অভিমান থেকে ক্ষোভ, অবশেষে পদত্যাগ!

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৯ অক্টোবর: হঠাৎ করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরীর পদত্যাগ নিয়ে রাজনীতিতে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়েছে। বিষয়টি এখন টক অব দ্য কান্ট্রিতে পরিনত হয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে-কেন তিনি হঠাৎ প্রদত্যাগ করে বসলেন? তার মতো একজন অভিজ্ঞ কূটনীতিককে হারিয়ে বিএনপিইবা কতটা ক্ষতির মুখে পরবে? দীর্ঘ দিন ধরে ক্ষমতার বাইরেMobin থাকা এই দলটির ওপর প্রভাবইবা কতটা পড়বে? কেন বিএনপির এই প্রভাবশালী নেতাকে পদত্যাগ করতে হলো তার অনুসন্ধান করতে গিয়ে অনেক কিছুই বের হয়ে এসেছে। এতে দেখা যায়, জেল থেকে বের হওয়ার পর একটু একটু করে তার মধ্যে বিশেষ করে দলের চেয়ারপারসনের ওপর ক্ষোভ তৈরি হতে থাকে। এই পদত্যাগ তারই বহি:প্রকাশ বলে অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে। নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে, দীর্ঘ দিন বন্দী জীবন কাটানোর পর বেশ কিছু দিন হলো জামিনে মুক্ত হন বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা। শারীরিক অসুস্থতার কারনে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করতে পারেননি। জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর দলের চেয়ারপারসন তাঁর কোনো খোঁজ খবরও নেননি। এ ব্যাপারে তার মধ্যে অনেক কষ্ট লুকিয়ে ছিল। এছাড়া ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় তাঁর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এই সাক্ষাতের সময় দলের চেয়ারপারসনের ডাকের অপেক্ষায় নিজেকে প্রস্তুত রেখেছিলেন শমসের মবিন। মোদির সঙ্গে সাক্ষাতের সময় চেয়ারপারসনের কার্যালয় থেকে তার ডাক আসেনি। এ নিয়ে তিনি দলের ঘনিষ্টদের সঙ্গে হতাশার কথা শেয়ারও করেছিলেন। এমনকি শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে দেশের বাইরে যেতে হয়েছে কয়েকবার। তখন খালেদা জিয়া তাঁর খোঁজ খবর নিবেন বলে আশা করলেও শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। দলের কাছ থেকে এই অবহেলায় তিনি ক্রমেই হতাশ হয়ে পড়ছিলেন। এক পর্যায়ে তিনি পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত পাকা করে ফেলেন। শমসের মবিন চৌধুরীর ঘনিষ্ট একটি সূত্র জানায়, তাঁর প্রতি দলের অবহেলাকে তিনি মেনে নিতে পারছিলেন না। বিশেষ করে খালেদা জিয়ার প্রতি তার অভিমান ছিল সবচেয়ে বেশি। অভিমানটা এক পর্যায়ে ক্ষোভে পরিণত হয়। সেই ক্ষোভ থেকেই আজকের এই পদত্যাগ। তবে শমসের মবিন চৌধুরী (বীর বিক্রম) জানিয়েছেন, তিনি শারীরিক অসুস্থতার জন্যই রাজনীতি থেকে অবসরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই পদত্যাগে দলের ওপর কোনো প্রভাব পড়বে কি না-এ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে শমসের মবিন বলেন, বিএনপি একটি বৃহত্তর রাজনৈতিক দল। এখানে অনেক যোগ্য নেতাকর্মী রয়েছেন। তাই দল দলের গতিতেই চলবে। সূত্র: ঢাকাটাইমস

Leave a Reply