৩০ মার্চ’র মধ্যে বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ কমিশন গঠন করতে হবে: ভাড়াটিয়া কল্যাণ সমিতি

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: ২৬ জানুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার: বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন ১৯৯১ ও বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ প্রণীত বিধিমালা ১৯৬৪-এ যথাযথ বাস্তবায়ন, কার্যকর না হওয়ায় দেশের ছয়টি বিভাগীয় শহরে পাঁচ কোটি ভাড়াটিয়া জিম্মিদশায় দিন কাটছে। গত ২৫ বছরে (১৯৯০-২০১৬) ৬টি বিভাগীয় শহরে বাড়িভাড়া বেড়েছে প্রায় ২৫০ শতাংশ। ঢাকা শহরের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ মানুষ ভাড়াটিয়া। চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেট, খুলনা মহানগরীতে ৬৫ শতাংশ মানুষ ভাড়াটিয়া। লাগামহীন এই বাড়িভাড়ায় এ মানুষগুলোর জীবন বিপর্যস্ত। ২০১৫ সালের ১ জুলাই বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়াদের সার্বিক সমস্যা নিরসনে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিশন গঠনেরনির্দেশ দেন হাইকোট। কিন্তু সরকার এ বিষয়ে আন্তরিক না হওয়ায় এখন বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ কমিশন এখনও গঠন হয়নি। এছাড়া বাংলাদেশ ভাড়াটিয়া কল্যাণ সমিতির ৯ দফা দাবি সরকারের কাছে বিভিন্ন সময় উপস্থাপন করা হলেও তা বাস্তবায়ন করেনি। আগামী ৩০ মার্চ’র মধ্যে বাড়িভড়াা নিয়ন্ত্রণ কমিশন গঠন এবং ৯ দফা বাস্তবাযন না হলে কঠোর কর্মসূচি সহ ঢাকায় লংমার্চ ঘোষন দেন বাংলাদেশ ভাড়াটিয়া কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দ। আজ ২৬ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার জিইসিস্থ এক রেষ্টুরেন্টে বাংলাদেশ ভাড়াটিয়া কল্যাণ সমিতির আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি এডভোকেট মেসবাহ উদ্দিন চৌধুরী কচির এ অভিযোগ করেন।
সংগঠনের সাধারণসম্পাদক সৈয়দ তৌকির আহমদের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি এস.এম.শাহ নেওয়াজ আলী মির্জা, এড. জোবায়ের বাপ্পী, এড. সাইফুদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাব আকতার, সহ-সভাপতি আজিমুল হক খাঁন, হারুন উর রশিদ, মিনহাজুল ইসলাম চৌধুরী রনি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, রাজেশ্বর চৌধুরী, আব্দুল আহাদ, প্রচার সম্পাদক ওমর ফারুক, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিব বিন ছত্তার আরজু, নির্বাহী সদস্য তাইসীর আলম আদহান, রাজু আহমেদ রানা প্রমুখ।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সংবিধানে ১৫ অনুচ্ছেদে অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা ও বাসস্থানকে মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। অথচ জীবনযাপনের মৌলিক প্রতিটি অধিকার নিয়েই প্রচণ্ড চাপের মধ্যে থেকে দেশের মানুষ এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বাসস্থানের সমস্যা। ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়াদের সার্বিক সমস্যা নিরসনে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিশন গঠনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ওই রায়ে বলা হয়, কমিশন সুপারিশ না করা পর্যন্ত ১৯৯১ সালের বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩ ধারা অনুযায়ী সরকারের আর্থিক ক্ষমতাসাপেক্ষে প্রতিটি ওয়ার্ডে বাড়ি ভাড়া-সংক্রান্ত বিরোধ নিস্পত্তির জন্য একজন করে নিয়ন্ত্রক ও উপনিয়ন্ত্রক নিয়োগের উদ্যোগ নেবে। কিন্তু তা এখনও পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়নি।
সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ভাড়াটিয়া কল্যাণ সমিতির ৯ দফা দাবি পেশ করে তা বাস্তবায়নের দাবি জানানো হয়। অন্যথায় আগামী ৩০ মার্চ ২০১৭’র এর মধ্যে বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ কমিশন গঠন ও ৯ দফা বাস্তবায়ন না হলে ১০ এপ্রিল কঠোর কর্মসূচিসহ ঢাকায় লং মার্চ’র ঘোষণা দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*