সকালের নাশতা সবচেয়ে দরকারি

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৫ ফেব্র“য়ারী: সকালের নাশতা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এটি শুধু আপনার স্থূলতাই রোধ করবে না, আপনার বাড়তি ওজন কমাবে, শারীরিকভাবে সারাদিন সক্ষম রাখবে এবং দিনের অন্যান্য সময় খবার গ্রহণের পরিমাণ কমাবে। নতুন গবেষণায় এই তথ্য বেরিয়ে এসেছে।helth
গবেষকদের মতে, শারীরিক কার্যক্ষমতা বাড়ার কারণে মানুষ অলস বসে থাকে না। বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকে, যার ফলে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।
ব্রিটেনের বাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও গবেষক প্রধান জেমস বেটস বলেন, সকালের নাশতা খাওয়া না খাওয়া নিয়ে অনেকেই ভিন্ন মত দিয়েছেন। এখন পর্যন্ত যথাযথ বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি সকালের নাশতা কিভাবে আমাদের স্বাস্থ্যে পরিবর্তন আনে।
জেমস বেটস আরও বলেন, কোনো ব্যক্তির স্বাস্থ্যগত লক্ষ্য অর্জনে সকালের নাশতা ‘কত গুরুত্বপূর্ণ’ গবেষণার ফলাফলে এই বিষয়েই আলোকপাত করা হয়েছে। গবেষক দল সকালের নাশতার সঙ্গে শরীরের ওজন ও স্বাস্থ্যের যোগসূত্র বের করার চেষ্টা করেছেন।
গবেষণা প্রতিবেদনটি আমেরিকার ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। স্থূলকায় ব্যক্তিদের আলাদা করে ২১ থেকে ৬০ বছর বয়সীদের দুটি গ্রুপে ভাগ করা হয়। একটি গ্রুপকে সকালে উপবাস থাকতে বলা হয় এবং আরেক গ্রুপকে সকালে নাশতা খেতে বলা হয়। ছয় সপ্তাহ পর্যন্ত তাদের কী পরিবর্তন আসে গবেষণায় তাই দেখার চেষ্টা করা হয়েছে।
সকালের নাশতা গ্রহণকারীদের বেলা ১১টার আগ পর্যন্ত কমপক্ষে ৭০০ ক্যালোরি গ্রহণ করতে বলা হয়।আর উপবাস গ্রুপটিকে দুপুর পর্যন্ত শুধু পানি পান করতে দেয়া হয়।
গবেষণার ফলাফল পর্যালোচনা করে জেমস বেট বলেন, উদাহরণস্বরূপ, ওজন কমানোই যদি মূল লক্ষ্য হয় তাহলে সকালের নাশতা খাওয়া বা না খাওয়া সামান্য ভূমিকা রাখে। তবে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, অধিক কর্মক্ষম এবং রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করতে সকালের নাশতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তবে এটা মনে রাখতে হবে, সবাই একই উপায়ে নাশতা খায় না, আবার সবার নাশতা সমান হয় না।
অন্য এক গবেষক বলেন, চিনিযুক্ত খাবার এবং উচ্চ প্রোটিন সমৃদ্ধ সকালের নাশতার মধ্যে যথেষ্ট প্রার্থক্য রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*