সহিংসতা, জাল ভোট, কেন্দ্র দখল অব্যাহত: ইউপি নির্বাচনে নিহত ১০৭

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৮ মে: পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে আরো ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের প্রথম চার ধাপে নির্বাচনী সহিংসতায়vote ১০১ জন নিহত হয়েছেন। যা প্রাণহানির অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)। সর্বশেষ এ নিউজ লেখা পর্যন্ত পঞ্চম ধাপের নির্বাচনে ৬ জনসহ সর্বমোট ১০৭ নিহত হয়েছেন। সহিংসতা, জাল ভোট, কেন্দ্র দখল, ব্যালট পেপার ছিনতাই, ভোট বর্জনসহ ব্যাপক অনিয়মের খবর পাওয়া গেছে।
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার খাগকান্দা ইউনিয়নের কাকাইলমোড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের বাইরে প্রকাশ্যে নৌকা প্রতীকে ভোটারদের ভোট দিতে বাধ্য করছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। আর ওই কেন্দ্রের ভোটের দায়িত্বে থাকা প্রিজাইডিং অফিসার তখন দরজা বন্ধ করে চা- বিস্কুট খাচ্ছিলেন।
সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার শুকগাছা ইউনিয়নে জালভোট দেয়ায় একটি ভোট কেন্দ্রের সহাকারী প্রিজাইডিং অফিসারকে ৬ মাসের কারাদ- দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
জালভোট দেয়ার দায়ে কারাদ-প্রাপ্ত সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ফরহাদ হোসেন উপজেলার পাটগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক।
লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার কুশাখালী ইউনিয়নে ভোটকেন্দ্রে ভোটারের হাত থেকে ব্যালট পেপার কেড়ে নিয়ে নৌকা প্রতীকে সিল মারার দায়ে মো. শাহ আলম নামে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর এক এজেন্টকে আটক করেছে পুলিশ।
জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৪ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধসহ ৩০ জন আহত হয়েছেন। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরাবাদ ইউনিয়নের খোটারচর ইবতেদায়ী মাদ্রাসা কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন- শেখ পাড়া গ্রামের আফজাল হোসেনের ছেলে অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মাজেদ, একই গ্রামের সাত্তারের ছেলের নুরুল ইসলাম (২০), পুতুবের চর গ্রামের আমজাদ হাজির ছেলে নবম শ্রেণির নবীরুল ইসলাম ও একই গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে জিয়া (২৫)। নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার ছয় নম্বর রাজগঞ্জ ইউনিয়নে কেন্দ্র দখলের সময় দুইপক্ষের সংঘর্ষের সময় সৈয়দ আহমদ (৬৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় কেন্দ্র দখলে বাধা দেয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের সময় গুলিতে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তার নাম সৈয়দ আহমেদ (৪০)। বেগমগঞ্জ উপজেলার রাজগঞ্জ ইউনিয়নের আলাজি নগর গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। চট্টগ্রামে এক জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।
চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার বড়োউথান ইউনিয়নে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইয়াছিন(২৮) নামে এক মেম্বার প্রার্থী কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ইউনিয়নের ইছাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। কর্ণফুলী থানার ওসি জানান, দুপুরে ইউনিয়নের ইছাপুর এলাকায় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের লোকজন ইয়াছিনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।
বাংলাদেশে অতীতের যেকোনো ইউপি নির্বাচনের চেয়ে এই নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি হয়েছে। দেশের সর্ব নিম্নস্তরের নির্বাচনে ব্যাপক অনিময় ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। ইউপি নির্বাচন এখন দুঃস্বপ্নের নির্বাচন। এই নির্বাচনে মৃত ব্যাক্তিরাও ভোট দিয়েছেন! যা স্থানীয় সরকার নির্বাচন ব্যবস্থা ১৫০ বছরের ইতিহাসের সব চেয়ে ভয়াবহ। অনুষ্ঠানে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সুজনের সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার।
এর আগে ১৯৮৮ সালের নির্বাচন সবচেয়ে বেশি সহিংসতাপূর্ণ ও প্রাণঘাতী ছিল। ওই নির্বাচনে ৮০ জনের প্রাণহানি হয়। ২০১১ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ইউপি নির্বাচনে ১০ জনের প্রাণহানি হয়। ২০০৩ সালে বিএনপি সরকারের আমলে ২৩ জন মারা যায়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: