সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে খালেদা জিয়ার জাতীয় ঐক্যের ডাক

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৭ জুলাই: বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে জাতীয় ঐক্যের ডাক দেয়ায় সরকার বিপাকে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ। তিনি বলেছেন, সরকার যদি জঙ্গিবাদের উত্থান hannan-sha রোধ করতে ব্যর্থ হয়, তবে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের জনগণ ঐক্যবদ্ধভাবে জঙ্গিবাদ নির্মূল করবে।
রবিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘জঙ্গি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য ও নাগরিক প্রত্যাশা’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি। ভয়েজ ফর ডেমোক্রেসি নামের একটি সংগঠন গোলটেবিল আলোচনাটি আয়োজন করে।
হান্নান শাহ বলেন, “সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হোক তা চায় না সরকার। খালেদা জিয়া জাতীয় ঐক্যের ডাক দেয়ায় সরকার বিপাকে পড়েছে। তাদের আশঙ্কা, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হলে এই সরকারের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার থাকবে না।
হান্নান শাহ বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব ছিল জাতীয় ঐক্যের ডাক দেওয়া। কিন্তু তিনি তা করেননি। খালেদা জিয়াই জাতীয় সংকটকালে জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়ে তার দায়িত্ব পালন করেছেন।”
খালেদা জিয়ার জাতীয় ঐক্যের ডাক জনগণ মেনে নিয়েছে দাবি করে হান্না শাহ বলেন, দু-একটি ছাড়া অধিকাংশ রাজনৈতিক দলের নেতারা তা মেনে নিয়েছেন। জাতীয় ঐক্যর স্বার্থে দেশনেত্রীর নেতৃত্বে ছোটখাটো সমস্যাগুলো সমাধান করা হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
বর্তমান সরকারকে ‘দখলদার’ উল্লেখ করে বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, “দখলদারি এক ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। সুতরাং, এক সন্ত্রাসের পক্ষে আরেক সন্ত্রাস দমন করা সম্ভব নয়।”
আইনশৃঙ্খখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সমালোচনা করে বিএনপির এ নেতা বলেন, “আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কিছু কর্মকর্তা রাস্তায় বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের দেখামাত্র গুলি করে হত্যার নির্দেশ দিয়ে বড় বাহাদুরি দেখিয়েছেন। এখন কোথায় গেল আপনাদের বাহাদুরি। গুলশানে ৬-৭ জন সন্ত্রাসীকে মোকাবেলা করতে পারলেন না। প্রধানমন্ত্রীকে গিয়ে বললেন আমার বাহিনী দিয়ে এ সন্ত্রাসীদের মোকাবেলা করা সম্ভব নয়। আপনাদের সাহস ও সক্ষমতা দেশবাসী দেখেছে। জনগণ বুঝতে পেরেছে এরা ঠুঁটো জগন্নাথ।”
সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা বলেন, “আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সঠিকভাবে কাজ করতে দিলে এ দেশে সন্ত্রাস থাকবে না। কিন্তু সরকার বিরোধী দলকে দমনে তাদের ব্যবহার করছে। সে জন্যই এই সব কর্মকাণ্ড ঘটছে।”
আয়োজক সংগঠনের ফেলো অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, ভয়েজ ফর ডেমোক্রেসির সাধারণ সম্পাদক, খন্দকার লুৎফর রহমান, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য খালেদা ইয়াসমিন, বিএনপির নেতা আবু নাছের মুহম্মদ রহমতউল্লাহ, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*