৫৮ দলের সম্মিলিত জাতীয় জোটের ঘোষণা এরশাদের

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৭ মে ২০১৭, রবিবার: একসঙ্গে নির্বাচন এবং এক সঙ্গে সরকার গঠনের পরিকল্পনাকে সামনে রেখে ৫৮ দলের সম্মিলিত জাতীয় জোটের ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। এর মধ্যে জাতীয় পার্টি ছাড়া যে ৫৭টি দল যোগ দিয়েছে তার মধ্যে নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন আছে কেবল একটির। বাকিগুলো একেবারেই অপরিচিত। তাদের তেমন কোনো কার্যক্রমই নেই।
রবিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে আনুষ্ঠানিকভাবে এই জোটের আত্মপ্রকাশের ঘোষণা দেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। জাতীয় পার্টি ছাড়া অন্য দলগুলোর মধ্যে আছে এম এ মান্নানের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ ইসলামিক ফ্রন্ট এম এ মান্নান, আবু নাসের ওয়াহেদ ফারুকের নেতৃত্বাধীন ধর্মভিত্তিক ৩৫ দলের জোট জাতীয় ইসলামী মহাজোট এবং সেকেন্দার আলী মনির নেতৃত্বে বাংলাদেশ জাতীয় জোট বিএনএর নেতৃত্বে ২১ দল।
গত কয়েক মাস ধরেই এরশাদ তার নতুন জোট গঠন নিয়ে নানা ঘোষণা দিয়ে আসছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত পর্বতের মুষিক প্রসবের মতো কাণ্ড করলেন তিনি। মোট ৫৮টি দল থাকলেও এগুলোর একটিরও সারাদেশে কার্যক্রম নেই। তারা যেমন অপরিচিত, তেমনি নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন পাওয়ার মতো যোগ্যতাও নেই। এই দলগুলো এর আগে কখনও হয় জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়নি অথবা অংশ নিলেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ভোট পায়নি।
তবে এই দলগুলো নিয়েই দেশের রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন আনতে চান এরশাদ। পাশাপাশি নির্বাচনে ভালও করতে চান। তিনি বলেন, ‘জোটের দীর্ঘস্থায়িত্বের জন্য রাজনৈতিক বিপদে আপদে সুদিনে-দুর্দিনে শরিকরা একে অপরের পাশে থাকবে।’
জোট গঠনের কারণ ব্যাখ্যা করে এরশাদ বলেন, ‘বর্তমানে সংসদীয় গণতান্ত্রিক বিশ্বে জোটগত রাজনীতির প্রবণতা বিরাজ করছে। আমাদের দেশেও এই ধারা অব্যাহত আছে। আমরাও এই প্রবণতার বাইরে নই। জোটের রাজনীতির মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন রাজনৈতিক দলের মধ্যে সৌহার্দ স্থাপনের সুযোগ থাকে। যা সংঘাতের রাজনীতির বিপরীতে সম্প্রীতির রাজনীতি প্রবর্তন করতে পারে। এ কারণেই আমরা জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে জোট গঠনের ঘোষণা দিলাম।’
আগামী নির্বাচনে এই জোট অংশ নেবে জানিয়ে এরশাদ বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে দলীয় বিবেচনার চেয়ে প্রার্থীর যোগ্যতাকে প্রধান্য দেয়া হবে। জাতীয় নির্বাচনে জোটের যৌথ ইশতেহার প্রণয়ন করা হবে। এই জোট নির্বাচনের ফলাফল মেনে নেবে। ফল যাই হোক না কেন জোট বহাল থাকবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*