্রণে রাখ।ে তাই হাই ডায়াবটেকি রোগীদরে রোজ করলা খাওয়া উচতি, তবে বশেি ভাজা করে নয়। সদ্ধে করে বা করলার রস খতেে পারনে।
কোষ্ঠকাঠন্যি দূর করে
ঠকিমত না খাওয়া, অনয়িম এবং অতরিক্তি জাংক ফুড খাওয়ার দরুন অনকেইে ভুগতে থাকনে কোষ্ঠকাঠন্যিত।ে এই সমস্যা কমাতওে করলার ভূমকিা অপরসিীম। একদকিে যমেন করলা খলেে কোষ্ঠকাঠন্যি কম,ে তমেনই কোষ্ঠকাঠন্যি কমলে শরীররে হজম প্রক্রয়িাও থাকে স্বাভাবকি।

Leave a Reply