সাতকানিয়ার সন্ত্রাসী বশির ধরা ছোঁয়ার বাইরে, গায়েবী মামলায় নাছির মেম্বার গ্রেফতার

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২২ ডিসেম্বর ২০১৮ ইংরেজী, শনিবার: সংক্ষিপ্ত বিবরণ এই যে, গত ১৯ ডিসেম্বর-২০১৮ বুধবার রাত ৩ টায় সাতকানিয়ার থানার এ এস আই ইয়মিন সাতকানিয়ার উপজেলার ১৬ নং সদর ইউপির ৯ নং দক্ষিণ রূপকানিয়া ওয়ার্ডের ২ বার নির্বাচিত ইউপি সদস্য নাছির উদ্দিন চৌধুরীকে তার নিজ বাসভবন থেকে ওসি ডেকেছে বলে থানায় ২ দিন আটকিয়ে রেখে ২১ ডিসেম্বর দুপুর ১ টায় বিস্ফোরক আইনের ২ টি গায়েবী মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে চালান দিয়েছে। উক্ত মেম্বারের বিরুদ্ধে পূর্বে কোন মামলা থানায় ছিল না। তিনি একজন সৎ সাহসী এলাকায় অপরাধীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী ভূমিকা রেখে এসেছিলেন। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন বলে জানান এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। আওয়ামীলীগ নেতা আমিনুল ইসলাম আমিন ও থানা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোতালেবের নোমিনেশনের বিষয়ে গণসংযোগে থাকার ফলে ফেরারী আসামী বশিরের ষড়যন্ত্রে প্রতিপক্ষরা পুলিশকে বশে নিয়ে গায়েবী বিস্ফোরক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে চালান দেয়। এদিকে সোনাকানিয়া ইউপির সাবেক জনপ্রিয় চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন হত্যা মামলার ফেরারী আসামী সন্ত্রাসী বশির। আমজাদ হোসেন স্মৃতি সংসদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সরওয়ার কামালের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম পুুলিশ সুপার বশিরের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানামূলে গ্রেফতার করার জন্য স্মারক নং ১৬৫৯/২ তারিখ: ২৭/০২/২০১৮ ইংরেজী। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাতকানিয়া হতে স্মারক নং ২২৯/১, তারিখ: ১৬/০২/২০১৮ ইংরেজী। আরো বিভিন্ন স্মারকে সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে উক্ত সন্ত্রাসী বশিরকে গ্রেফতার করার নির্দেশ প্রদান করা হলেও থানার ওসি এখনো গ্রেফতার করেনি বশিরকে। উক্ত বশির গংয়ের ষড়যন্ত্রে অথচ প্রতিবাদী ব্যক্তি নাছিরকে সাতকানিয়া থানার ওসি গায়েবী মামলায় গ্রেফতার করলো। ওসির এ রকম অন্যায় কর্মকান্ডে সাতকানিয়ার জনগণ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বলে সূত্রে প্রকাশ। অন্যদিকে ফেরারী আসামী বশির পুলিশের চত্রছায়ায় থেকে নিহত চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেনের আত্মীয় নুরুল হক সওদাগর, আমিনুল হক সওদাগর, স্মৃতি পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সরওয়ার কামাল ও সদস্য বাদশার বিরুদ্ধে ডাকাতী মামলার আসামী রফিক ও ডাকাত খায়ের আহমদের স্ত্রীকে বাদী করে ও মিথ্যা ও কাল্পনিক ঘটনা সাজিয়ে গরু ও মহিশ চুরি ও ঘরপোড়া সংক্রান্তঘটনা সাজিয়ে মামলা দিয়ে হয়রানী করছে বলে অভিযোগে জানা যায়। বর্তমানে নুরুল হক সওদাগর গংদেরকে উক্ত মিথ্যা মামলায় আটক ও হামলা করার ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে। এলাকার জনগণ নাছির মেম্বারের নি:শর্ত মুক্তি ও ফেরারী আসামী বশিরের গ্রেফতার করে, নুরুল হক সওদাগর গংদের বিরুদ্ধে দায়েরী মিথ্যা মমলা প্রত্যাহারের জন্য প্রশানের নিকট জোর দাবী জানান।

Leave a Reply

%d bloggers like this: