টিভিতে তিন মাসের রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি দিচ্ছে ওয়ালটন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৪ অক্টোবর : এবার টেলিভিশনে তিন মাসের রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি দিচ্ছে ওয়ালটন। সিআরটি এবং এলইডি টেলিভিশনে এই সুযোগ দিচ্ছে ওয়ালনটন ব্র্যান্ড।walton ১৫ অক্টোবর থেকে গ্রাহকরা ভোগ করতে পারবেন এই সুবিধা। পাশাপাশি এলইডি টিভির প্যানেল, আনুষঙ্গিক যন্ত্রাংশ ও আফটার সেল সার্ভিসে দেয়া হচ্ছে দুই বছরের ওয়ারেন্টি। আবার সিআরটি টিভির পিকচার টিউবেও দেয়া হচ্ছে চার বছরের ওয়ারেন্টি। ওয়ালটন সূত্র মতে, প্রধানত তিনটি কারণে দেয়া হচ্ছে এই সুবিধা। প্রথমত উচ্চ প্রযুক্তির ওয়ালটন টেলিভিশন মানের দিক থেকে র্শীষস্থানীয়। দ্বিতীয়ত গ্রাহকের আস্থা ও সন্তুষ্টি বৃদ্ধি। তৃতীয়ত নিজস্ব কারখানায় তৈরি বলে সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রির পাশাপাশি রিপ্লেসমেন্ট সুবিধা প্রদান করা সহজতর হয়েছে। এছাড়া হাতের নাগালে আইএসও স্ট্যান্ডার্ড বিক্রয়োত্তর সেবা প্রদানের সুযোগ থাকায় বাংলাদেশে ওয়ালটন অপ্রতিদ্বন্দ্বী। উল্লেখ্য, দেশের টেলিভিশন মার্কেটে শীর্ষস্থানে রয়েছে ওয়ালটন। ওয়ালটনের মার্কেটিং বিভাগের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল বারী বলেন, বাজারে ওয়ালটন ব্র্যান্ডের টেলিভিশন বর্তমানে গ্রাহক চাহিদার শীর্ষে। অত্যাধুনিক প্রযুক্তি, উন্নত মেশিনারিজ এবং দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রকৌশলীদের সমন্বয়ে সর্বোচ্চমানের চ্যালেঞ্জ নিয়ে টেলিভিশন প্রস্তুত করছে ওয়ালটন। ফলে গ্রাহকদের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটন। গ্রাহক সন্তুষ্টি বৃদ্ধির জন্য শর্তসাপেক্ষে তিন মাসের রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি সুবিধা দেয়া হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে তিনি গ্রাহকদের ওয়ারেন্টি কার্ড এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংরক্ষণের পরামর্শ দেন। কর্তৃপক্ষ জানায়, বিনোদন পিপাসুদের জন্য মেইড ইন বাংলাদেশ খ্যাত ওয়ালটন ব্র্যান্ড প্রতিনিয়ত বাজারে নিয়ে আসছে সাশ্রয়ী মূল্যে বিশ্বমানের এলইডি টিভি। স্বল্প আয়ের ক্রেতাদের কথা বিবেচনা করে সিআরটি টিভির দামে ওয়ালটন দিচ্ছে এলইডি টিভি। অর্থ্যাৎ এলইডি টিভির মতো উচ্চ প্রযুক্তির টেলিভিশন এখন সাশ্রয়ী মূল্যে ক্রেতাদের হাতের নাগালে। জানা গেছে, সর্বাধুনিক ও অটোমেটিক প্রডাকশন লাইনে তৈরি হচ্ছে ওয়ালটনের এলইডি টেলিভিশন। প্লাস্টিক কেবিনেট, স্পিকার, রিমোট কন্ট্রোল ইউনিট, মাদার বোর্ড, ইলেকট্রিক ক্যাবল এবং প্যানেল প্রডাকশনের জন্য পৃথক ম্যানুফাকচারিং লাইন স্থাপন করা হয়েছে। এর ফলে এলইডি টিভি উৎপাদনে বাংলাদেশ যেমন স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করছে; তেমনি নিজস্ব তত্ত্বাবধানে মান নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হচ্ছে। এছাড়া নিজস্ব কারখানায় মৌলিক কাঁচামাল হতে প্রয়োজনীয় সব যন্ত্রাংশ তৈরি করায় উৎপাদন খরচ কমে এসেছে বহুলাংশে। যার সুফল ভোগ করছেন ক্রেতারা। ওয়ালটন সম্পূর্ণ নতুন পিকচার টিউব দিয়ে সিআরটি টিভির উৎপাদন প্রক্রিয়ায় ব্যবহার করছে উচ্চ গতির অটো ইনসারশন, এসএমটি (সারফেস মাউন্ট টেকনোলজি) মেশিন এবং পরিবেশ বান্ধব ওয়েব সোল্ডারিং মেশিন। পর্দার উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে ছবিকে আরো প্রাণবন্ত করে তোলার জন্য ওয়ালটন ব্র্যান্ডের সিআরটি টিভিতে কালো রং এর ম্যাট্রিক্স ব্যবহৃত হয়। এই প্রযুক্তিতে উৎপাদনের প্রতিটি পর্যায়ে নিশ্চিত হচ্ছে সর্বোচ্চ মান। এছাড়াও, ওয়ালটনের সিআরটি টিভির ভিউয়িং এ্যাঙ্গেল আনলিমিটেড হওয়ায় যেকোনো এ্যাঙ্গেল থেকে ভালো ছবি দেখা যায়। পাশাপাশি কালার টেম্পারেচার ৯৩০০ হওয়ায় ওয়ালটন টিভি চোখের জন্য সহনীয়। তাছাড়া অপ্রয়োজনীয় সংকেতকে পরিশ্রুত করে অডিও-ভিডিও সংকেতকে আরো সমৃদ্ধ করতে হাইপার ব্র্যান্ডের টিউনারে আছে ত্রিমাত্রিক ফিল্টার। ওয়ালটন সোর্সিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সিনিয়র সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন বলেন, অত্যাধুনকি প্রযুক্তিতে এবং শতভাগ ব্র্যান্ড নিউ পিকচার টিউব দিয়ে তৈরি বিশ্ব মানসম্পন্ন ৪০ টিরও বেশি মডেলের সিআরটি টিভি বাজারে আছে ওয়ালটনের। দেশের বাজারে এতোগুলো মডেল ও ডিজাইনের সিআরটি টিভি আর কারো নেই। তিনি জানান, পণ্যের গুণগতমান ও গ্রাহকদের ক্রয় ক্ষমতার কথা বিবেচনা করে ওয়ালটন বাজারে এনেছে এইচডি, এইচডি রেডি ও এফএইচডি রেজ্যুলেশনের বিভিন্ন সাইজের এলইডি টিভি। ওয়ালটন এলইডি টিভিতে এখন ব্যবহার করা হচ্ছে সবচেয়ে অত্যাধুনিক এইচএডিএস (হাই এ্যাডভান্স সুপার ডাইমেনশন সুইচ) এবং আইপিএস (ইন প্ল্যান সুইচিং) প্রযুক্তির প্যানেল। এর ফলে দর্শকরা লার্জ ভিউয়িং এ্যাঙ্গেল এবং হাই কন্ট্রাস্ট পিকচার পাবেন। এটি অধিক বিদ্যুত সাশ্রয়ী। ছবি ও শব্দের গুণগতমান নিশ্চিতকরনে ডাইনামিক নয়েজ রিডাকশন, মোশন পিকচার, সর্বোচ্চ ফ্রেম রেট, ডলবি ডিজিটাল সাউন্ড সিস্টেম সমৃদ্ধ নিজস্ব ডিজাইনের উন্নত প্রযুক্তির মাদারবোর্ড ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়া বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ওয়ালটনের ৩২ ইঞ্চি স্মার্ট টিভি। টেলিভিশনের সকল সুবিধার পাশাপাশি ইন্টারনেট ব্রাউজিং, মোবাইল শেয়ারিং, ওয়াইফাই কানেকটিভিটিসহ কম্পিউটারের সকল সেবা পাওয়া যায় স্মার্ট টিভিতে। নতুন প্রজন্মের ক্রেতাদের আকর্ষণের বিষয়বস্তু হয়ে উঠেছে এই স্মার্ট টিভি। উল্লেখ্য, গুণগত উচ্চমানের পাশাপাশি কালারের ভেরিয়েশন ও দেশব্যাপী সার্ভিসিং নেটওয়ার্ক থাকায় ক্রেতাদের পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে ওয়ালটন। বাংলাদেশে একমাত্র ওয়ালটনেরই রয়েছে আইএসও সনদ প্রাপ্ত সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। গ্রাহক সেবা দিতে সারা দেশে কাজ করছেন প্রকৌশলী ও টেকনিশিয়ানসহ ১২শরও বেশি দক্ষ ও অভিজ্ঞ কর্মী। এছাড়াও রয়েছে শক্তিশালী গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগ। যেখানে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে থিম ডেভলপমেন্ট, প্রোডাক্ট ডিজাইন, মোল্ড ডিজাইন এবং মোল্ড তৈরির কাজ করা হচ্ছে। এছাড়াও দক্ষ প্রকৌশলীদের চেষ্টায় সম্ভব হচ্ছে এলইডি টিভির মাদারবোর্ড এর পিসিবি ডিজাইন ও ড্রইং। যার ফলে ক্রেতাদের চাহিদা ও আগ্রহ অনুযায়ী নিত্য নতুন প্রযুক্তি, বিভিন্ন কালার ও ডিজাইনের ওয়ালটন এলইডি টিভি বাজারে সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে। সূত্র : ঢাকাটাইমস

Leave a Reply