২০১৭ সাল কেমন যাবে

অধ্যক্ষ ড. এ.আর আচার্য্য
বিশ্ব পরিস্থিতি: ২০১৭ সাল এর শুভ উষালগ্ন। মনুষ্যজগতে এই দিনের গুরুত্ব অনেক বেশী। ১৬পৌষ রবিবার, শুক্লা তৃতীয়া শ্রবণা নক্ষত্র। নববর্ষে পূর্ণবলীয়ান গ্রহ বৃহস্পতি, মধ্যবলীয়ান গ্রহ চন্দ্র, হীনবলীয়ান গ্রহ কেতু, মঙ্গল, শুক্র, রাহু, শনি, স্থিত। ভালোমন্দ মিশিয়ে কাজ করার নির্দেশ ছিল বিশ্ব নিয়ন্ত্রক গ্রহগণের। গ্রহের শুভ ও অশুভ প্রভাবের কারণে সারাবিশ্বে রাজনৈতিক এক পটপরিবর্তনের সূচনা দেখা যাবে। প্রাকৃতিক দূর্যোগ, খরা, বন্যা, ও নতুন নতুন রোগের আবির্ভাব বৃদ্ধি পাবে। বিশ্বের একাধিক রাষ্ট্রপ্রধানদের নিজস্ব নিরাপত্তার ব্যাপারে সজাগ ও সতর্ক দৃষ্টি রাখা প্রয়োজন। বিশ্বে মহিলাদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি পাবে। সঙ্গীত ও শিল্পকলার প্রসার বৃদ্ধি পাবে। পৃথিবীর একাধিক দেশে জাতিগত সমস্যা এবং জাতীয় জরুরি অবস্থা সৃষ্টি হতে পারে। তুষারপাত, জলোচ্ছ্বাস, বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনসহ কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ক্ষতি হতে পারে।
বাংলাদেশ
বাংলাদেশ স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর। সেদিন ছিল বৃহস্পতিবার, কৃষ্ণা চতুর্দ্দশী, শকুনিকরণ, বুধ ও শনি বক্রী। ধাতœক রাশির অধিকর্তা দেব সেনাপতি মঙ্গল। তাই বৃহস্পতি ও মঙ্গলের প্রভাব থাকবে বাংলাদেশের প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাপ্রবাহে। উল্লেখিত শুভ ও অশুভ প্রতিক্রিয়া হিসেবে বাংলাদেশে রাজনৈতিক অঙ্গণে অসংখ্য গোপন রহস্য উদঘাটন হয়ে অভ্যন্তরীণ সমস্যা নানাভাবে প্রবাহিত হতে পারে। দেশের শ্রীবৃদ্ধি, বেকারদের কর্মের নিয়োগ বা সে সম্পর্কে সকল প্রকার পরিকল্পনা গণতন্ত্রের সুবিধা দান -ইত্যাদি বিষয়ে সরকারের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। শিল্প, সঙ্গীত ও চিত্রকলা জনগণের কাছে বিশেষ সমাদৃত হতে পারে। সরকার দেশের নিম্নশ্রেণির কর্মচারীদের সুখ ও সুবিধার জন্য বিশেষ সজাগ হবেন। দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক মতানৈক্য দূর করে দেশের শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য সুযোগ থাকলেও সঠিক পরিকল্পনা বা পদ্ধতির অভাবে সুযোগের সদ্ব্যবহার করা কঠিন হতে পারে। এবছর সরকার দেশে সতর্কতার সঙ্গে এগিয়ে গেলে অনেক কিছু করার বা সাফল্য অর্জন করা সম্ভব হতে পারে। প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সাথে সুসম্পর্ক উন্নয়নের আকাংক্ষা জাতীয় জনগণের ইচ্ছা বেশী দেখা দেবে। প্রশাসনিক ক্ষেত্রে উচ্চ পর্যায়ের ব্যাপক রদবদলের ব্যাপক সম্ভাবনা বারবার দেখা দিতে পারে। গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের দৈহিক নিরাপত্তা বারবার বিঘ্নিত হতে পারে। নারীদের কর্মসংস্থানের জন্য সরকার বিশেষভাবে সচেতন হবে। সরকার দেশের কতগুলো সম্পদ রপ্তানি বাড়াতে গিয়ে বিষয়টি দেশে ব্যাপকভাবে সমালোচিত হতে পারে। এই বছর ছোট রাজনৈতিক দলগুলোর ভূমিকা বড় দলের কাছে সমাদ্রিত হয়ে উঠবে। আন্তর্জাতিক কূটনীতিকদের মাধ্যমে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব মিমাংসা হতে দেখা যাবে।
দেশের খাদ্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সমস্যার নিরসনের জন্য সরকারের অগ্রিম চিন্তা-ভাবনা থাকবে। দেশে জঙ্গি হামলা বা তৎপরতা ব্যাপারে সরকার কঠোর অবস্থানে থাকলেও সমস্যা সমাধানে তেমন সুরাহা হবে না। সরকার নিরাপদ স্থানে অবস্থান নিয়ে সমস্ত ঝুঁকি এড়িয়ে ভুল বুঝাবুঝির সম্ভাবনা দূর করে সব পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে কার্যক্রম গ্রহণ করলে সমস্যাসমূহের মোকাবিলা করা সহজ হবে। এই বছর দেশের অসামপ্রদায়িক চেতনার বুদ্ধিজীবিরা তাদের স্ব-স্ব মতামতের মাধ্যমে দেশের বা মানুষের কল্যাণে সুফল বয়ে নিয়ে আসতে পারেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য মতে তুলা রাশি। সংখ্যাতত্ত্ব হিসেবে তিনি এক সংখ্যার জাতিকা। এক সংখ্যার ব্যক্তি হিসেবে জাতিকার জীবনে ধর্ম ও সততা নিয়ে এগিয়ে গেলে জীবনে বংশগত ও ব্যক্তিগত ঐতিহ্য অমর হয়ে থাকবে। তিনি বর্তমান ৭০ বৎসরে পদার্পন করেছেন। তার জন্মচক্রে রবি বুধ পূর্ণবলিয়ান, শনি মঙ্গল, চন্দ্র, বৃহস্পতি ও শুক্র মধ্যবলীয়ান, রাহু কেতু হীনবলীয়ান প্রতীয়মান হয়। রাহু, শনি, বুধ তুঙ্গে অবস্থিত এবং বুধাদিত্য যোগ, অমাত্য যোগ ও শুক্লা-তৃতীয়া শনিবার নিয়ে তিনি জন্মগ্রহণ করেছেন। বর্তমান বৎসরে তার অষ্টোত্তরীয় মতে দৈত্যগুরু দশায়াং ও বিংশোত্তরীয় মতেন কেতুর দশায়াং। এই বছর তার ব্যক্তিত্ব ও প্রতিভার বিস্মৃতি বিকাশের মাধ্যমে রাজনৈতিক অনেক ঝড়-ঝাপটা অতিক্রম করা সম্ভব হতে পারে। তিনি আগামী মার্চ ২০১৭ শেষার্দ্ধ থেকে বৈপ্লবিক ধারা নিয়ে অপরিসীম কর্মবিন্যাসের কারণে পহেলা আগস্টের আগে হঠাৎ শারীরিক অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন। আগামী সেপ্টেম্বর হতে ডিসেম্বরের মধ্যে যেকোন সিদ্ধান্ত নিতে অত্যন্ত সতর্ক থাকতে হবে। এ বছর তার পরিচালিত গ্রহগুলি তাকে বাস্তব পদক্ষেপ নিতে সাহায্য করবে। প্রতিবেশী ও উন্নয়ন বিশ্বের কোনো দেশের সাথে তার ভবিষ্যতের জন্য সুদূরপ্রসারী দৃষ্টি বাস্তবায়িত হয়ে পারে। তিনি এই বছর সরকার ও বিরোধী দলীয় রাজনৈতিক বিরোধ এবং সমস্যাকে আইনের আশ্রয় হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। তিনি এই বছর জনসংযোগ, স্থলপথ, জনসভা এবং আকাশপথ ইত্যাদি ক্ষেত্রে তার দৈহিক নিরাপত্তার জন্য বিশেষ সতর্কতা থাকা প্রয়োজন। এই বছর তিনি যে কোন বাস্তব প্রচেষ্টায় সফলভাবে কাজ করতে থাকবেন। এই বছর তার পরিচালিত গ্রহগুলি তাকে বাস্তব পদক্ষেপ নিতে সাহায্য করবে। তবে আগামী জুন মাসের পর হতে নিজ দলীয় নতুন ও পুরাতন কর্মীর মধ্যে বিরোধ প্রতিক্রিয়া বৃদ্ধি পেতে পারে। এ সময়ে কঠোরতার চেয়ে উদারতা মনোভাব প্রধানমন্ত্রীর জন্য মঙ্গলজনক হবে।
এই বছর দেশে সঙ্গীত, শিল্প ও চিত্রকলা জনগণের কাছে বিশেষ সমাদৃত হতে পারে। সরকার দেশের নিম্ন শ্রেণির কর্মচারীদের সুযোগ ও সুবিধার জন্য বিশেষ সজাগ থাকবেন। মধ্যপ্রাচ্যের কোনো দেশের সাথে সম্পর্ক গভীর হতে পারে। উন্নয়ন বিশ্বের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধি পাবে। প্রধানমন্ত্রীর যে কোনো ইংরেজি মাসের ৫, ১৪, ২৩ তারিখে সবসময় সতর্ক থাকতে হবে। প্রধানমন্ত্রী এই বছর তাঁর নিজের চিন্তা ও চেতনার মাঝে পরিকল্পিত দৃষ্টিভঙ্গির ছোঁয়া দিয়ে নতুনভাবে কর্মপদ্ধতি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেবেন। এককভাবে সিদ্ধান্ত নিলেও এই বছর তিনি দলীয় নেতৃবৃন্দের মতামতকে যথেষ্ঠ গুরুত্ব দেবেন।
বেগম খালেদা জিয়া
প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া প্রাচ্য মতে সিংহ রাশি ও পাশ্চাত্য মতে কন্যা রাশির জাতিকা। তিনি কৃষ্ণা চতুর্দ্দশী নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। বেগম খালেদা জিয়ার শুভ জন্মদিনকে আরেকটি কারণে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। ওই দিনটিতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অবসান ঘটেছিল। সংখ্যাতত্ত্ব অনুসারে তিনি ৫ সংখ্যার জাতিকা। তার জন্মদিনে কালসর্প যোগ ছিল। জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে, মানবের জীবনে সমুদ্রের জোয়ারের মতো ওঠে, আবার ভাটার মত হ্রাস পরে। ঘর-সংসার ও নিকটতম আতœীয় নিয়ে সুখ ও শান্তিতে ক্রমান্বয়ে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়। তার বর্তমান অষ্টোত্তরীয় মতেন শুক্রের দশায়াং ও বিংশোত্তরীয় মতেন বৃহস্পতি দশায়াং। ওপরে উল্লিখিত শুভাশুভ গ্রহের প্রতিক্রিয়া হিসেবে তিনি এই বছর নানাবিধ কারণে একাধিক বিষয়ে সহযোগী ও সহকর্মীদের সাথে বিরোধ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে। উপদেষ্টা ও সহযোগী হইতে তিনি যা পরামর্শ পাবেন, সেই পরামর্শ নিয়ে তিনি দ্বিধা-দ্বন্ধে ভুগবেন। তিনি অত্যন্ত সতর্ক থাকা সত্ত্বেও আগামী ২০১৭ অক্টোবরের মধ্যেই আন্তর্জাতিক কোনো বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে গিয়ে প্রবল সমালোচনায় ভুগবেন। তিনি সর্ববিষয়ে নিরপেক্ষ ও সমঝোতা মনোভাব নিয়ে এগিয়ে গেলে রাজনীতিতে প্রতিহিংসার চক্রান্ত হ্রাস পেতে পারে। তিনি আগামী এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে তার শারীরিক অসুস্থতার কারণে বিদেশে চিকিৎসার জন্য যেতে পারেন। তার যন্ত্রবাহিত চলাফেরার বিশেষ সতর্ক থাকার প্রয়োজন রয়েছে। তার ঠান্ডাজনিত রোগ পা বা হাঁটুতে এবং মাথায় বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পেতে পারে। আইনগত কোনো সমস্যা মানসিক দুশ্চিন্তার কারণ হতে পারে এবং অন্যের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে কোনো ভুল সিদ্ধান্ত তার কর্মক্ষেত্রে ক্ষতির কারণ হতে পারে। রাজনৈতিক অঙ্গনে বিশেষ সতর্ক না থাকলে সবকিছু ছত্রভঙ্গ করে বিশৃঙ্খল অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে।
ভারত
ভারত স্বাধীন হয় কৃষ্ণা চতুর্দ্দশী অমাবস্যা শুক্রবার। সেই দিনটি জ্যোতিষ শাস্ত্রমতে শনি, বৃহস্পতি ও শুক্র এই গ্রহগুলি আকাশে অভিশপ্ত স্থানে অবস্থান করেছিল। এ কারণেই ভারতে বন্যা, খরা, দুর্ভিক্ষ নিয়মিত ব্যাপার। পররাষ্ট্রনীতিতে এই বছর ভারত বিশ্বের প্রভাবশালী কোনো দেশের সাথে নতুনভাবে বন্ধুত্ব বৃদ্ধি পেতে পারে। ভারত এই বছর প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তোলার প্রচেষ্টা আগের চেয়েও আরো বৃদ্ধি পেতে পারে। এই বছর কাশ্মীর, বিহার, মিজোরাম এসব এলাকায় গুপ্ত হামলা বৃদ্ধি পেতে পারে।
মায়ানমার
মায়ানমার প্রাচ্য মতে মিথুন রাশির দেশ। মায়ানমার যেদিন স্বাধীনতা লাভ করেছিল সেদিন ছিল রাহু, শনি ও কেতু অশুভ অবস্থানে অবস্থান করেছিল। এই বছর মায়ানমার সাথে আন্তর্জাতিক ও প্রতিবেশী কিছু কূটনৈতিক সমস্যা বৃদ্ধি পাবে। মায়ানমার স্বাধীনতা সংগ্রামে দেশনেত্রী অং সান সুচি জ্যোতিষ শাস্ত্র প্রাচ্য মতে মকর রাশির জাতিকা। তিনি এই বছর আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ নতুন কোন চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে গিয়ে প্রবল সমালোচনার সম্মুখীন হতে পারেন। তিনি এই বছর আইন ও বিচার বিভাগ পুলিশ ও সেনাবাহিনী সংস্কার ও পরিবর্তনের জন্য দৃঢ় পদক্ষেপ নিতে পারেন। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের বেলায় তিনি দ্বিমুখী নীতি ব্যবহার করতে পারেন, তাতে তিনি সুনামের চেয়ে দুর্নামের ভাগী বেশী হতে পারেন।
লেখক: জ্যেতিষবিদ ও অধ্যক্ষ, পোপাদিয়া বিপুলা সংস্কৃত কলেজ, বোয়ালখালী, চট্টগ্রাম।

Leave a Reply

%d bloggers like this: