সারাদেশে বজ্রপাতের ঘটনায় ১২ জনের মৃত্যু

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : শনিবার দেশের সাত জেলায় বজ্রপাতে ১২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আর আহত হয়েছেন ১২ জন। শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সময়ে এ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এদের মধ্যে সুনামগঞ্জ ও শেরপুরে ৭ জন। আর জামালপুর, গাইবান্ধা, ময়মনসিংহ, দিনাজপুর ও চাঁদপুরে ৫ জন নিহত হয়েছেন। স্থানীয়রা জানায়, সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় দুজন, তাহিরপুর ও মধ্যনগর উপজেলায় ২জন আহত হয়েছে। শনিবার দুপুরে বজ্রপাতে তাদের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন- আব্দুল কাদির (২২), হরিভক্তDead দাস (৩৮)। হাওরে ধান কাটার সময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয় বলে দিরাই থানার ওসি সায়েস আলম জানিয়েছেন। আর মধ্যনগরে আব্দুল জলিল (৪৫) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। তার বাবার নাম মৃত বাচ্চু মিয়া। শিবরামপু গ্রামে তাদের বাড়ি বলে জানা গেছে। তাহিরপুরে রাশেদা বেগম (৪০) নামে এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। তাহিরপুর থানার ওসি শহিদ উল্লাহ জানান, নিহত গৃহবধূ বাড়ির আঙিনায় কাজ করার সময় বজ্রপাত ঘটলে তার মৃত্যু হয়। এছাড়া, শেরপুরের দুই উপজেলায় বজ্রপাতে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন বদ্দি মিয়া (৩৫), মরিয়ম বেগম (১২) ও মালেকা বেগম (৫০)। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সদর উপজেলায় গাছ কাটার সময় বজ্রপাতে একজন নিহত ও তিনজন আহত হন এবং নালিতাবাড়ী উপজেলায় এক স্কুলছাত্রী ও এক নারী মারা যান। শনিবার সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সকাল ১০টার মধ্যে এ দুই জেলায় বজ্রপাতের এসব ঘটনা ঘটে বলে সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এদের মধ্যে মরিয়ম স্থানীয় একটি স্কুলে সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। স্থানীয়রা জানায়, সকালে ঝড়-বৃষ্টির মধ্যে মরিয়ম শুমদচুড়া গ্রামের মক্তবে পড়তে যাচ্ছিল। এ সময় হঠাৎ বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। আর নালিতাবাড়ী থানার এস আই খন্দকার মুফতি মাহমুদ জানান, গাগলাজানি গ্রামের মালেকা বেগম সকাল ১০টার দিকে বাড়ির আঙিনায় গৃহস্থালির কাজ করছিলেন। এ সময় বজ্রপাতে হলে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। এছাড়া, জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জে বজ্রপাতে ছেলে রুবেল হোসেন (১৬) নামে এক কিশোরের ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এ ঘটনায় তার বাবা আব্দুল মজিদ আহত হয়েছেন। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার হাতিভাঙ্গা ইউনিয়নের চরহাতিভাঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। হাতিভাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হানিফ জানান, সকালে আব্দুল মজিদ ছেলে রুবেলকে নিয়ে বাড়ির কাছে ক্ষেতে ধান কাটতে যান। এ সময় বজ্রপাতে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় বাবা আব্দুল মজিদকে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। গাইবান্ধা সদর উপজেলায় বজ্রপাতে নারায়ণ রবি দাস (৩৮) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ সময় তার স্ত্রী ফিগনি রবি দাস (৩০) গুরুতর আহত হয়েছেন। সকালে শহরের কুঠিপাড়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, সকালে বৃষ্টির মধ্যে রান্না ঘরে কাজ করতে ছিলেন স্ত্রী ফিগনি রবি দাস। এ সময় স্বামী নারায়ণ পাশে বসে ছিলেন। হঠাৎ রান্না ঘরের টিনের ওপর বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই নারায়ণের মৃত্যু হয়। এসময় ফিগনি রবি দাস গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহত ফিগনিকে উদ্ধার করে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। তাছাড়া, ময়মনসিংহের ফুলপুরে বজ্রপাতে শরফত আলী (৫০) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। শনিবার দুপুরে উপজেলার রামভদ্রপুর ইউনিয়নের চরনিয়ামত গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এছাড়া, বজ্রপাতের ঘটনা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ৪জন গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদেরকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, শনিবার দুপুরে চরনিয়ামত গ্রামের মাঠে শরফত আলী গরু চরাতে যান। এ সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। এছাড়া, শিরিনা আক্তার (১৬), ইসমত আরা (৪৫), আব্দুল মালেক (২৩) ও রুবেল (১৯) নামে ৪জন গুরুতর আহত হয়েছেন। অপরদিকে দিনাজপুরের বিরামপুরে মো. ফেরদৌস (৪৫) নামে এক কৃষক মারা গেছেন। বিরামপুর উপজেলার শিমুলপুর গ্রামে তাদের বাড়ি বলে জানা গেছে। বিরামপুর থানার ওসি আমিরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে চাঁদপুর এলাকায় জমিতে কাজ করার সময় ফেরদৌস নামের এক কৃষক বজ্রপাতে গুরুতর আহত হন। পরে তাকে উদ্ধারের পর বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এছাড়া, চাঁদপুরে বজ্রপাতে বিল্লাল হোসেন গাজী (৪০) নামের এক কৃষক মারা গেছেন। এঘটনায় আরো দুই জন আহত হয়েছেন। শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে চাঁদপুর সদর উপজেলার ইব্রাহীমপুর ইউনিয়ন চরপতেজনপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এঘটনায় মনির হোসেন (৩৫) ও আলী হোসেন (২০) নামে ২ ব্যক্তি আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে মাঠে কাজ করছিল বিল্লাল। এসময় হঠাৎ ঝড়ো বৃষ্টি সঙ্গে বজ্রপাত শুরু হলে বিল্লালসহ আরো দুজন গুরুতর আহত হয়। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপতালে নিয়ে এলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক ফরিদুল হক টুটুল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সূত্র : শীর্ষ নিউজডটকম

Leave a Reply

%d bloggers like this: