১ লাখ টাকা থেকে ১০ লাখ টাকা জমা দিলে বা তুললে ৮০০ টাকা আবগারি শুল্ক

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০২ জুন ২০১৭, শুক্রবার: বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সায়েম রহমান হিসাব খুলেছেন বেসরকারি একটি ব্যাংকে। পুরো বছরের খরচ চালাতে তাঁর বাবা ওই হিসাবে পাঠান ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। গত বছরের ডিসেম্বরে গিয়ে দেখেন ওই মাসের টাকা কমে গেছে।
কারণ জানতে চাইলে ব্যাংক কর্মকর্তা তাঁকে হিসাব কষে জানান, ৪০০ টাকা মুনাফা হয়েছে। এর মধ্যে ৬০ টাকা কর কাটা হয়েছে। এরপর ৫০০ টাকা আবগারি শুল্ক ও ৫০০ টাকা হিসাব পরিচালনা মাশুল কাটা হয়েছে। সঙ্গে এটিএম ব্যবহারের মাশুল কাটা হয়েছে ৩০০ টাকা। মূল টাকা কমে যাওয়ার এগুলোই হচ্ছে কারণ।
এবারের বাজেটে সায়েম রহমানের হিসাব থেকে আবগারি শুল্ক কাটা হবে ৮০০ টাকা। সায়েম রহমানদের মতো সব ছোট আমানতকারীর ওপরই এবার খড়্গ নেমে এসেছে। যাঁরা ব্যাংকে টাকা রেখে মুনাফা নিতে চান, তাঁদের জন্যও এ বাজেট নিয়ে এসেছে দুসংবাদ। তবে ৫ কোটি টাকার বেশি হিসাবধারীদের তেমন সমস্যা নেই। তাঁরাও একই ধাপে রয়েছেন।
নতুন এ হিসাব কার্যকর হবে পয়লা জুলাই থেকে। অর্থমন্ত্রী গতকাল ঘোষণা করেছেন, বছরের যেকোনো সময় ব্যাংক হিসাবে ১ লাখ টাকা থেকে ১০ লাখ টাকা জমা দিলে বা তুললে ৮০০ টাকা আবগারি শুল্ক কেটে রাখা হবে। আগে রাখা হতো ৫০০ টাকা।
একইভাবে, ১০ লাখ থেকে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত কোনো হিসাবে জমা দিলে বা ওই হিসাব থেকে তুললে ২ হাজার ৫০০ টাকা কেটে রাখা হবে। আগে এ সব হিসাব থেকে রাখা হতো ১ হাজার ৫০০ টাকা। ১ কোটি থেকে ৫ কোটি টাকা হিসাবে থাকলে ১২ হাজার টাকা কেটে রাখা হবে। এসব হিসাব থেকে আগে কেটে রাখা হতো ৭ হাজার ৫০০ টাকা। ৫ কোটি টাকার বেশির ক্ষেত্রে কেটে রাখা হবে ২৫ হাজার টাকা, যা আগে ছিল ১৫ হাজার টাকা।
অর্থমন্ত্রী বলেন, সবক্ষেত্রে আর্থিক অন্তর্ভুক্তির কারণে ব্যাংকিং লেনদেনের আকার দিন দিন বাড়ছে। এ বিবেচনায় এবং রাজস্ব আহরণের স্বার্থেই নতুন প্রস্তাব করছেন তিনি।
বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, ১ থেকে ২ লাখ টাকা রয়েছে এমন হিসাব ৩৩ লাখ ৬২ হাজার ৯১৪টি, ২ থেকে ৩ লাখ টাকার হিসাব রয়েছে ১৩ লাখ ৮০ হাজার ৯৬৫টি, ৩ থেকে ৪ লাখ টাকার হিসাব ৭ লাখ ৯১ হাজার ৮৯২টি, ৪ থেকে ৫ লাখ টাকার হিসাব ৫ লাখ ৬৩ হাজার ৬০৩টি এবং ৫ থেকে ১০ লাখ টাকার হিসাব রয়েছে ১২ লাখ ১৭ হাজার ৪৯৫টি।
এ ছাড়া ১০ লাখ ১ থেকে ২৫ লাখ টাকার হিসাব রয়েছে ৬ লাখ ৭৬ হাজার ৭১২টি, ২৫ থেকে ৫০ লাখ টাকার হিসাব রয়েছে ১ লাখ ৯৬ হাজার ৪৩১টি, ৫০ থেকে ৭৫ লাখ টাকার হিসাব রয়েছে ৬০ হাজার ৫৩৯টি এবং ৭৫ লাখ থেকে ১ কোটি টাকার হিসাব রয়েছে ২৮ হাজার ৬৮৮টি।
এ ছাড়া ১ থেকে ৫ কোটি টাকার হিসাব রয়েছে ৫১ হাজার ৭৮১টি, ৫ থেকে ১০ কোটি টাকার হিসাব রয়েছে ৭ হাজার ৬৬৬টি, ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকার হিসাব রয়েছে ২ হাজার ৪২০টি, ১৫ থেকে ২০ কোটি টাকার হিসাব রয়েছে ১ হাজার ২১৪টি এবং ৫০ কোটি টাকার বেশি রয়েছে এমন হিসাব রয়েছে ৭৬৯টি।
ব্যাংক কর্মকর্তারা জানান, বর্তমানে সুদের হার কমে দাঁড়িয়েছে ৫ থেকে ৬ শতাংশ। পাশাপাশি রয়েছে বিভিন্ন ধরনের মাশুল। এ ছাড়া মুনাফার ওপর ১০ থেকে ১৫ শতাংশ কর দিতে হয়। হিসাব স্থিতির ওপর আবগারি শুল্ক বাড়ানোর ফলে আমানতকারীরা ব্যাংকবিমুখ হয়ে পড়বেন। বদলে ছুটবেন তাঁরা শেয়ারবাজার বা সমবায় সমিতিগুলোতে। এতে ছায়া অর্থনীতি আরও বাড়বে।
অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিস এ খান এ ব্যাপারে প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিশ্বের কোনো দেশে ব্যাংক হিসাব থেকে এত টাকা কেটে রাখা হয় না। অর্থমন্ত্রীর এ প্রস্তাব কার্যকর হলে আমানতকারীরা ব্যাংকে টাকা রাখতে নিরুৎসাহিত হবেন।’
আনিস এ খান আরও বলেন, এত আবগারি শুল্ক কেটে রাখার পরও আবার কাটা হবে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ উৎসে কর অর্থাৎ দিন শেষে আমানতকারীদের মাথায় হাত।

Leave a Reply

%d bloggers like this: