১০টি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ’র লাইসেন্স প্রদান

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৪ জানুয়ারী ২০১৭, বুধবার: বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) ১০টি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানকে ১৩টি বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করার প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স প্রদান করেছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ত্বরান্বিতকরণ, আগামী ১৫ বছরের মধ্যে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা, ১ কোটি লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি, ২০২১ সালের মধ্যে ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রফতানি আয় এবং ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের প্রত্যাশা নিয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। আবদুল মোনেম অর্থনৈতিক অঞ্চল (এএমইজেড) লিমিটেড বাংলাদেশের অন্যতম প্রতিথযশা নির্মাণ প্রতিষ্ঠান আবদুল মোনেম লিমিটেডের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান। রাজধানী ঢাকা থেকে প্রায় ৩৭ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার চর বাউশিয়া ও চর জাজিরা মৌজায় অবস্থিত এই অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে।
এই অর্থনৈতিক অঞ্চলের বর্তমান এলাকা ১৪২.৪১৯০ একর যার লাইসেন্স অদ্য প্রদান করা হলো। আবদুল মোনেম অর্থনৈতিক অঞ্চল দেশের সার্বিক আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন তথা শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার উদ্দেশ্যে আজ এ লাইসেন্স প্রদত্ত হলো।
উক্ত স্থানে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য অনুমোদিত মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী ভূমি উন্নয়নসহ শিল্পকারখানা স্থাপন করা হবে। সমগ্র এলাকাটির পরিবেশগত প্রভাব নিরূপন সমীক্ষা এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে এবং তা পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদিত হয়েছে।
এতদ্ব্যতীত এই অঞ্চলে কেন্দ্রীয় শিল্পবর্জ্য শোধনাগার, পানি শোধনাগার, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থাসহ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয় শর্তাবলি প্রতিপালিত হবে।
প্রাথমিক পর্যায়ে প্রায় ৩০০০ কোটি টাকা মুলধন বিনিয়োগের বিপরীতে এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভূমি ক্রয়, ভূমি উন্নয়ন এবং বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, নিজস্ব পানি সরবরাহ ব্যবস্থা, তিতাস থেকে সরবরাহকৃত গ্যাস সংযোগসহ অর্থনৈতিক অঞ্চলের সকল সর্বাধুনিক পরিসেবা সুবিধাদি থাকবে যা এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগকারীদেরকে সরবরাহ করা হবে। এর পাশাপাশি প্রয়োজনীয় অভ্যন্তরীণ সড়ক, আধুনিক নিষ্কাশন ব্যবস্থা, জীব-বৈচিত্র রক্ষাকল্পে দীর্ঘ জলাধার এবং পরিবেশ বন্ধব সবুজের সমারোহ থাকবে।
প্রস্তাবিত শিল্পখাতের মধ্যে পোশাক ও বস্ত্র শিল্প, মোটর-যন্ত্রাংশ সংযোজন শিল্প, মিশ্রখাদ্য শিল্প, প্যাকেজিং শিল্প ইত্যাদি রয়েছে। ইতোমধ্যে এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের জন্য জাপানসহ বিভিন্ন দেশের ৫টি প্রতিষ্ঠানের সাথে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে এবং আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের সাথে বিনিয়োগ বিষয়ে আলোচনা চলমান রয়েছে। আশা করা যায়, পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে ১ম বছর থেকে দক্ষ-অদক্ষ নারী-পুরুষ মিলিয়ে প্রায় ১০ হাজার কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে যা ৫ বছরের মধ্যে লক্ষাধিকে উন্নীত হবে। লাইসেন্স প্রদান অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান এবং সরকারের সচিব পবন চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বেজার নির্বাহী সদস্য এম এমদাদুল হক ও মো. আব্দুস সামাদসহ পদস্থ কর্মকর্তাগণ এবং এএমইজেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এএসএম মাঈনুদ্দিন মোনেম ও আবদুল মোনেম লিমিটেডের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক এ,এস,এম, মহিউদ্দিন মোনেম সহ অন্যান্য কর্মকর্তা।

Leave a Reply

%d bloggers like this: