৮ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করা উচিত

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২১ জুলাই: শরীর ভাল রাখতে পর্যাপ্ত পানি পান প্রয়োজন, এটা সকলেই জানি। দিনে কতটা পানি পান করা উচিত এই প্রশ্নের উত্তর এক কথায় দেয়া যায় না। সাধারণ ভাবে আমাদের মত গরমের দেশে দিনে (যাদের কিডনি স্বাভাবিক) ৮ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করা উচিত হলেও যাদের বেশি কায়িক পরিশ্রম করতে হয়, তাদের বেশি পানির তৃষ্ণা পায়। তাই যখনই পিপাসা পাবে তখনই পানি খেতে হবে। কিন্তু এখানেও একটা সমস্যা আছে। অনেকেরই পানি পানের অভ্যাস নেই, তাদের খুব কম পিপাসা পায়। তাই তারা কম পানি খান। কিছু স্বাস্থ্য বাতিকগ্রস্ত মানুষ প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি পান করেন। এর ফলে নানান শারীরিক ও মানসিক সমস্যা দেখা যেতে পারে বলে জানান নেফ্রোলজিস্টরা।w
প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি পানে অনেক সময়েই মনের অসুখের পর্যায়ে ফেলা হয়। চিকিৎসকের ভাষায় একে বলে পলিডিপসিয়া। গ্রিক শব্দ পলি-র অর্থ অনেক আর ডিপসিয়া মানে তেষ্টা। এর ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গিয়ে অনেক সমস্যা দেখা দেয়।
বেশি পানি পানে শরীরের বিভিন্ন অংশ (যেমন, পা, হাত, মুখ ইত্যাদি) ফুলে যেতে পারে। যাদের কিডনির সমস্যা রয়েছে তারা যদি অতিরিক্ত পানি খান তবে ব্লাডারে চাপ পড়ে সমস্যা আরও বাড়তে পারে। এছাড়া বার বার বাথরুম দৌড়তে হয়, যা বেশ অস্বস্তিকর ব্যাপার।
যাদের ডায়াবেটিসের সমস্যা রয়েছে অতিরিক্ত পানি খেলে তাদের বহুমূত্রের সমস্যা বাড়তে পারে। এছাড়া রক্তে সোডিয়াম কমে গেলে মাথা ঝিম ঝিম করতে পারে।
অতিরিক্ত পানি খাওয়ার ফলে কথাবার্তা অসংলগ্ন হতে পারে। এছাড়া লেথার্জি লাগে, অর্থাৎ কোনও কাজ করতে ইচ্ছে করে না। সারাদিনই শুয়ে বসে থাকতে ইচ্ছে করে। যাদের স্ক্রিজোফেনিয়া বা এই ধরনের মনের অসুখ আছে, তাদের অতিরিক্ত পানি পানের প্রবণতা থাকে।
যারা প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি খান, তারা যদি দুই-এক দিন ৭ লিটারের পরিবর্তে ২ লিটার পানি খায়, শরীরে অনেক টক্সিন জমে যায়। এর ফলে অসুস্থ বোধ করতে পারেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: