সামাজিক কল্যাণ সাধনে বীমা খাতের অবদান অপরিসীম: প্রাইম ইন্স্যুরেন্সের এমডি শাহ আলম

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৭ মে: বীমার মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি গ্রহণ করা যেতে পারে বলে মত ব্যক্ত করেন প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহ আলম এফসিএ আজ ১৭ মে সকাল ১০ টায় দিনব্যাপি প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড চট্টগ্রাম কর্পোরেট জোন-০৩ এর উদ্যোগে বাকলিয়াস্থ কে. বি. কনভেনশন হলে গ্রাহক ও কর্মীদের এক বিরাট প্রিমিয়াম মেলা অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, দরিদ্র কৃষকদের জন্য কৃষি বীমা এবং হতদরিদ্র জনগণের জন্য স্বাস্থ্যবীমা ও ক্ষুদ্র বীমার মাধ্যমে আপনাদের নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে হবে। চট্টগ্রাম কর্পোরেট জোন-০৩ এর ইনচার্জ ও এসইভিপি মোহাম্মদ সলিম উল্লাহর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কনসালটেন্ট আনিছুর রহমান।Prime Insurence
বীমা সংস্থা জনগণের কষ্টার্জিত অথের্র জিম্মাদার উল্লেখ করে প্রধান অতিথি বলেন, বীমার দাবি নিষ্পত্তির বিষয়ে দ্রুত সুরাহা করতে হবে। তিনি বলেন, ‘বীমা যাতে সংগৃহীত অর্থ সঠিকভাবে বিনিয়োগ করে এবং দাবি উত্থাপিত হলে যত দ্রুত তা নিষ্পত্তি করা যায় সেদিকে সকলকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।’ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর অবস্থার উন্নয়নে বীমা ক্ষেত্রে সকলের সহযোগিতা আবশ্যক।
তিনি বলেন, ‘যদিও প্রত্যেক ব্যক্তি তার নিজস্ব প্রচেষ্টার মাধ্যমে অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে; কিন্তু এই প্রচেষ্টা আরও বেগবান হতে পারে যদি আমরা পরস্পরের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতা আরও জোরদার করি।’ প্রধান অতিথি বলেন, ‘বীমা এরকমই একটি ক্ষেত্র যেখানে পরস্পরের মধ্যে অভিজ্ঞতা ও জ্ঞানের আদান-প্রদানের মাধ্যমে নিজ নিজ এলাকার কাংক্ষিত উন্নয়ন সাধন করতে পারে।’ বীমাশিল্পকে টেকসই এবং লাভজনক করতে হলে উন্নত প্রশিক্ষণ এবং সুদৃঢ় নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা জরুরি উল্লেখ করে প্রধান অতিথি এক্ষেত্রে সকল বীমা কর্মীকে পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে এগিয়ে যেতে হবে বলে মত ব্যক্ত করেন। প্রধান অতিথি বলেন, আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে পারস্পরিক সহযোগিতা আমাদের লক্ষ্য অর্জনকে ত্বরান্বিত এবং তারাও নিজ নিজ এলাকায় কাংক্ষিত উন্নয়ন সাধন করতে পারবে।’
প্রধান অতিথি বলেন, মানুষের দুর্দশা লাঘব, সামাজিক কল্যাণ সাধন এবং শিল্প ও ব্যবসা-বাণিজ্যের ঝুঁকি নিরসনে বীমা খাতের অবদান অপরিসীম। পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ মূলধন সংগ্রহেও বীমার ভূমিকা অনস্বীকার্য। তিনি বলেন, ‘যে দেশের বীমাশিল্প যত উন্নত ও নিয়ন্ত্রিত, সে দেশের অর্থনীতিও তত মজবুত।’
প্রধান অতিথি বলেন, সামাজিক উন্নয়ন ও মানবসম্পদ উন্নয়নের দিক থেকে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে একটি অনুকরণীয় মডেল। বিশ্বব্যাপী দারিদ্র্য বিমোচনে বাংলাদেশকে এখন স্টার পারফরমার হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ শাহাদাত হোসেন, মাহফুজুর রহমান, জয়নুল আলম, জসিম উদ্দিসন চৌধুরী, মো. হারুনুর রশিদ, মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ, আলমগীর মোর্শেদ, নিজাম উদ্দিন, আনোয়ারূল ইসলাম, তালিমুল ইসলাম, নেছার উদ্দিন, ইসলামী সংগিত পরিবেশন করে নুরুল মোস্তফা। পরে প্রিমিয়াম মেলায় পুরস্কার বিতরণ ও মেজবান অনুষ্ঠিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*