সৌদি বাদশাহর “গোপন স্ত্রীর” জন্য আড়াই কোটি ডলার

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৪ নভেম্বর: প্রয়াত সৌদি বাদশাহ ফাহাদের ‘গোপন স্ত্রী’বলে দাবিদার ৬৮ বছর বয়সী জানান হার্ব লন্ডনের হাইকোর্টে মামলা করে আড়াই কোটি soudমার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ পেয়েছেন। হার্ব দাবি করেন, সৌদি বাদশাহ ফাহাদ ১৯৬৮ সালে তাঁকে গোপনে বিয়ে করেছিলেন। ফিলিস্তিনি বংশোদ্ভূত হার্ব আরও জানান, বাদশাহ ফাহাদের পরিবার তাদের বিয়ের বিরোধী ছিলেন, কারণ তিনি খ্রিষ্টান পরিবার থেকে এসেছেন। কিন্তু বিয়ের আগে তিনি ইসলাম ধর্মে দীক্ষা নেন। মামলায় হার্ব অভিযোগ করেন, ২০০৫ সালে মৃত্যুর আগে বাদশাহ ফাহাদ যখন গুরুতর অসুস্থ, তখন তাঁর এক ছেলে প্রিন্স আবদুল আজিজ লন্ডনের ডরচেষ্টার হোটেলে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন। সেসময় প্রিন্স আবদুল আজিজ তাঁকে আশ্বাস দেন যে, রাজপরিবার তার ভরণপোষণের দায়িত্ব নেবে। বাদশাহ ফাহাদের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী প্রিন্স আবদুল আজিজ তাঁর সৎ মাকে ১২ মিলিয়ন ডলার নগদ অর্থ ছাড়াও চেলসির দুটি ফ্ল্যাট দেয়া হবে বলে জানান। লন্ডনের হাইকোর্টে লিখিত বিবৃতিতে প্রিন্স আবদুল আজিজ এরকম প্রতিশ্রুতির কথা অস্বীকার করেছেন। যদিও হাইকোর্ট হার্বের পক্ষেই রায় দিয়েছে। হাইকোর্ট নির্দেশ অনুযায়ী, সৌদি রাজ পরিবারের পক্ষ থেকে হার্বকে ১৫ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ এবং লন্ডনের চেলসিতে দুটি বাড়ীর মূল্য বাবদ আরও দশ মিলিয়ন ডলার দিতে হবে। সূত্র: ঢাকাটাইমস

Leave a Reply

%d bloggers like this: