সকলে এগিয়ে আসলে এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পাশাপাশি মানসম্মত শিক্ষা ও সাক্ষরতা বাস্তবায়ন হবেঃ জেলা প্রশাসক

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইংরেজী, রবিবার: চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজবিুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর থেকে ঝড়ে পড়া রোধসহ সাক্ষরতা ও মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। ফলে বর্তমানে দেশে শিক্ষার হার প্রায় ৭৪ শতাংশ। সারাদেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৯৭ শতাংশ ভর্তি নিশ্চিত হলেও চট্টগ্রামে তা শতভাগে উন্নীত হয়েছে। আমরা শতভাগ সাক্ষরতা অর্জন করতে চাই। বয়স্কদের শিক্ষা দেয়ার জন্য উপানুষ্ঠানিক ব্যুরো প্রকল্প নিয়ে এখানকার ৭টি উপজেলায় বয়স্ক শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রেখেছে। পাড়া-মহল্লায় মন্দির ভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। বিষয় ভিত্তিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য সরকার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদেরকে বিদেশে নিয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে। শতভাগ স্কুলে মিড ডে মিল চালু করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ভবন নির্মান, আসবাবপত্র প্রদান, শিক্ষার্থীদের মাঝে টিফিন বক্স ও স্কুল ব্যাগ সরবরাহ করা হচ্ছে।

শিক্ষার উন্নয়নে বিদ্যালয়গুলোতে জনপ্রতিনিধি ও বিত্তবানদের সম্পৃক্ত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার পাশাপাশি আনন্দ-বিনোদনের জন্য হারমোনিয়াম, তবলা ও খেলাধুলার সামগ্রী দেয়া হচ্ছে। গত দেড় বছরে প্রাথমিক শিক্ষার ক্ষেত্রে চট্টগ্রাম অনেকদুর এগিয়ে গেছে। শিক্ষার পাশাপাশি নীতি-নৈতিকতা শিখাতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেনীর শিক্ষার্থীদের মাঝে ১০টি প্রশ্ন সম্বলিত ডাইরী প্রদান করা হচ্ছে। এগুলোর মাধ্যমে সন্তানদের মাঝে সামাজিক মুল্যবোধ সৃষ্টি হবে। সকলে এগিয়ে আসলে আগামী ২০৩০ সালে এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পাশাপাশি মানসম্মত শিক্ষা ও সাক্ষরতা বাস্তবায়ন হবে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী ২০ বছরের মধ্যে দেশের শিক্ষার মান ও সাক্ষরতা এমন পর্যায়ে পৌঁছাবে আমরা উন্নত বিশ্বে পদার্পণ করতে পারবো। আজ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং রোববার সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত আর্ন্তজাতিক সাক্ষরতা দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে-“ বহু ভাষায় সাক্ষরতা, উন্নত জীবনের নিরাপত্তা ”। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো দিবসের আয়োজন করেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোঃ আবু হাসান সিদ্দিকের সভাপতিত্বে ও সুকুমার দাশের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত সাক্ষরতা দিবসের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক (স্থানীয় সরকার) ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) হৃষিকেশ শীল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর সহকারী পরিচালক জুলফিকার আমিন। ডকুমেন্টারী উপস্থাপন করেন বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থাা ঘাসফুল’র ম্যানেজার মোঃ সিরাজুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- সরকারী মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ আজিজুল হক, এনজিও সংস্থা ওর্য়াল্ড ভিশন বাংলাদেশ’র মহা ব্যবস্থাপক রবার্ট কমল সরকার, সরকারী মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ আজিজুল হক, ব্রাইট বাংলাদেশ ফোরাম’র প্রতিনিধি সোহাইল উদ্দোজা, ব্র্যাক প্রতিনিধি নজরুল ইসলাম, স্বপ্নীলের প্রতিনিধি মোঃ আলী সিকদার, অপরাজেয় বাংলাদেশ’র প্রতিনিধি মাহবুব উল আলম, বিটা’র প্রতিনিধি কানিজ ফাতেমা,যুগান্তর প্রতিনিধি মনজিলুর রহমান,ডিএসকে’র প্রতিনিধি টুটুল দাশ, ইপসার প্রতিনিধি অপূর্ব দে, মমতার প্রতিনিধি প্রবীর দাশ, কোডেক’র প্রতিনিধি অলকা বড়–য়া, বর্ণালীর প্রতিনিধি সোমা দত্ত প্রমুখ।
দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে-“ বহু ভাষায় সাক্ষরতা, উন্নত জীবনের নিরাপত্তা ”। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো দিবসের আয়োজন করেন। আলোচনা সভার পূর্বে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসের সামনে বেলুন উড়িয়ে আর্ন্তজাতিক সাক্ষরতা দিবসের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন। এরপর “বহু ভাষায় সাক্ষরতা, উন্নত জীবনের নিরাপত্তা”- এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে পুনঃরায় সার্কিট হাউসে এসে শেষ হয়। এতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটগন, বিভিন্ন এনজিও সংস্থা ও শিক্ষা প্রতিষ্টানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*