সৃষ্টির উদ্দেশ্যের প্রতিফলন (সূরা ফাতিহা)

মোহাম্মদ হোসেন, ২৯ জুলাই ২০১৭, শনিবার: সূরা ফাতিহার বিশ্লেষণ:- সমস্ত প্রশংসা একমাত্র আল্লাহর জন্য। যেহেতু তিনি একমাত্র নিজ ক্ষমতায় সমস্ত জগত সৃষ্টি করেছেন। যিনি সমস্ত জগতের পালন কর্তা, মালিক এবং সংরক্ষক। রব এর অর্থ এখানে তিনটিই হয়। যিনি অত্যন্ত দয়ালু ও পরম করুণাময়। যাহার দয়া ও করুণা জগতে বিদ্যমান। তিনি যেদিন বিলীন হয়ে যাওয়া দেহকে পুনর্জীবিত করে হাজির পূর্বক হিসাব নিকাশ গ্রহণ করিবেন, সেইদিনেরই তিনি একমাত্র মালিক। এর পরবর্তী আয়াতে তিনি نَسْتَعِينُ وإِيَّاكَ نَعْبُدُ إِيَّاكَ সম্বোধনপূর্বক কাফ জমির দিয়ে একমাত্র সৃষ্টি কর্তার প্রভাব নিয়ে মানুষের নিকট হাজির আছেন বিদায় তুমি হিসেবে সম্বোধন করে একমাত্র আমরা হে তোমারই نَعْبُدُ আমরা ইবাদত করি। ক্কাফ জমির দিয়ে বুঝানো হয়েছে যে, তুমি ছাড়া কেউ উপাস্য নেই এবং যার উপসানা স্বয়ং আল্লাহর নবী (সা.) করেছিলেন। نَسْتَعِينُ وإِيَّاكَ তুমিই একমাত্র সাহায্য দাতা এবং আমরা তোমারই কাছ থেকে সাহায্য প্রার্থনা করি। এখানে উল্লেখ্য যে, (ইয়্যাকা নাঁবুদু) نَعْبُدُ إِيَّاكَ দু’টি পৃথক শব্দ এবং পৃথকভাবে পড়িতে পারিলেই তার শব্দের অর্থ সঠিক হবে। অর্থাৎ আমরা একমাত্র তোমারই (আল্লাহর) ইবাদত করি। মানুষ যেই উদ্দেশ্যের জন্য সৃষ্টি করেছিলেন একমাত্র আল্লাহর ইবাদত করার জন্য। এখানেই মানুষ ইবাদত করার স্বীকার উক্তি প্রদান করেন। ইহাইসৃষ্টির উদ্দেশ্যের প্রতিপলন। المُستَقِيمَ اطَ الصِّرَ اهدِنَــــا হেদায়তের জন্য প্রার্থণা হে মাবুদ আমাদেরকে সহজ সরল পথ দেখাও যে, যে পথে তোমার প্রিয় বান্দারা তোমার কাছ থেকে চিরস্থায়ী পুরস্কৃত হয়েছেন এবং যাহারা গজবপ্রাপ্ত হয় নাই এবং পথভ্রষ্টও হয়নি তাহাদের পথ দেখানোর জন্য প্রার্থনা করি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: