সেই ওসি হেলাল আত্মসমর্পণের পর কারাগারে

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আবদুল কাদেরকে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করে নির্যাতনের মামলায় খিলগাঁও থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হেলাল উদ্দিন কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। মামলাটিতে তিন বছর দণ্ডপ্রাপ্ত ওসি হেলাল আজ oc helalরবিবার ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মূখ্য মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট আলমগীর কবির রাজের আদালতে আত্মসমর্পণ করে আপিলের শর্তে জামিন প্রার্থনা করেন। শুনানি শেষে বিচারক তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। একই আদালত মামলাটিতে এ আসামির তিন বছর কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড এবং অনাদায়ে তার আরও তিন মাসের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছিলেন। মামলাটিতে ওইদিন জামিনে থানা ওসি হেলাল (বর্তমানে বরখাস্ত) আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিলেন আদালত। প্রসঙ্গত, নির্যাতনের শিকার আব্দুল কাদের বর্তমানে লক্ষ্মীপুর জেলার মহিলা সরকারি কলেজের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত আছেন। এর আগে মামলাটিতে ২০১২ সালের ১ অক্টোবর এ আসামি বিরুদ্ধে একই আদালত দণ্ডবিধির ৩২৬/ ৩৩১ ধারায় অভিযোগ গঠন করেন। ২০১১ সালের ১৫ জুলাই বিকাল ৫টায় আব্দুল কাদের তার ছোট বোন ফারজানা আক্তারকে নিয়ে গুলশানের ইন্দিরা গান্দী কালচারাল সেন্টারে বৃত্তি অনুষ্ঠানে যান। সেখান থেকে হলি ফ্যামেলি স্টাফ কোয়াটারে তার খালার বাসায় বোনকে রেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে যাবার সময় সেগুন বাগিচায় দুদক কার্যালয়ের সামনে থেকে টহল পুলিশ তাকে রাত ১টায় আটক করে ছিনতাইকারী বলে খিলগাঁও থানায় নিয়ে যায়। এরপর তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে ডাকাতি ও অস্ত্র আইনে খিলগাঁও থানায় দুটি মামলা করে। এছাড়া মোহাম্মাদপুর থানার একটি গাড়ি চুরির মামলায়ও তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এই ঘটনা মিডিয়ায় প্রকাশ হলে ২০১১ সালের ২৮ জুলাই হাইকোর্ট খিলগাঁও থানার ওসি হেলাল উদ্দিন, এস আই আলম বাদশা ও এ এস আই শহিদুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করতে পুলিশের মহাপরিদর্শককে নির্দেশ দেন। এছাড়া মিথ্যা মামলা দায়েরকারী বাদী পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এস আই) মো. আলম বাদশার ২০১২ সালের ১৪ মার্চ এক হাজার টাকা অর্থদণ্ড করে আদালত সিএমএম আদালত। অর্থদণ্ড অনাদায়ে তার ৩০ দিনের কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়। প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ২৩ জানুয়ারি মোহাম্মাপুর থানার একটি ও খিলগাঁও থানার দুই মামলা থেকে কাদেরকে অব্যাহিত দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*